রংপুর ব্যুরো    |    
প্রকাশ : ২৪ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
ধর্ম নিয়ে কটূক্তি
রংপুরে হিন্দুপল্লীতে সহিংসতায় জড়িত প্রকৌশলী গ্রেফতার
ধর্মীয় কটূক্তির ঘটনায় রংপুর পাগলাপীরের ঠাকুরপাড়ায় সহিংসতার সঙ্গে জড়িত প্রকৌশলী ফজলার রহমানকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ। শনিবার মধ্যরাতে তাকে ঢাকার শ্যামলী এলাকার একটি বাসা থেকে গ্রেফতার করা হয়। তিনি ওই সহিংস ঘটনার পর থেকে আত্মগোপন করেছিলেন।
রংপুর পুলিশ সুপার মিজানুর রহমান, বিপিএম ও পিপিএম জানিয়েছেন, গ্রেফতার আসামি রংপুর জেলা পরিষদের প্রকৌশলী ফজলার রহমান। তিনি পাগলাপীরের হিন্দুপাড়ায় ১২টি বাড়িতে হামলা চালিয়ে অগ্নিসংযোগ, লুটপাট ও সহিংতার সঙ্গে জড়িত মামলার এজাহারভুক্ত আসামি। ঘটনার পর থেকে প্রকৌশলী ফজলার রহমান রংপুরের ধাপ এলাকার নিজ বাসা থেকে পালিয়ে যান। এরপর থেকে তিনি ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় আত্মগোপন করেছিলেন। তাকে রংপুর জেলা পুলিশ ও ঢাকার ডিবি পুলিশের সহায়তায় শনিবার রাত ১টায় শ্যামলী এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয়। ওই সহিংসতার ঘটনায় তাকে কোতোয়ালি ও পাগলাপীর থানায় পৃথক দুটি মামলায় গ্রেফতার দেখানো হয়েছে। পুলিশের একটি সূত্র নিশ্চিত করেছে, প্রকৌশলী ফজলার রহমান পাগলাপীরের হিন্দুপাড়ায় সশস্ত্র হামলা, লুটপাট, অগ্নিসংযোগ ও ঘটনার পরিকল্পনাকারী ছিলেন। পুলিশের হাতে এমন তথ্য প্রমাণ রয়েছে। শুধু তাই নয়, ওই মামলায় গ্রেফতার দুই আসামি ফজলারের ঘটনায় জড়িত থাকা এবং হুকুম দাতা হিসেবে আদালতে ১৬৪ ধারায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছে। পুলিশ এসব বিষয় নিশ্চিত হয়ে তাকে গ্রেফতার করেছে। ধর্ম নিয়ে কটূক্তি করার ঘটনাকে কেন্দ্র করে ১০ নভেম্বর শুক্রবার রংপুরের পাগলাপীর শলেয়াশাহ এলাকায় পুলিশ ও গ্রামবাসীর মধ্যে রক্তক্ষয়ী সংঘর্ষ হয়। ঘটনার সময় বিক্ষুব্ধ গ্রামবাসী সশস্ত্র হামলা চালিয়ে ঠাকুরপাড়ার হিন্দু সম্প্রদায়ের ১২টি বাড়ি ও একটি শিবমন্দিরে অগ্নিসংযোগ করে লুটপাট চালায়। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ শতাধিক রাউন্ড টিয়ারশেল ও ৩০ রাউন্ড গুলিবর্ষণ করে। ওই সংঘর্ষে পুলিশসহ ৩০ জন আহত এবং হামলাকারীদের মধ্যে হবিবুর রহমান নামে এক যুবক নিহত হন। একটি ফেসবুক আইডি থেকে ইসলাম ধর্মীয় সম্প্রদায়ের ধর্ম ও নবীকে নিয়ে ‘ফেসবুকে’ কটূক্তি করা হয়। রংপুরের পাগলাপীর শলেয়াশাহ এলাকার খগেন চন্দ্র রায়ের ছেলে টিটু চন্দ্র রায় (৪০) গত ৫ নভেম্বর থেকে সেটি কপি করে তার ফেসবুক আইডি থেকে প্রচারণা চালাতে থাকেন। এ নিয়ে এলাকায় মুসলিম সম্প্রদায়ের লোকজনের মাঝে ক্ষোভ দেখা দেয়। ওই ঘটনাকে কেন্দ্র করে ওই সহিংসতার ঘটনা ঘটে।



আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত