হামিদ বিশ্বাস    |    
প্রকাশ : ২৩ জুলাই, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
১১ ব্যাংকের আগ্রাসী বিনিয়োগ
দেশে বিনিয়োগ স্থবিরতার মধ্যেও বেশকিছু ব্যাংকের ঋণ ও আমানতের হার অনেক বেশি (এডিআর)। অর্থাৎ এসব ব্যাংক আগ্রাসী বিনিয়োগ করছে। বিপরীতে বিনিয়োগ খরায় আছে রাষ্ট্রায়ত্ত সোনালী ব্যাংক। ব্যাংকটি গত মে মাসে মোট আমানতের মাত্র ৩৮ দশমিক ৬০ শতাংশ বিনিয়োগ করতে পেরেছে। এদিকে আগ্রাসী বিনিয়োগ করা ১১টি ব্যাংকের তথ্য পাওয়া গেছে। ব্যাংকগুলো হল- রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক, বেসিক ব্যাংক, অগ্রণী ব্যাংক (ইসলামী উইং), ন্যাশনাল ব্যাংক অব পাকিস্তান, ঢাকা ব্যাংক (ইসলামী উইং), প্রাইম ব্যাংক (ইসলামী উইং), প্রিমিয়ার ব্যাংক, ওয়ান ব্যাংক, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক, এবি ব্যাংক ও আইএফআইসি ব্যাংক। সংশ্লিষ্টরা বলছেন, এ ধরনের আগ্রাসী বিনিয়োগ ব্যাংক খাতের জন্য অশনি সংকেত। এ ক্ষেত্রে বাংলাদেশ ব্যাংকের তদারকি বাড়ানোর আহ্বান জানান তারা। জানতে চাইলে ব্যাংক নির্বাহীদের শীর্ষ সংগঠন অ্যাসোসিয়েশন অব ব্যাংকার্স বাংলাদেশের সাবেক চেয়ারম্যান ও মেঘনা ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মোহাম্মদ নুরুল আমিন যুগান্তরকে বলেন, জেনারেল ব্যাংকগুলো আমানতের ৮৫ ভাগ বিনিয়োগ করতে পারে। আর ইসলামী ব্যাংক বা উইংগুলো আমানতের ৯০ ভাগ বিনিয়োগ করতে পারে। এর বাইরে কিছু ঘটলে সেটা ব্যাংকের জন্য ভালো নয়। সীমা অতিক্রম করলে বাংলাদেশ ব্যাংক সংশ্লিষ্ট ব্যাংকগুলোকে সতর্ক করবে। বাংলাদেশ ব্যাংক ও অর্থ মন্ত্রণালয় থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী, গত মে মাসে সরকারি বিশেষায়িত রাজশাহী কৃষি উন্নয়ন ব্যাংক আমানতের ১০৫ দশমিক ৬৪ শতাংশ বিনিয়োগ করেছে। বাংলাদেশ ব্যাংকের নিয়ম অনুযায়ী ব্যাংকটি আমানতের সর্বোচ্চ ৮২ থেকে ৮৫ শতাংশ বিনিয়োগ করার সুযোগ ছিল। এতে সরকারি বিশেষায়িত ব্যাংকটি সাড়ে ২০ শতাংশ বেশি বিনিয়োগ করেছে, যা পুরোপুরি আগ্রাসী বিনিয়োগ। একইভাবে রাষ্ট্রায়ত্ত বেসিক ব্যাংক আমানতের প্রায় ৯২ শতাংশ বিনিয়োগ করেছে, যা সীমার চেয়ে ৭ শতাংশ বেশি। অগ্রণী ব্যাংকের ইসলামী উইং বিনিয়োগ করেছে ৯৩ দশমিক ২৩ শতাংশ। এ ক্ষেত্রে ব্যাংকটি নির্ধারিত সীমার চেয়ে ৩ দশমিক ২৩ শতাংশ আমানত বেশি বিনিয়োগ করেছে। অগ্রণী ব্যাংকের ব্যবস্থাপনা পরিচালক (এমডি) মোহাম্মদ শামস-উল ইসলাম যুগান্তরকে বলেন, জেনারেল ব্যাংকিংয়ে বিনিয়োগ অনেক কম। তবে ইসলামী উইংয়ে কিছুটা বেড়ে গেছে। অবশ্যই যে ঋণ গেছে তাতে কোনো ঝুঁকি নেই। তবুও সীমায় ফিরিয়ে আনা হবে। তিনি বলেন, বর্তমানে অগ্রণী ব্যাংকের ইসলামী উইংয়ে ৫টি শাখা রয়েছে। এছাড়া এবি ব্যাংক ৮৬ দশমিক ৩৬ শতাংশ, ঢাকা ব্যাংক ৮৫ দশমিক ৭২ শতাংশ, আইএফআইসি ব্যাংক ৮৫ দশমিক ৫৬ শতাংশ, ওয়ান ব্যাংক ৮৬ দশমিক ৬৪ শতাংশ, প্রিমিয়ার ব্যাংক ৮৮ দশমিক ৭৯ শতাংশ, প্রাইম ব্যাংক ইসলামী উইং ৯১ দশমিক ২৯ শতাংশ, স্ট্যান্ডার্ড ব্যাংক ৮৫ দশমিক ১০ শতাংশ এবং ন্যাশনাল ব্যাংক অব পাকিস্তান আমানতের ৮৭ দশমিক ২৫ শতাংশ বিনিয়োগ করেছে, যা পুরোপুরি আগ্রাসী বিনিয়োগ।



আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত