ময়মনসিংহ ব্যুরো    |    
প্রকাশ : ২৬ জুলাই, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
ময়মনসিংহে ভোটার তালিকা হালনাগাদ
সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে আপস নয় : সিইসি
গণতন্ত্র রক্ষায় সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে কারও সঙ্গে কোনো আপস করা হবে না বলে জানিয়েছেন প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নুরুল হুদা। তিনি বলেন, যত নির্বাচন হবে, গণতান্ত্রিক পন্থায় যেসব আইন বিধিবিধান আমাদের হাতে তুলে দেয়া হয়েছে, সেই আলোকে আমরা নির্বাচন অনুষ্ঠান করব। কারও সঙ্গে কোনোভাবে আপস করব না। সেক্ষেত্রে সবার সহযোগিতা কামনা করেন তিনি।
মঙ্গলবার ময়মনসিংহ টাউনহল সংলগ্ন অ্যাডভোকেট তারেক স্মৃতি অডিটোরিয়ামে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কর্মসূচির উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান নির্বাচন কমিশনার কেএম নুরুল হুদা এ কথা বলেন। নির্বাচন কমিশন সচিবালয়ের অতিরিক্ত সচিব মোখলেসুর রহমানের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন নির্বাচন কমিশনার মাহবুব তালুকদার, জাতীয় পরিচয়পত্র নিবন্ধন অনুবিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার জেনারেল সাইদুল ইসলাম, ময়মনসিংহ বিভাগের ভারপ্রাপ্ত কমিশনার মোজাম্মেল হক, ময়মনসিংহ রেঞ্জের ডিআইজি নিবাস চন্দ্র মাঝি, ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক আরিফ আহমেদ খান, পুলিশ সুপার সৈয়দ নুরুল ইসলাম ও আঞ্চলিক নির্বাচন কর্মকর্তা মোহা. ইসরাইল হোসেন। এ সময় নির্বাচন কমিশনার মো. রফিকুল ইসলাম, কবিতা খানম ও ব্রিগেডিয়ার জেনারেল (অব.) শাহাদাত হোসেন চৌধুরী মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন।
একাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনকে সামনে রেখে পঞ্চমবারের মতো সারা দেশে ভোটার তালিকা হালনাগাদ কার্যক্রম শুরু করেছে নির্বাচন কমিশন। ২০১৫ সালের পর এবার বাড়ি বাড়ি গিয়ে তথ্য সংগ্রহ করা হবে। কমিশন আশা করছে, বাদ পড়া ৩৫ লাখসহ নতুন ভোটাররা যুক্ত হবেন নতুন তালিকায়। ৯ আগস্ট পর্যন্ত নতুন ভোটারদের তথ্য সংগ্রহ চলবে। ২ জানুয়ারি খসড়া তালিকা প্রণয়নের পর চূড়ান্ত তালিকা প্রকাশ করা হবে ৩১ জানুয়ারি। নির্বাচন কমিশন সূত্র জানায়, সারা দেশে ৫৫ হাজার তথ্য সংগ্রহকারী ও ১১ হাজার সুপারভাইজার ভোটার হালনাগাদ কর্মসূচির দায়িত্ব পালন করবেন।
নির্বাচন কমিশনার বলেন, আমরা দুই ‘এমপি’ থেকে মুক্তি চাই। তা হচ্ছে ‘মানি পাওয়ার’ ও ‘মাসল পাওয়ার’। এ দুইয়ের হাত থেকে মুক্তি পেতে হবে। রাজনৈতিক দলগুলোর মধ্যে ঐকমত্য প্রয়োজন। নির্বাচনের মাঠ কী পদ্ধতিতে লেভেল প্লেয়িং করা যায়, সে ব্যাপারে সংলাপ হবে। সবার মতামত নেয়া হবে। গ্রহণযোগ্য হলে কমিশন প্রয়োগ করবে। দুর্বল ও প্রশ্নবিদ্ধ নির্বাচন হলে গণতন্ত্র প্রশ্নবিদ্ধ হয়ে যায়। নির্বাচন কমিশনার নির্ভূলভাবে তথ্য নিতে সংগ্রহকারীদের প্রতি নির্দেশ দিয়ে বলেন, কেউ যদি বাধা দেয় বা কেউ যদি কাজে শিথিলতা দেখায় তবে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে। প্রয়োজনে জেল-জরিমানা করতে পিছপা হব না। নির্বাচন যাতে প্রশ্নবিদ্ধ না হয়, সেজন্য সব ব্যবস্থা কমিশন নেবে। শহরের পণ্ডিতবাড়ি সড়কের ফেরদৌস আহমদ স্বপনের বাসায় নির্বাচন কমিশনাররা, বিভাগ ও জেলার ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।



আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত