যুগান্তর রিপোর্ট    |    
প্রকাশ : ২১ আগস্ট, ২০১৬ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় শিগগিরই
আইনমন্ত্রী
শিগগিরই ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার রায় দেয়া হবে বলে জানিয়েছেন আইনমন্ত্রী আনিসুল হক। শনিবার জাতীয় শোক দিবস উপলক্ষে অ্যাটর্নি জেনারেলের কার্যালয় আয়োজিত স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচির উদ্বোধন শেষে আইনমন্ত্রী এ কথা বলেন। তিনি বলেন, ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলা মামলার বিচার শেষ পর্যায়ে রয়েছে। যে কোনো দিন রায় ঘোষণা করা হবে। এ মামলায় পলাতক আসামিদের ফিরিয়ে আনার চেষ্টা অব্যাহত রয়েছে বলেও জানান তিনি। অ্যাটর্নি জেনারেল মাহবুবে আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে অন্যদের মধ্যে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ডা. কামরুল হাসান খান বক্তব্য রাখেন।
আইনমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান হত্যাকাণ্ডের নেপথ্য ষড়যন্ত্রকারীদের অন্ততপক্ষে ইতিহাসের কারণে খুঁজে বের করা উচিত। তিনি বলেন, তাদের খুঁজে বের করতে কমিশন গঠনের চিন্তাভাবনা চলছে।
বঙ্গবন্ধু হত্যাকাণ্ড ও ষড়যন্ত্রের সঙ্গে সরাসরি জড়িতদের বিচারের কাঠগড়ায় এসে সাজা দেয়া সম্ভব হয়েছে জানিয়ে তিনি বলেন, যারা এ হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে সরাসরি জড়িত নয়, কিন্তু বাইরের ষড়যন্ত্রের সঙ্গে জড়িত তাদের জিজ্ঞাসাবাদ করা গেলে অনেক তথ্য পাওয়া যেত। তিনি মনে করেন, খুনি মোশতাক আজ বেঁচে থাকলে, তার বিচার করা গেলে, তাকে জিজ্ঞাসাবাদ করা গেলে, খুনি মাহবুবুল আলম চাষী ও রশিদকে জিজ্ঞাসাবাদ করা গেলে এ হত্যাকাণ্ডের নেপথ্যকারীদের নাম আরও পরিষ্কারভাবে বের হতো। বঙ্গবন্ধু হত্যায় প্রয়াত রাষ্ট্রপতি জিয়াউর রহমানের মরণোত্তর বিচার করা হবে কিনা- তা আইনমন্ত্রীর কাছে জানতে চান এক সাংবাদিক। জবাবে মন্ত্রী বলেন, আইনে সেই সুযোগ নেই। কেননা ফৌজদারি আইনের মামলায় অভিযুক্ত কোনো আসামি মারা গেলে তার বিচারের কোনো বিধান নেই। যদি তিনি (জিয়াউর রহমান) দোষী হন, তা ইতিহাসের পাতায় লেখা থাকবে। বিএনপি-জামায়াতের জোট সরকারের আমলে ২০০৪ সালের ২১ আগস্ট আওয়ামী লীগের এক সন্ত্রাসবিরোধী সমাবেশে ভয়াবহ গ্রেনেড হামলায় ২৪ জন নিহত এবং পাঁচ শতাধিক আহত হয়। নিহতদের মধ্যে ছিলেন তৎকালীন মহিলা আওয়ামী লীগের সভানেত্রী মরহুম রাষ্ট্রপতি জিল্লুর রহমানের স্ত্রী আইভি রহমান। তবে তৎকালীন বিরোধীদলীয় নেতা ও বর্তমান প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এবং আওয়ামী লীগের প্রথম সারির অন্যান্য নেতা এই হত্যাকাণ্ড থেকে বেঁচে যান। আইনমন্ত্রী বলেন, বঙ্গবন্ধু ত্যাগ, ভালোবাসা, দেশপ্রেম ও জীবনকে উৎসর্গ করার যে দৃষ্টান্ত রেখে গেছেন সেটাই তার আদর্শ। তিনি বলেন, অসুস্থ মানুষকে সুস্থ করে তোলার লক্ষ্যে রক্তদানও একটি ত্যাগ।



আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত