• শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯
মাগুরা ও দৌলতখান (ভোলা) প্রতিনিধি    |    
প্রকাশ : ১১ আগস্ট, ২০১৬ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
বিএনপির নতুন কমিটি থেকে শিল্পপতি কাজী কামালের পদত্যাগ
দল ছাড়লেন দৌলতখান পৌর বিএনপির সভাপতিও
মাগুরা-২ আসন থেকে নির্বাচিত দু’বারের সাবেক সংসদ সদস্য ও মাগুরা জেলা বিএনপির সাবেক সভাপতি শিল্পপতি কাজী সালিমুল হক কামাল নবগঠিত কেন্দ্রীয় কমিটি থেকে পদত্যাগ করেছেন। এ নতুন কমিটিতে তাকে কার্যনির্বাহী সদস্য করা হয়েছিল। এদিকে ভোলার দৌলতখান পৌর বিএনপির সভাপতি হারুন অর রশিদ খান দল থেকে পদত্যাগ করেছেন। বুধবার সন্ধ্যায় সংবাদ সম্মেলন করে তিনি পদত্যাগের কথা জানান। বিএনপি চেয়ারপারসন বরাবরে পাঠানো পদত্যাগপত্রের ফটোকপি কাজী কামালের ব্যক্তিগত সহকারী একে আজাদ বুধবার দুপুরে মাগুরায় সাংবাদিকদের কাছে বিতরণ করেন। এরশাদ সরকারের সাবেক মন্ত্রী নিতাই রায় চৌধুরীর নাম উল্লেখ না করে কাজী সালিমুল হক কামাল পদত্যাগপত্রে অভিযোগ করেন- এমন একজনকে দলের ভাইস চেয়ারম্যান করা হয়েছে যিনি ওই পদের জন্য উপযুক্ত নন। ওয়ান-ইলেভেনের সময় তার ভূমিকা ছিল প্রশ্নবোধক। তারপরও তাকে মাগুরা জেলা বিএনপির আহ্বায়ক করা হয়েছে। এরপর থেকে মাগুরায় বিএনপির অভ্যন্তরীণ কোন্দল লেগেই আছে। গত ইউপি নির্বাচনে মাগুরা জেলার ৩৫ ইউনিয়নে তার ইচ্ছামতো মনোনয়ন দেয়ায় একটি ইউনিয়নেও বিএনপির প্রার্থী নির্বাচিত হতে পারেননি। তারা সবাই ৪র্থ বা ৫ম স্থানে ছিলেন। বরং বিএনপির বিদ্রোহী প্রার্থীরা ২য় বা ৩য় স্থান পেয়েছিলেন। পদত্যাগপত্রে কাজী কামাল নিজের সম্মান রক্ষায় নতুন কমিটি থেকে পদত্যাগ করছেন বলে উল্লেখ করেছেন।
জিয়া অরফানেজ দুর্নীতি মামলায় খালেদা জিয়া ও তারেক জিয়ার সঙ্গে কাজী সালিমুল হক কামালও আসামি। জাতীয় পার্টি থেকে বিএনপিতে আগত মাগুরার নিতাই রায় চৌধুরীর নতুন কমিটিতে সহসভাপতি মনোনীত হওয়ায় জেলার বেশিরভাগ নেতাকর্মী ক্ষুব্ধ প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেছেন। দৌলতখান থেকে প্রতিনিধি জানান, ভোলার দৌলতখান পৌর বিএনপির সভাপতি হারুন অর রশিদ খান দল থেকে পদত্যাগ করেছেন। বুধবার সন্ধায় দৌলতখান পৌর ৪নং ওয়ার্ডের নিজ বাসায় সংবাদ সম্মেলন করে তিনি পদত্যাগের কথা ঘোষণা করেন। জেলা বিএনপির সভাপতি বরাবরে লেখা পদত্যাগপত্রে তিনি উল্লেখ করেন, আমি মুক্তিযোদ্ধা পরিবারের সদস্য।
সাম্প্রতিক রাজনীতিতে বিএনপির দেউলিয়াত্ব ও স্বাধীনতাবিরোধীদের সঙ্গে সম্পর্ক আমাকে পীড়া দিচ্ছে। বিএনপি স্বাধীনতাবিরোধীদের সঙ্গে সম্পর্ক ছিন্ন না করার কারণে স্বেচ্ছায় আমি দৌলতখান পৌর বিএনপির সভাপতির পদ থেকে পদত্যাগ করলাম। হারুন অর রশিদ খান ২০০৬ সাল থেকে পৌর বিএনপির সভাপতির দায়িত্ব পালন করছিলেন।



আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত