• শুক্রবার, ২০ সেপ্টেম্বর ২০১৯
আহমদ মুসা রঞ্জু, খুলনা ব্যুরো    |    
প্রকাশ : ১১ আগস্ট, ২০১৬ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
স্যুয়ারেজ ব্যবস্থা নেই খুলনা মহানগরীতে
স্বাধীনতার পর ৪৫ বছর পার হলেও খুলনায় এখনও পর্যন্ত স্যুয়ারেজ (পয়ঃনিষ্কাশন) ব্যবস্থা নেই। এতে শহরের পরিবেশ যেমন নষ্ট হচ্ছে, তেমনি দূষণের কবলে পড়ছে নগরীর আশপাশের জলাশয়। যদিও কর্তৃপক্ষ বলছে শিগগির পরিস্থিতি পরিবর্তনে মাস্টার প্লান হাতে নেয়া হয়েছে।
খুলনা ওয়াসা সূত্রে জানা গেছে, নগরীতে প্রায় ১৬ লাখ মানুষের বসবাস। অথচ শহরে পরিকল্পিত স্যুয়ারেজ ব্যবস্থা নেই। প্রতিদিন বিপুল পরিমাণ বর্জ্য সরাসরি গিয়ে পড়ছে ময়ূর নদীসহ আশপাশের বিভিন্ন খালে। এভাবে চলতে থাকলে ধীরে ধীরে মরে যাবে শহরের ভেতর বাইরের সব জলাশয়, যা বসবাসের অযোগ্য করে তুলবে খুলনা নগরীকে। নগরীতে এখন গৃহস্থালি, মানুষের ও শিল্প বর্জ্য নিষ্কাশন হয় উন্মুক্ত পরিবেশে। সেপটিক ট্যাংক থেকে পানি বাড়ির পাশের ছোট ড্রেন, সেখান থেকে বড় ড্রেন, এরপর খাল দিয়ে নদীতে চলে যায়। বাড়ির আশপাশ ও বড় ড্রেনগুলোর ৮০ ভাগই উন্মুক্ত। এজন্য বড় ধরনের স্বাস্থ্য ঝুঁকিতে রয়েছে খুলনার মানুষ। ২০০৮ সালের ৫ মার্চ খুলনা পানি সরবরাহ ও পয়ঃনিষ্কাশন কর্তৃপক্ষ (ওয়াসা) গঠন করা হলেও দীর্ঘ ৭ বছরে এখন পর্যন্ত কোনো স্যুয়ারেজ লাইন স্থাপন করতে পারেনি ওয়াসা।
নগরবিদদের মতে, এ পরিবেশগত ক্ষতির আর্থিক মূল্য যে কোনো মেগা প্রকল্পের চেয়ে কোনো অংশে কম নয়। কিন্তু অর্থ বরাদ্দের অভাব দেখিয়ে খুলনায় স্যুয়ারেজ ব্যবস্থাপনায় কোনো ধরনের প্রকল্প হাতে নিতে পারেনি ওয়াসা, যা রাষ্ট্রীয় সেবা প্রতিষ্ঠান হিসেবে চরম ব্যর্থতার পরিচায়ক।
স্যুয়ারেজ স্থাপন নিয়ে এর আগেও নগরবাসীকে আশ্বাস দেয় খুলনা ওয়াসা কর্তৃপক্ষ। তবে এবার স্যুয়ারেজ লাইন স্থাপনে দৃশ্যমান উদ্যোগ নেয়া হচ্ছে বলে দাবি করেছে কর্তৃপক্ষ।
খুলনা ওয়াসার নির্বাহী প্রকৌশলী রেজাউল ইসলাম বলেন, খুলনা মহানগরীতে পয়ঃনিষ্কাশন কার্যক্রম আধুনিক করতে গত বছরের অক্টোবর মাসে এডিবি’র একটি দল খুলনায় আসে। আইপিই গ্লোবাল ও বিটস কনসালটিং নামের দুটি প্রতিষ্ঠান ৪ মাস ধরে প্রাক সম্ভাব্যতা জরিপ পরিচালনা করে। তারা একটি স্যুয়ারেজ মাস্টার প্লান তৈরি করে ওয়াসায় জমা দেয়। ২০৩৫ সালে খুলনার জনসংখ্যা ও অবস্থান বিবেচনায় নিয়ে এ মাস্টার প্লান বাস্তবায়নের জন্য ওয়াসা কার্যক্রম শুরু করেছে। তিনটি ধাপে খুলনায় স্যুয়ারেজ লাইন বসানো হবে। চলতি ২০১৬ সালে শুরু হয়ে ২০ বছর ধরে এ কার্যক্রম চলবে। প্রথম পর্যায়ে নগরীতে ৩২০ কিলোমিটার স্যুয়ারেজ লাইন বসানো হবে। এজন্য নগরীতে উন্মুক্ত কোনো বর্জ্যরে ড্রেন থাকবে না।
খুলনা ওয়াসার ব্যবস্থাপনা পরিচালক প্রকৌশলী মো. আবদুুল্লাহ পিইঞ্জ বলেন, এডিবি এ প্রকল্পে অর্থায়ন করতে রাজি হয়েছে। চলতি বছরের শেষ নাগাদ এডিবি কনসালটেন্ট নিয়োগ করবে। নকশা প্রণয়ন ও প্রকৃত ব্যয় নির্ধারণের পর শুরু হবে দরপত্র প্রক্রিয়া। ২০১৮ সালের আগে কাজ শুরু করা সম্ভব হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।



আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত