রাসয়াত রহমান জিকো    |    
প্রকাশ : ১২ নভেম্বর, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
মোতালেব সাহেবের বিপিএল

মোতালেব সাহেবের সমস্যা তিনি ক্রিকেট বুঝেন না। তিনি যখন ছোট ছিলেন তখন এই খেলার এত প্রেসার ছিল না। তিনি তেমন একটা খেলেনও নাই। কিন্তু বর্তমান সমাজে এই খেলা না বুঝে চলা কঠিন এটা তিনি অনুধাবন করতে পারছেন। তার আশপাশে সবাই বিপিএল নিয়ে কথা বলে তিনি চুপটি করে শুনেন। এখন কাহাতক আর অন্যের গল্প শুনে যেতে ভালো লাগে, নিজেরও তো কথাবার্তা বলতে ইচ্ছা করে। কিন্তু সেটা করার জন্য খেলা তো বুঝতে হবে।

তিনি খেলা বোঝার যে চেষ্টা করেন নাই তা না। অনেক আগে একবার রেডিওতে কমেন্ট্রি শুনেছিলেন, রেডিওতে ধারাভাষ্য আসছিল, বোলিং করতে আসলেন সুজি, এ কিন্তু সেই খাওয়ার সুজি নয়, এ হচ্ছে কেনিয়ান বোলার মার্টিন সুজি।

একবার এক রেডিওর কমেন্ট্রিতে তিনি শুনতে পেলেন, বোলার তার ট্রাউজারটি খুলে আম্পায়ারের হাতে দিলেন। তিনি গভীর দুশ্চিন্তায় পড়ে গেলেন। এ আবার কেমন খেলা যেখানে ট্রাউজার খুলে ফেলতে হয়? কিছুক্ষণ পরেই রেডিও কমেন্ট্রিতে শোনা গেল- দুঃখিত, বোলার ট্রাউজার না, সোয়েটার খুলে আম্পায়ারের হাতে দিলেন। মোতালেব সাহেব হাঁপ ছেড়ে বাঁচলেন।

মোতালেব সাহেব হালের বিপিএল দেখার চেষ্টা করেন। তিনি কোন দল সাপোর্ট করবেন বুঝতে পারেন না। তার নিজের বাড়ি রাজশাহী, কিন্তু তারা নাকি জিততে পারছে না, বউয়ের বাড়ি কুমিল্লা তা বউয়ের সঙ্গে ঝগড়া ঝাঁটি হওয়ায় কুমিল্লাকে সমর্থন দিতে পারছেন না। মেয়ে বিয়ে দিয়েছেন বরিশালে, তাই তিনি ভাবলেন বিভিন্ন জায়গায় মেয়ের পজিশন রাখার জন্য বরিশাল সাপোর্ট করবেন। তা সেটা করতে গিয়ে জানলেন বরিশাল নাকি এবার খেলছেই না। মোতালেব সাহেব এটা শুনে মন খারাপও করেছেন?

আহা কত লঞ্চে করে বরিশাল গেলাম আর সেই বরিশাল এবার বিপিএল এ নাই!

মোতালেব সাহেব তারপরেও প্রতিদিন সময় করে বিপিএল দেখেন। তার সব থেকে আনন্দ হয় এখানে যেই জিতুক সেটা অন্তত বাংলাদেশের কোনো জেলা জিতেছে। এমনিতে বাংলাদেশের খেলা দেখলে সমস্যা হয় যখন বাংলাদেশ হেরে যায়। তিনি হৃদয়ে বিশাল বেদনা অনুভব করেন। বিপিএল এ অন্তত যেই জিতুক বাংলাদেশের কেউ জিতেছে সেই আশা নিয়ে তিনি ঘুমান। (চলবে)


 


আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত