মাদারীপুর প্রতিনিধি    |    
প্রকাশ : ২৬ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
পুলিশের রহস্যজনক ভূমিকা
মাদারীপুরে হাতকড়া পরা অবস্থায় চা বিক্রেতা খুন
পুলিশের হাতকড়া পরা অবস্থায় প্রতিপক্ষের হামলায় খুন হয়েছেন এক চা বিক্রেতা। মাদারীপুর সদর উপজেলার কুনিয়া ইউনিয়নের আদিত্যপুর গ্রামে রোববার রাতে এ ঘটনা ঘটে। পুলিশ ঘটনাটিকে ধামাচাপা দিতে অস্বাভাবিক মৃত্যুর মামলা সাজিয়েছে। তবে চা বিক্রেতার পরিবার ন্যায়বিচার দাবি করেছে।
নিহতের পরিবার ও স্থানীয়রা জানান, জমিজমা সংক্রান্ত বিরোধের জের ধরে সদর উপজেলার কুনিয়া ইউনিয়নের আদিত্যপুর গ্রামের চা বিক্রেতা আজম খান (৪৫) ও তার প্রতিপক্ষ আলতাফ বেপারীর মধ্যে দীর্ঘদিন ধরে বিরোধ চলছিল। রোববার দুপুরে আজম খানের একটি গাছ কাটা নিয়ে প্রতিপক্ষের সঙ্গে বাকবিতণ্ডা হয়। একপর্যায়ে প্রতিপক্ষের লোকজন সদর থানায় বিষয়টি অবহিত করলে থানার সহকারী পুলিশ পরিদর্শক (এএসআই) ইব্রাহিম খলিল ফোর্স নিয়ে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। এ সময় আজম খান ও তার চাচা মজিবর খানকে হাতকড়া পরিয়ে পুলিশ বাড়ি থেকে নিয়ে আসে। কিছুদূর এগোনোর পর আলতাফ বেপারী ও কামাল বেপারীসহ প্রতিপক্ষের লোকজন আজম খানের ওপর হামলা চালায়। এতে আজম খান মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। তখনও হাতকড়া পরা অবস্থায় ছিলেন আজম খান। পরে তাকে রাত ৮টার দিকে মাদারীপুর সদর হাসপাতালে নিলে কর্তব্যরত চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন। সোমবার ময়নাতদন্ত শেষে তার লাশ দাফন করা হয়। নিহত আজম খানের স্ত্রী, দুই ছেলে ও এক মেয়ে রয়েছেন।
নিহত আজম খানের স্ত্রী মাকসুদা বেগম জানান, ‘পুলিশের উপস্থিতিতে হাতকড়া পরা অবস্থায় আমার স্বামীর ওপর হামলা করে হত্যা করা হয়েছে। আমি সদর থানার ওই পুলিশদের বিচার চাই। থানায় মামলা পর্যন্ত নেয়নি। আমরা আদালতে এ হত্যার বিচার চাইব।’
অভিযোগের ব্যাপারে সদর থানার এএসআই ইব্রাহিম খলিলকে একাধিকবার থানায় গিয়েও পাওয়া যায়নি। তার ব্যক্তিগত মোবাইল ফোনে একাধিকবার ফোন করেও তার জবাব পাওয়া যায়নি।
এ ব্যাপারে পুলিশ সুপার মোহাম্মদ সরোয়ার হোসেন জানান, ‘যে এএসআইয়ের বিরুদ্ধে অভিযোগ উঠেছে, তাকে আপাতত ক্লোজ করা হয়েছে। যদি ময়নাতদন্ত রিপোর্টে কেউ দোষী হয় এবং নিহতের পরিবার থেকে তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে, তাহলে তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।



আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত