যুগান্তর রিপোর্ট    |    
প্রকাশ : ২৬ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
শিক্ষামন্ত্রীর বক্তব্যে প্রমাণ হল সরকার আত্মস্বীকৃত দুর্নীতিবাজ : বিএনপি
ভয়ঙ্কর বার্তা দিলেন শিক্ষামন্ত্রী : রিজভী
শিক্ষামন্ত্রী নুরুল ইসলাম নাহিদের ‘সহনীয় মাত্রায় ঘুষ খান’ বক্তব্যে সরকার আত্মস্বীকৃত চোর ও দুর্নীতিবাজ প্রমাণিত হয়েছে বলে মন্তব্য করেছে বিএনপি। সোমবার নয়াপল্টনে কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে এক সংবাদ সম্মেলনে দলটির সিনিয়র যুগ্ম-মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী আহমেদ বলেন, শিক্ষামন্ত্রীর বক্তব্যে প্রমাণিত হল, বর্তমান সরকার আত্মস্বীকৃত চোর ও দুর্নীতিবাজ। শিক্ষামন্ত্রী তার বক্তব্যের মাধ্যমে শিক্ষাঙ্গনে এক ভয়ঙ্কর বার্তা দিয়েছেন বলেও মন্তব্য করেন রিজভী।
শিক্ষামন্ত্রী রোববার পরিদর্শন ও নিরীক্ষা অধিদফতরের (ডিআইএ) কর্মকর্তাদের ল্যাপটপ বিতরণ অনুষ্ঠানে দুর্নীতির প্রসঙ্গে বলতে গিয়ে বলেন, ‘সব জায়গায় যে বলছি, অপচয়-দুর্নীতিতে আমরা কঠোর অবস্থান নেব এবং দুর্নীতির ক্ষেত্রে আমাদের জিরো টলারেন্স- এটা আমাদের বলতে হবে। কিন্তু আমি ইডির (ইঞ্জিনিয়ারিং ডিপার্টমেন্ট) সভায় বলেছি, আপনারা দয়া করে ভালো কাজ করবেন। আপনাদের প্রতি আমার অনুরোধ, আপনার ঘুষ খাবেন, তবে সহনশীল হইয়্যা খাবেন। অসহনীয় হয়ে বলা যায়, আপনারা ঘুষ খাইয়েন না, এটা অবাস্তবিক কথা হবে।’
সংবাদ সম্মেলনে রিজভী বলেন, শিক্ষামন্ত্রীর বক্তব্য জাতির হৃদয়স্পন্দন থামিয়ে দেয়ার শামিল। একজন মন্ত্রী, যিনি জাতির মেরুদণ্ড নির্মাণের দায়িত্ব নিয়েছেন, তিনিই যখন অনৈতিক কথা বলেন, তখন রাষ্ট্র ও রাষ্ট্র কাঠামো আছে বলে আর মনে হয় না। এ বক্তব্যে জাতির বিষণœ ভবিষ্যৎ দেখতে পাচ্ছি। তিনি বলেন, দেশে যে জঙ্গলের শাসন চলছে- শিক্ষামন্ত্রীর বক্তব্যে সেটিরই বহিঃপ্রকাশ ঘটেছে। দেশে বিদ্যমান নৈরাজ্যকর অমানিশার মধ্যে তার এহেন বক্তব্য দেশের জন্য আরও ভয়াবহ উদ্বেগ, ভয়, বিপদের কারণ হতে পারে।
রিজভী বলেন, দেশের শিক্ষামন্ত্রীর বক্তব্য যদি এটাই হয়, তাহলে কোমলমতি শিক্ষার্থীরা সততা-নৈতিকতার পাঠ কোথা থেকে নেবে? এরকম বক্তব্য দিয়ে তিনি এক ভয়ঙ্কর বার্তা পাঠালেন শিক্ষাঙ্গনে। তার বক্তব্যে ফুটে উঠছে- কোমলমতি ছাত্রছাত্রীরা তোমরা নীতি-নৈতিকতা, আদর্শ এবং ন্যায়বোধের বিবেকশাসিত উন্নত মানুষ হওয়ার বদলে সহনীয়মাত্রায় দুর্নীতি পাঠ নিতে শেখো; তাহলেই তোমাদের সাফল্য আসবে।
প্রশ্নপত্র ফাঁসের প্রসঙ্গ টেনে তিনি বলেন, শিক্ষামন্ত্রী নিজেদের লোকদের প্রশ্নপত্র বেচাকেনার সুযোগ করে দিয়েছেন সুকৌশলে। তার কথায় মনে হচ্ছে, তিনিই সব কেলেঙ্কারির উৎসাহদাতা। যে উদ্দেশ্য নিয়ে ১৪ ডিসেম্বর দেশের বরেণ্য বুদ্ধিজীবীদের হত্যা করেছিল হানাদার বাহিনী, সেই একই উদ্দেশ্য নিয়ে জাতিকে মেধাহীন করতে সরকার ও তার শিক্ষামন্ত্রী প্রশ্নপত্র ফাঁসসহ দেশের শিক্ষা ব্যবস্থাকে ধ্বংসে অবিরামগতিতে কাজ করে যাচ্ছেন। হানাদার বাহিনী যে কাজ করেছিল, দুর্নীতি করতে উৎসাহিত করা ও প্রশ্নপত্র ফাঁসের মধ্য দিয়ে আওয়ামী হানাদার বাহিনী একই কাজ করছে দেশকে মেধাহীন করে পঙ্গু রাষ্ট্রে পরিণত করার জন্য।
চালের মূল্য সরকারই চেয়েছে কিছুটা বাড়ুক- অর্থমন্ত্রী আবুল মাল আবদুল মুহিতের এ বক্তব্যে ‘সরকারের গণবিরোধী রূপ’ আবারও প্রকাশ পেয়েছে বলে মন্তব্য করেন রিজভী। তিনি বলেন, লুটপাটে উৎসাহিত হয়ে সরকার নিত্যপ্রয়োজনীয় জিনিসপত্রের দাম বৃদ্ধি করতে দ্বিধা করছে না। আমি বিএনপির পক্ষ থেকে অর্থমন্ত্রীর বক্তব্যের মধ্য দিয়ে সরকারের গণদুশমনমূলক নীতির নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি।
সংবাদ সম্মেলনে দলের চেয়ারপারসনের উপদেষ্টা আবদুস সালাম, আবুল খায়ের ভূঁইয়া, যুগ্ম-মহাসচিব খায়রুল কবির খোকন, কেন্দ্রীয় নেতা শহীদউদ্দিন চৌধুরী এ্যানী, হাবিবুল ইসলাম হাবিব, আবুল কালাম সিদ্দিকী, মীর সরফত আলী সপু, এবিএম মোশাররফ হোসেন প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।



আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত