সরদার মাহফুজ    |    
প্রকাশ : ১৩ মে, ২০১৬ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
বই আলোচনা
সেজুল হোসেনের ও জীবন ও মায়া

সেজুল হোসেন কবি। কবিতা চর্চার পাশাপাশি তিনি গদ্য চর্চা করছেন নিয়মিত। কবিতা এবং গদ্য চর্চায় তৈরি হচ্ছে তার একটি স্বতন্ত্র ও নিজস্বতা। কবিদেরই মূলত গদ্য চর্চায় মনোনিবেশ করতে দেখা যায়। তবে প্রতিষ্ঠিত অনেক কবিই কবিতা চর্চার পাশাপাশি গদ্য চর্চায় ততটা আগ্রহী না। ফলে গদ্যের অনেক বিষয়কে কবিতায় রূপান্তরিত করার কারণে হয়তো তাদের কবিতা হয়ে উঠেছে দীর্ঘ বর্ণনামূলক ও একরৈখিক। শূন্য দশকের কবি সেজুল হোসেনের ‘ও জীবন ও মায়া’ গদ্যগ্রন্থটি প্রকাশ পায় একুশে বইমেলা ২০১৬। ভাত খাওয়ার চেয়ে আনন্দের কিছু নাই শিরোনামের গদ্যটিতে তিনি বলেছেন- ‘অচেনা আমার অনেক গল্প জমে জমে আজ পাথর / সেই সব পাথর ভেঙে মাকে শোনাতে চাই সবকটি গল্প / বলে যেতে চাই সব, যে কথার অনুবাদ মা ছাড়া কেউ জানে না।’ তার গদ্যের এ অংশবিশেষকে কবিতা বলাটাও ভুল হবে না হয়ত। কারণ তার গদ্যের এ অংশটুকু কবিতায় রূপান্তরিত হওয়ার প্রবণতা লক্ষ্য করা যায়। তেমনি অনেক কবির কবিতায় এমন সব ভাব বা বিষয় এসে পড়ে যা মূলত গদ্য বা গল্পের বিষয়। ‘ও জীবন ও মায়া’ গ্রন্থে স্থান পেয়েছে- হাসিতে ধরা পড়ে না সুখের আপাদমস্তক, প্রেম কি সেই সোনার মেয়ে, ভাত খাওয়ার চেয়ে আনন্দ কিছু নেই, সবাই বন্ধুর মত ও সবাই শত্রুর মতও শিরোনামের বর্ণনাধর্মী ক্ষুদ্রাকার চারটি গদ্য। যা পাঠককে গদ্য পাঠের পূর্ণ তৃপ্তি দিতে সক্ষম হবে। যেমন- ‘প্রেম কি সেই সোনার মেয়ে’ শিরোনামের গদ্যটিতে তিনি লিখেছেন- আমিও তাই ঠিকানা মনে রাখি না / যদিও না রাখা ঠিকানার ভার আমার করতলেই থাকে / দেখো করতল জাগিয়ে রাখবো বলে কত রাতকে দিন করেছি / কত দিনকে করেছি বন্ধু সে হিসেব জানে আমার নীল আকাশের ঘুড়ি। রূপকতার আশ্রয় নিয়ে গদ্যকারের এ বয়ান পাঠককে মোহবিষ্ট করে ছাড়ে। তবে তার ‘হাসিতে ধরা পড়ে না সুখের আপাদমস্তক’ শিরোনামের গদ্যটিতে গুণীজনদের কিছু বক্তব্যের সঙ্গে লেখকের সহমত আর তার সঙ্গে ব্যক্তিগত মতামত প্রতিষ্ঠা করার চেষ্টা, একটি সুপাঠ্য গদ্য পাঠের অন্তরায় হয়ে দাঁড়িয়েছে।

ও জীবন ও মায়া

সেজুল হোসেন

প্রকাশক চৈতন্য

প্রচ্ছদ মোস্তাফিজ কারিগর

মূল্য ১২৫ টাকা


 


আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত