সাইফুল আলম    |    
প্রকাশ : ০১ ফেব্রুয়ারি, ২০১৬ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
উজ্জ্বল ভবিষ্যতের দিকে এগিয়ে চলার ১৬ বছর
ভাষা শহীদদের রক্তে রঞ্জিত একুশের মাস শুরু হল। আমরাও পেরিয়ে এলাম জাতীয় জীবনে নানা অর্জন-বর্জন, সংঘাত-সংশয় আর ঘটনা-দুর্ঘটনার ঘনঘটাপূর্ণ একটি বছর। পেছনপানে যখন তাকিয়ে দেখি মনে হয়, এই যে এগিয়ে চলা, এই যে আমাদের গতিশীলতা- লক্ষ্য কি নির্ভুল? জীবনের চরম বাস্তবতা যখন স্পষ্ট হয়ে ওঠে, যাপিত জীবনের নানা সংকটে জীবন যখন হয়ে পড়ে ক্লান্ত, অবসন্ন- বিভ্রান্তির দোলাচলে দুলতে দুলতে মানুষের সরল মনে সহজ এ প্রশ্নটি অবশ্যম্ভাবী হয়ে ওঠাই স্বাভাবিক। তারপরও আমাদের পথ চলতে হয়। গতিশীল থাকতে হয়। কারণ জীবনের অন্য মানেই হচ্ছে গতিশীলতা। বিশ্বনন্দিত এক কবির কবিতায় সে দর্শনেরই আভাস পাই, যখন তিনি বলেন, গতিশীলতাই হচ্ছে জীবনের মর্মকথা। যে কিনা মুহূর্তের জন্য থেমে গেছে, সে ধ্বংস হয়ে গেছে। যে অব্যাহতভাবে চলতে পেরেছে সে জয়ী হয়েছে। তাই আমাদের সুস্থির লক্ষ্য জয়, বিজয় ছিনিয়ে নেয়ার লক্ষ্যেই আমাদের এ এগিয়ে চলা।
আমাদের প্রিয় পত্রিকা যুগান্তরের এগিয়ে চলার পথে সংযোজিত হল আরও একটি ঘটনাবহুল বছরের মূল্যবান অভিজ্ঞতা। ষষ্ঠদশ বছর পথচলার অভিজ্ঞতাকে পুঁজি করে সপ্তদশ বছরের হালখাতার সূচনা করছি আজ। ভাষার মাসে যুগান্তরের যাত্রা শুরু হলেও ইংরেজি বছরের পরিক্রমার সঙ্গে এর সম্পর্ক খুবই নিবিড়। ইংরেজি নববর্ষের দ্বিতীয় মাস ফেব্র“য়ারি। তাই পুরনো ইংরেজি বছরের দায়ভার, সাফল্য এবং ব্যর্থতা নিয়েই যুগান্তরের এগিয়ে চলা। দীর্ঘ এক বছর ধরে বিশ্বময় নানা ঘটনা এবং জাতীয়ভাবে সামাজিক ও রাজনৈতিক অঙ্গনে নানা ঘাত-প্রতিঘাত, সবকিছুকেই ধারণ করে চলেছি আমরা। আমরা মুক্তিযুদ্ধের আদর্শে আমাদের ভিত্তিকে করেছি সুদৃঢ় আর বাঙালি জাতীয়তাবাদের চেতনায় আমাদের আদর্শকে করেছি সমুন্নত। আমরা ভালোকে ভালো বলেছি। কালোকে বলেছি কালো। এ কথা লিখতে গিয়ে গত বছর প্রতিষ্ঠাবার্ষিকীর সময় বিভিন্ন স্থানে টানানো আমাদের একটি ফেস্টুনের ভাষা আমার মনে পড়ে গেল। সেখানে আমাদের পরিচিতিটা এভাবে বিধৃত হয়েছিল :
আসুক যত ঝড়
আসুক যত ঝড়,
সাদাকে সাদা
কালোকে কালো
বলবে যুগান্তর।
সত্যজিৎ রায়ের সৃষ্টি একটি বিখ্যাত চলচ্চিত্রের নাম হীরক রাজার দেশে। সে ছবিতে একটি সংলাপে নিজেদের পরিচয় দিতে গিয়ে গোপী ও বাঘা দুই ভায়রাভাই বলেছিলেন, আমরা ভালোর দলে। যুগান্তরও এর দীর্ঘ ষোলো বছরের চলার পথে ভালোর সঙ্গে থাকা ছাড়া অন্য কোনো পক্ষ অবলম্বন করার কথা ভুলেও ভাবেনি। আর সে কারণেই কিন্তু অনেকের জন্য অস্বস্তির কারণও হয়েছে কখনও-সখনও। এতকিছুর পরও যুগান্তর তার সম্পাদকীয় নীতি এবং আদর্শ থেকে কখনও বিচ্যুত হয়নি। আমাদের মূল স্লোগান যেহেতু ‘সত্যের সন্ধানে নির্ভীক’, সে কারণে সত্য সন্ধান করতে গিয়ে আমরা অনেক সময়ই প্রতিকূলতার মুখোমুখি হয়েছি। কিন্তু আমাদের নির্ভীক মুখাবয়বে কুণ্ঠা অথবা দ্বিধার ছায়া কখনও পরিলক্ষিত হয়নি।
মানুষ মানুষের জন্য। যুগান্তরও মানুষের জন্য। যুগান্তরকে আমরা সাধারণ মানুষের দৈনন্দিন জীবনের দর্পণ হিসেবে দাঁড় করিয়ে রাখতে সর্বদাই সচেষ্ট রয়েছি। আর এ ব্যাপারে শক্তি ও সাহস জুগিয়েছেন কর্তৃপক্ষ। যে কারণে অসংখ্য সংবাদপত্রের ভিড়ে দৈনিক যুগান্তর তার স্বাতন্ত্র্য ও বৈশিষ্ট্য নিয়ে গণমানুষের আশা-আকাক্সক্ষার সঙ্গে একীভূত হয়ে আছে।
যত দিন যাচ্ছে- কঠিন হয়ে পড়ছে মানুষের জীবনযাত্রার ধরন। সেই সঙ্গে জাতীয় জীবনের সব পর্যায়ে পড়ছে তার প্রভাব। সংবাদপত্র জগৎও এর বাইরে নয়। ইলেক্ট্রনিক মিডিয়ার অগ্রগতি ও অনলাইনের আগ্রাসনে মুদ্রিত মাধ্যম সংবাদপত্রের চলার পথ ক্রমেই সঙ্কুচিত হয়ে পড়ছে। তারপরও আমরা বিশ্বাস করি, এ দেশে আগামী এক শতাব্দীকাল পর্যন্ত মুদ্রিত সংবাদমাধ্যম খবরের কাগজের গুরুত্ব এতটুকু খর্ব হবে না। আর সে বিশ্বাস নিয়েই প্রতিদিনই নতুন চেহারায়, নতুন আঙ্গিকে, নতুন নতুন বিষয়বস্তু নিয়ে পাঠকের সামনে যুগান্তরকে উপস্থাপন করতে আমাদের আন্তরিকতা এবং তৎপরতার কোনো কমতি নেই।
যুগান্তরের ষষ্ঠদশ বছরপূর্তি এবং সপ্তদশ বর্ষে পদার্পণ উপলক্ষে আজ অগণিত পাঠক, পৃষ্ঠপোষক ও শুভার্থীর কাছে আমাদের নিবেদন, আপনারা বরাবর আমাদের সঙ্গে ছিলেন, আছেন, তাই আশা করি আগামীতেও আপনারা থাকবেন আমাদের সঙ্গে। আপনাদের নিয়েই আমরা এগিয়ে যেতে চাই উজ্জ্বল ভবিষ্যতের দিকে। এ ভবিষ্যৎ শুধু যুগান্তরের জন্য নয়, এ ভবিষ্যৎ আমাদের সমাজের, আমাদের জাতির, আমাদের রাষ্ট্রের জন্যও।
সমৃদ্ধ সোনার বাংলাই আমাদের আজন্ম স্বপ্ন। তাই আমাদের কণ্ঠেও বারবার ধ্বনিত হতেই থাকবে, আমার সোনার বাংলা আমি তোমায় ভালোবাসি...



আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত