বিশ্ববিদ্যালয় রিপোর্টার    |    
প্রকাশ : ২৩ জুলাই, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশি হামলা
রাজধানীতে বিক্ষোভ প্রতিবাদ
সিদ্দিকের চোখে আলো ফেরার সম্ভাবনা ক্ষীণ : মায়ের আহাজারি
মামলা প্রত্যাহার ও সিদ্দিকের চিকিৎসা ব্যয় বহনের দাবিতে শনিবার জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে সাত সরকারি কলেজ শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন। এ সময় তারা চোখে কালো কাপড় বেঁধে প্রতিবাদ জানায় -যুগান্তর

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত সাত সরকারি কলেজের শিক্ষার্থীদের আন্দোলনে পুলিশি হামলার প্রতিবাদসহ সাত দফা দাবিতে রাজধানীজুড়ে তীব্র প্রতিবাদ ও বিক্ষোভ হয়েছে। আন্দোলনকারী শিক্ষার্থীদের ওপর হামলায় জড়িত অতি উৎসাহী পুলিশ সদস্যদের বিচারেরও দাবি উঠেছে। পুলিশের পক্ষ থেকে ১২০০ শিক্ষার্থীর বিরুদ্ধে করা মামলা প্রত্যাহারেরও দাবি জানান বিক্ষোভকারীরা। পাশাপাশি বিভিন্ন স্থানে অনুষ্ঠিত সমাবেশ থেকে পুলিশের ‘কাঁদানে গ্যাস শেলের’ আঘাতে আহত সরকারি তিতুমীর কলেজের ছাত্র মো. সিদ্দিকুর রহমানের চিকিৎসায় সরকারকে যাবতীয় ব্যয় বহনের দাবি জানানো হয়।
জাতীয় চক্ষুবিজ্ঞান ইন্সটিটিউট ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন সিদ্দিকুরের চোখে আলো ফেরার সম্ভাবনা ক্ষীণ বলে জানিয়েছেন চিকিৎসকরা। সিদ্দিকুরের মা ছুলেমা বেগম ছেলের অনিশ্চিত ভবিষ্যৎ নিয়ে শঙ্কিত। বাবাহারা ছেলের কথা ভাবতে ভাবতে তার চোখ যন ঝাপসা হয়ে আসে।  তিনি সাংবাদিকদের কাছে আহাজারি করে বলেছেন, আমার ছেলের নয়ন নেই। কিভাবে সে সারা জীবন পার করবে জানি না। আমি সরকারের কাছে আবেদন করব ছেলের ভবিষ্যৎ যেন দেখে। মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর কাছে আবেদন তিনি যেন আমার ছেলেটারে দেখেন।

এদিকে সংঘর্ষের ঘটনায় তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়ার কথা বলেছেন ঢাকা মহানগর পুলিশ কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া। তিনি বলেছেন, পুলিশের দিকে ফুলের টব ছুড়ে মেরেছিল শিক্ষার্থীরা। সেই টবের আঘাতে সিদ্দিকুর আহত হয়েছেন। তবে শিক্ষার্থীরা বলেছে, টিয়ার শেল সিদ্দিকুরের কপালে লেগেছে। কোনটি সত্য আমরা অনুসন্ধান করে দেখছি। তিনি এখন চিকিৎসাধীন আছেন। চিকিৎসার খোঁজখবর নিচ্ছি। বিএনপির পক্ষ থেকে শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে করা মামলা তুলে নেয়ার দাবি জানানো হয়েছে। পূর্ব ঘোষিত কর্মসূচি অনুযায়ী শনিবার সকালে অধিভুক্ত কলেজগুলোয় বিক্ষোভ কর্মসূচি ও বিকাল ৪টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবে প্রতিবাদ সমাবেশ করেন আন্দোলনরত সাত কলেজের শিক্ষার্থীরা। এর আগে বেলা ১১টা থেকে তারা নিউমার্কেট ক্রসিং ও নীলক্ষেতে সড়ক অবরোধ করে স্লোগান দেন। দুপুর ১টার পর শিক্ষার্থীরা অবরোধ প্রত্যাহার করে নেন। অবরোধকালে বিক্ষুব্ধ শিক্ষার্থীরা নীলক্ষেত মোড়ে একটি মিনিবাস ভাংচুর করেছেন বলে জানা গেছে।

কলেজ ক্যাম্পাসগুলোয় আয়োজিত বিক্ষোভ কর্মসূচিতে শিক্ষার্থীরা এ হামলাকে অত্যন্ত ন্যক্কারজনক বলে উল্লেখ করেন। পুলিশ হামলা করেছে, আবার পুলিশই মামলা করেছে- উল্লেখ করে প্রতিবাদ সমাবেশগুলো থেকে বলা হয়, কর্মসূচিটি ছিল শান্তিপূর্ণ। এ ধরনের হামলাকে তারা নিরাপত্তা রক্ষার দায়িত্বে থাকা বাহিনীর ‘ভক্ষক’ হয়ে ওঠার মতো বলে মন্তব্য করেন। এ সময় তারা ৭ দফা দাবি মেনে নেয়ারও আহ্বান জানান। ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধিভুক্ত হওয়া রাজধানীর সাত সরকারি কলেজের শিক্ষার্থীরা রুটিনসহ পরীক্ষার তারিখ ঘোষণার দাবিতে বৃহস্পতিবার শাহবাগে জাতীয় জাদুঘরের সামনের রাস্তায় অবস্থান নেন। একপর্যায়ে শিক্ষার্থীদের ছত্রভঙ্গ করতে কাঁদানে গ্যাস ছোড়ে পুলিশ। তাদের লাঠিপেটাও করা হয়। ওই দিন পুলিশের ‘কাঁদানে গ্যাসের শেলের’ আঘাতে আহত সরকারি তিতুমীর কলেজের ছাত্র মো. সিদ্দিকুর রহমান জাতীয় চক্ষুবিজ্ঞান ইন্সটিটিউট ও হাসপাতালে চিকিৎসাধীন আছেন। এ ঘটনায় বৃহস্পতিবার রাতে শাহবাগ থানায় মামলা করেছে পুলিশ। মামলায় আসামি করা হয়েছে অজ্ঞাতনামা ১২০০ শিক্ষার্থীকে।
সিদ্দিকুরের চোখে আলো ফেরার সম্ভাবনা ক্ষীণ : শনিবার সকালে জাতীয় চক্ষুবিজ্ঞান ইন্সটিটিউট ও হাসপাতালে আহত সরকারি তিতুমীর কলেজের ছাত্র মো. সিদ্দিকুর রহমানের দুই চোখে অস্ত্রোপচার করা হয়েছে। সকাল সাড়ে ৯টা থেকে ১১টা পর্যন্ত দেড় ঘণ্টা এ অস্ত্রোপচার হয়।
জাতীয় চক্ষুবিজ্ঞান ইন্সটিটিউট ও হাসপাতালের সহযোগী অধ্যাপক ইফতেখার মনির সাংবাদিকদের বলেন, সিদ্দিকুর রহমানের ডান চোখের ভেতরের অংশ বের হয়ে আসছিল। এটি যথাস্থানে বসানো হয়েছে। বাঁ চোখে রক্ত ছিল। রক্ত পরিষ্কার করা হয়েছে। তার চোখের আলো ফিরে আসার সম্ভাবনা ক্ষীণ। এ বিষয়ে পরে বিস্তারিত বলা যাবে।
আহত সিদ্দিকুর রহমানের বাড়ি ময়মনসিংহের তারাকান্দার ঢাকেরকান্দা গ্রামে। তার চিকিৎসার জন্য পাঁচ সদস্যের একটি মেডিকেল বোর্ড গঠন করেছে জাতীয় চক্ষুবিজ্ঞান ইন্সটিটিউট ও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষ।
সংঘর্ষের ঘটনায় তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে : শাহবাগে পুলিশ-শিক্ষার্থী সংঘর্ষের ঘটনায় তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে বলে জানিয়েছেন ঢাকা মহানগর (ডিএমপি) কমিশনার আছাদুজ্জামান মিয়া। শনিবার ডিএমপি কমিশনারের কার্যালয়ে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা জানান।
তিনি বলেন, শাহবাগে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের হাতজোড় করে সড়ক অবরোধ না করতে বলা হয়। তারপরও তারা সেখানে অবরোধ করে, পুলিশের ওপর হামলা চালায়। এতে এক শিক্ষার্থী গুরুতর আহত হয়েছে। এ ঘটনায় তদন্ত করে সঠিক ব্যবস্থা নেয়া হবে। ডিএমপি কমিশনার বলেন, আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের প্রথম থেকেই অনেক বোঝানো হয়েছিল। তাদের রাস্তা (শাহবাগ) ছেড়ে দেয়ার জন্য অনুরোধ করা হয়েছিল। কিন্তু তারা পুলিশের কথা শোনেনি। শিক্ষার্থীরা তারপরও রাস্তা বন্ধ করে যান চলাচলে বাধা সৃষ্টি করে। জনগণের দুর্ভোগ সৃষ্টি করে। তখন পুলিশ টিয়ারশেল নিক্ষেপ করে তাদের নিবৃত করে।
মামলা তুলে নেয়ার দাবি বিএনপির : শিক্ষার্থীদের বিরুদ্ধে দায়ের করা মামলা তুলে নেয়ার দাবি জানিয়েছেন বিএনপির জ্যেষ্ঠ যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী। শনিবার এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এ দাবি জানান। তিনি বলেন, শিক্ষার্থীদের সমাবেশে পুলিশ গুলি, লাঠিচার্জ ও রাবার বুলেট নিক্ষেপ করে উল্টো ১২০০ শিক্ষার্থীকে আসামি করে মামলা করেছে। যারা হামলার শিকার হল, আক্রান্ত হল, রক্তাক্ত হল- পুলিশ তাদের বিরুদ্ধে মামলা করেছে।
ছাত্র ফেডারেশনের বিক্ষোভ : তিতুমীর কলেজের ছাত্র সিদ্দিকুরের ওপর পুলিশের নৃশংস হামলার প্রতিবাদে শনিবার বিকাল সাড়ে ৩টায় ছাত্র-জনতার বিক্ষোভ ও সংহতি সমাবেশ করেছে বাংলাদেশ ছাত্র ফেডারেশন। শাহবাগের জাতীয় জাদুঘরের সামনে এ বিক্ষোভ ও সংহতি সমাবেশ অনুষ্ঠিত হয়। ছাত্র ফেডারেশনের সভাপতি গোলাম মোস্তফার সভাপতিত্বে এবং সাধারণ সম্পাদক জাহিদ সুজনের পরিচালনায় এতে বক্তব্য রাখেন গণসংহতি আন্দোলনের সমন্বয়ক জোনায়েদ সাকিসহ বিশিষ্টজনরা। সমাবেশে বক্তারা বলেন, সিদ্দিকের ঘটনার পুরো দায় সরকারকে নিতে হবে। মেধাবী এ শিক্ষার্থীর আজীবন শিক্ষা ও চিকিৎসা ব্যয় এবং কর্মের ব্যবস্থা করতে হবে। পাশাপাশি দায়ী পুলিশ সদস্যদের বিরুদ্ধে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তির ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।
ছাত্র ইউনিয়নের বিক্ষোভ আজ : শাহবাগে আন্দোলনরত শিক্ষার্থীদের ওপর পুলিশের বর্বরোচিত হামলার প্রতিবাদে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করবে বাংলাদেশ ছাত্র ইউনিয়ন। আজ বেলা সাড়ে ১১টায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের মধুর ক্যান্টিন থেকে মিছিলটি শুরু হয়ে বিশ্ববিদ্যালয়ের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করবে। এদিকে শিক্ষর্থীদের ওপর পুলিশের হামলার প্রতিবাদ এবং মিথ্যা মামলা প্রত্যাহারের দাবিতে আজ বিকাল ৪টায় জাতীয় প্রেস ক্লাবের সামনে সমাবেশের আয়োজন করেছে ঐক্যবদ্ধ ছাত্রসমাজ। শনিবার এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তির মাধ্যমে এ তথ্য জানানো হয়।
সাত দফা দাবিতে ২৫ জুলাই আলটিমেটাম : সিদ্দিকুরের চিকিৎসা, মামলা প্রত্যাহারসহ সাত দফা দাবি মেনে নিতে ২৫ জুলাই পর্যন্ত আলটিমেটাম দিয়েছেন শিক্ষার্থীরা। এই সময়ের মধ্যে দাবি মানা না হলে কঠোর আন্দোলনের হুশিয়ারি দেন তারা।
 


আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত