নজরুল খান    |    
প্রকাশ : ২৮ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
আমরা সংকট মোকাবেলায় দুর্বল কেন?
বিভিন্ন কারণে পণ্যের বাজারমূল্য ওঠানামা করতেই পারে। কিন্তু ত্বরিত ব্যবস্থার ফলে বহুলাংশে তা মোকাবেলাও করা যায়। এ জায়গাটিতে তথা ব্যবস্থাপনায় আমাদের দেশের আমলাদের প্রচণ্ড ঘাটতি দেখা যায়। পেঁয়াজ সংকট আকস্মিক কোনো বিষয় নয়। প্রায় সারা বছরই আলোচনায় ছিল পেঁয়াজ সমস্যা। তাহলে ব্যবস্থা নেয়ার পর্যাপ্ত সময় পেয়েও কেন যথাযথ ব্যবস্থা নেয়া হল না? সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়, অধিদফতর-পরিদফতর ছাড়াও বিদেশে আমাদের মিশন রয়েছে। এ ডিজিটাল যুগে তাদের মারফত বিশ্বের সব দেশের কৃষিপণ্যের যাবতীয় তথ্য সংগ্রহ করা যায় নিমিষেই। পণ্যের উদ্বৃত্ত দেশগুলো বাছাই করে সেখান থেকে আমদানি করলেই তো সমস্যা মিটে যায়। হয়তো কিছু কিছু আমদানিও করা হয়, কিন্তু তা মোটেই সময়মতো ও পরিকল্পনা মাফিক হয় না। এটিই আমাদের সমস্যা।
মনে রাখা দরকার, এখন আমাদের জাতীয় অর্থনীতি অনেক বড় এবং মানুষের গড় আয়ও বেড়েছে। দেশ যে কোনো সময় যে কোনো পরিমাণ পণ্য আমদানি করতে সক্ষম। এত সুযোগ-সুবিধা থাকা সত্ত্বেও সংকট মোকাবিলায় দুর্বল কেন আমরা? দেশে কোন্ কোন্ পণ্যের উৎপাদনে ঘাটতি বা উদ্বৃত্ত আছে তা তো আগেই জানা থাকে। সে অনুযায়ী আগেই নেয়া যায় পরিকল্পনা। এবার দেশে আলুর ফলন অধিক হওয়ায় প্রচুর আলু মৌসুম শেষে উদ্বৃত্ত রয়ে গেছে। আলুর ঘাটতির দেশগুলোয় এসব আলু রফতানি করা মোটেই কঠিন নয়। কিন্তু মন্ত্রণালয়ের নির্লিপ্ততার কারণে তা সম্ভব হল না। বহু আলু ব্যবসায়ী, হিমাগার মালিক এবং কিছু চাষীর অপরিসীম অর্থনৈতিক ক্ষতি হয়ে গেল। দেশে আলুর মোট ফলন ও চাহিদার খতিয়ান তো নীতিনির্ধারকদের হাতে থাকে। কিন্তু সম্ভবত এসব নিয়ে তারা কোনো পরিকল্পনার ছক করেন না। সব ক্ষেত্রেই এ চিত্র পরিলক্ষিত হয়।
চালের বাজারদর এখনও নিয়ন্ত্রণের বাইরে। আমন ফসলের ভরা মৌসুমেও দর বেশ চড়া। এগুলো ব্যবস্থাপনার দুর্বলতা ছাড়া আর কিছুই নয়। এসব ক্ষেত্রে সুষম ও পরিকল্পিত ব্যবস্থাপনা একান্ত জরুরি। শুধু বক্তৃতা-বিবৃতি আর আদেশ-নির্দেশ দিয়ে হবে না। ঊর্ধ্বতন মহলের সশরীরে উপস্থিত থেকে কড়া মনিটরিং ছাড়া কোনো সমস্যারই সমাধান সম্ভব নয়। আমাদের সমাজে জবাবদিহিতার অভাব সব সর্বনাশের মূল। দায়িত্ববোধ আর মূল্যবোধের সমন্বয় ঘটাতে না পারলে যে তিমিরে ছিলাম সে তিমিরেই থাকব আমরা।
আমাদের বৈদেশিক মিশনগুলোকে যথাযথ ব্যবহার করার দায়িত্ব সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলোর। স্ব স্ব অবস্থান থেকে সঠিকভাবে কাজ করতে পারলে সফলতা অনিবার্য। আবার মিশনগুলো স্বউদ্যোগেও এগিয়ে আসতে পারে। তবে পরিতাপের বিষয়, আমাদের মন্ত্রণালয় বা মিশনের মানুষজন ‘রুটিন’ কাজ ছাড়া বাড়তি কাজে এগিয়ে আসতে চায় না। দেশকে এগিয়ে নিতে হলে সবারই নিজ নিজ মেধার সর্বোচ্চ ব্যবহার নিশ্চিত করা জরুরি।
নজরুল খান : প্রাবন্ধিক, ঢাকা




আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত