মঠবাড়িয়া (পিরোজপুর) প্রতিনিধি    |    
প্রকাশ : ২৪ জুলাই, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
সাংবাদিকের মেয়েকে ধর্ষণ শেষে হত্যার অভিযোগ
দু’দিন পর লাশ উদ্ধার

মঠবাড়িয়ায় এক সাংবাদিকের মেয়েকে (১০) ধর্ষণের পর হত্যার অভিযোগ উঠেছে। নিখোঁজ থাকার দু’দিন পর রোববার সকালে বাড়ির পাশের ডোবা থেকে তার লাশ উদ্ধার করেছে পুলিশ।

নিহতের নাম ঊর্মি আক্তার (১০)। সে উত্তর বড়মাছুয়া গ্রামের সোহেল আমিনের মেয়ে এবং মধ্য বড়মাছুয়া (জামতলা) সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের চতুর্থ শ্রেণীর ছাত্রী। সোহেল আমিন স্থানীয় ‘মঠবাড়িয়া কণ্ঠের’ নির্বাহী সম্পাদক। ঊর্মির পরিবার সূত্রে জানা গেছে, সে শুক্রবার বিকালে একই গ্রামের এক বন্ধবীর বাড়িতে যাওয়ার কথা বলে বাড়ি থেকে বের হয়ে আর ফিরে আসেনি। রোববার তার লাশ উদ্ধার করা হয়। প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে নিখোঁজের দিনই সন্ধ্যায় ঊর্মিকে ধর্ষণের পর শ্বাসরোধে হত্যা করে বাগানের ডোবায় লাশ ফেলে রাখে দুর্বৃত্তরা। জানা গেছে, ৯ বছর আগে সোহেল আমিনের প্রথম স্ত্রী সেলিনার সঙ্গে তার ছাড়াছাড়ি হয়ে যায়। বিচ্ছেদের পর দুই মেয়ে শর্মি (১৩) ও ঊর্মি (১০) দাদির মেহেরুন আমিনের সঙ্গে উত্তর বড়মাছুয়া গ্রামের বাড়িতে থাকত। তাদের বাবা সোহেল আমিন দ্বিতীয় স্ত্রী নিয়ে মঠবাড়িয়া পৌর শহরে ভাড়া বাসায় থাকেন। শুক্রবার বিকালে ঊর্মি দাদির কাছে বলে প্রতিবেশী এক বান্ধবীর বাড়িতে বেড়াতে গিয়ে নিখোঁজ হয়। এ ঘটনায় সোহেল রোববার সকালে মঠবাড়িয়া থানায় একটি জিডি করেন। এর কিছুক্ষণ পর স্থানীয়রা ঊর্মির গলায় ফাঁস লাগানো লাশ ডোবায় ভাসতে দেখেন। খবর পেয়ে পুলিশ লাশ উদ্ধার করে। সোহেল আমিনের অভিযোগ, দুর্বৃত্তরা ধর্ষণ শেষে তার মেয়েকে শ্বাসরোধ করে হত্যা করেছে। মঠবাড়িয়া সার্কেলের সহকারী পুলিশ সুপার কাজী শাহ্ নেওয়াজ জানান, নিহতের পরনের কাপড় দেখে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে হত্যার আগে তাকে ধর্ষণ করা হয়েছে। তার পরনে সালোয়ার ছিল না। তিনি আরও জানান, এ ব্যাপারে মঠবাড়িয়া থানায় মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে। পিরোজপুরের পুলিশ সুপার ওয়ালিদ হোসেন ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে সাংবাদিকদের জানান, লাশের ময়নাতদন্তের পর জানা যাবে ধর্ষিত হয়েছে কিনা।


 


আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত