যুগান্তর রিপোর্ট    |    
প্রকাশ : ২৬ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
এসকে সিনহার বিদায় ছিল ‘জুডিশিয়াল ক্যু’ : অ্যাডভোকেট জয়নুল
ষোড়শ সংশোধনীর পুরো রায় বাতিলের চক্রান্ত হচ্ছে
ষোড়শ সংশোধনীর রায় দেয়ার কারণেই সাবেক প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহাকে ‘জুডিশিয়াল ক্যু’ করে বিদায় করা হয়েছে বলে মন্তব্য করেছেন সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সভাপতি অ্যাডভোকেট জয়নুল আবেদীন। তিনি বলেন, সরকার এখন রিভিউ দাখিল করে পুরো রায়কে বাতিলের চক্রান্ত করছে।
সোমবার দুপুরে সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতি আয়োজিত সমিতির দক্ষিণ হলে এক সংবাদ সম্মেলনে লিখিত বক্তব্যে এ কথা বলেন তিনি।
জয়নুল আবেদীন বলেন, ষোড়শ সংশোধনীর আপিলের রায় কোনো ব্যক্তি বা গোষ্ঠীর বিরুদ্ধে নয়। কিন্তু সরকার রিভিউ পিটিশন দাখিল করে পুরো রায় বাতিলের চক্রান্ত করছে। আপিল বিভাগের রায় দেয়া সাত বিচারপতির মধ্যে পাঁচজন কর্মরত আছেন। বিচারপতিরা তাদের পূর্ববর্তী রায়ের আলোকে এ রিভিউ পিটিশনটি বাতিল করবেন বলে প্রত্যাশা করেন তিনি।
সরকারের উদ্দেশে বার সভাপতি বলেন, ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায় আপিল বিভাগের সব বিচারকের সর্বসম্মত রায়। তা সত্ত্বেও প্রধান বিচারপতি এসকে সিনহার বিরুদ্ধে একের পর এক ভিত্তিহীন অভিযোগ সৃষ্টি করেছেন এবং তাকে বিতর্কিত করার সর্বাত্মক চেষ্টা করেছেন। সর্বশেষ তাকে পদত্যাগ করিয়েছেন। তিনি বলেন, রোববার পুনর্বিবেচনার আবেদনের পর অ্যাটর্নি জেনারেলের বক্তব্যে মনে হয়েছে ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের কারণেই ‘জুডিশিয়াল ক্যু’ করে তাকে (এসকে সিনহা) বিদায় করেছেন। এখন রিভিউ আবেদন দাখিল করে পুরো রায়টি বাতিলের চক্রান্ত করছেন।
সরকার বিচার বিভাগকে পূর্ণ নিয়ন্ত্রণে নিতে চাইছে মন্তব্য করে অ্যাডভোকেট জয়নুল বলেন, সরকার নিজেদের স্বার্থে বিচার বিভাগকে পরিচালিত করতে চায়। তারা যেভাবে চায় সেভাবেই আদালতকে রায় দিতে হবে। যদি তা না করা হয়, বিচারপতি সিনহার মতো তাদেরও একই পরিণতি বরণ করতে হবে। এভাবেই তারা অন্য বিচারপতিদের ভয় দেখানোর চেষ্টা করছে।
জয়নুল আবেদীন বলেন, বিচার বিভাগ হচ্ছে সংবিধানের অভিভাবক। এটা স্বীকৃত যে, আইন বিভাগ আইন প্রণয়ন করবে। সে আইন সংবিধান মোতাবেক হয়েছে কিনা এবং সংবিধানের সঙ্গে সাংঘর্ষিক কিনা এবং কোনো দলের বা ব্যক্তির স্বার্থে কিনা, তা দেখার দায়িত্ব বিচার বিভাগের। বিচার বিভাগ ষোড়শ সংশোধনী বাতিলের রায় দিয়ে সে দায়িত্বই পালন করেছে। অথচ রায়ের পর সরকারের বিভিন্ন মহল থেকে অহেতুক, অসৌজন্যমূলক ও আদালতের প্রতি অশ্রদ্ধামূলক বক্তব্য দেয়া হয়েছে, যা অনাকাক্সিক্ষত ও অনভিপ্রেত। তিনি বলেন, অতীতে বহুবার বেআইনি সংশোধনীর বিরুদ্ধে অনেক সিদ্ধান্ত দেশের এ সর্বোচ্চ আদালত দিয়েছেন। কিন্তু সেসব সিদ্ধান্ত বা আদেশের বিরুদ্ধে সরকার এভাবে ক্ষুব্ধ হয়ে কোনো রিভিউ আবেদন করেছে বলে আমাদের জানা নেই।
বিএনপি চেয়ারপারসনের বিরুদ্ধে নিন্ম আদালতে বিচারাধীন মামলা নিয়ে জয়নুল আবেদীন বলেন, এ ধরনের কর্মকাণ্ডের মাধ্যমে সরকার খালেদা জিয়ার মামলার রায়কেও প্রভাবিত করার চেষ্টা করছে।
সংবাদ সম্মেলনে উপস্থিত ছিলেন সুপ্রিমকোর্ট আইনজীবী সমিতির সম্পাদক ব্যারিস্টার মাহবুব উদ্দিন খোকন, সহ-সম্পাদক শামীমা সুলতানা দীপ্তি, সাবেক সহ-সভাপতি এবিএম অলিউর রহমান খান, আইনজীবী রফিকুল ইসলাম মেহেদী, আবেদ রেজা, খোরশেদ আলম, সগীর হোসেন লিয়ন, একেএম এহসানুর রহমান, গাজী কামরুল ইসলাম সজল, এএইচ এম কামরুজ্জামান মামুন প্রমুখ।



আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত