মোহাম্মদ নূর আলম গন্ধী    |    
প্রকাশ : ২২ জুলাই, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
ভেষজ উদ্ভিদ ধুতরা

ধুতরো বা ধুতরা গাছ আমাদের দেশে সবার কাছেই কম-বেশি পরিচিত। দেশের প্রায় সব জায়গাতেই অযত্ন অবহেলায় এ গাছ জন্মাতে দেখা যায়। এমনকি ২ হাজার ৫০০ মিটার উচ্চতায়ও ধুতরা গাছ জন্মে। ইংরেজি নাম : Datura, Jimsonweed, Stinkweed, Madapple, Thornapple, Stramonium. উদ্ভিদ তাত্ত্বিক নাম : Datura Stramonium. গোত্র : Solanaceae. ধুতরা গাছ ঝাড় বিশিষ্ট। উচ্চতায় প্রায় ১ মিটারের মতো, পাতা বড়, ত্রিকোণাকৃতির, রং সবুজ, শিরা ও মধ্যশিরা স্পষ্ট। ধুতরা গাছের দুটি প্রজাতি আমাদের দেশে চোখে পড়ে। সাদা ও কালো রঙের ধুতরা। সাদা রঙের ধুতরার বোঁটা, পাতা ও গাছ হালকা সবুজ রঙের এবং কালো রঙের ধুতরা গাছের পাতার বোঁটা ও গাছ বেগুনি মিশ্র রঙের।

ধুতরা গাছের ফুলের সৌন্দর্য অত্যন্ত আকর্ষণীয় ও মনোরম। বর্ষাকালে ধুতরা গাছে ফুল ফোটা শুরু হলেও হেমন্তকালজুড়ে গাছে ফুল দেখা যায়। গাছের শাখা-প্রশাখার অগ্রভাগে ফুল ধরে, দেখতে লম্বাকৃতির, সাদা জাতের ধুতরা গাছে সাদা ফুল এবং কালো জাতের ধুতরা গাছে সাদা-বেগুনী মিশ্র রঙের ঊর্ধ্বমুখী ফুল ফোটে। ফুলে মৃদু গন্ধ আছে। পড়ন্ত বিকাল থেকে সন্ধ্যায় গাছে ফুল ফোটে। দিনে রোদের আলোয় ফুল সংকুচিত হয়ে যায়, সন্ধ্যায় আবার পাপড়ি মেলে। এভাবে ফুটন্ত ফুল ২ থেকে ৩ দিন তাজা থেকে ঝরে যায়। ধুতরা স্ব-পরাগায়িত ফুল, ফুলের ভেতর পুংদণ্ড ও গর্ভমুণ্ড অবস্থিত। ফুল শেষে গাছে ফল হয়, ফল গোলাকার, ফলের গায়ে ছোট-ছোট কাঁটায় ভরা থাকে। কচি ফল প্রথমে সবুজ ও পরিপক্ব ফলের রং খায়েরি। ফল পাকলে চারটি প্রকোষ্টে বিভক্ত হয়ে যায়। ফলের ভেতর বীজ হয়, বীজের মাধ্যমে বংশবিস্তার ঘটে।

ধুতরা গাছের পাতা, ফুল, ফল, বীজ ভেষজ গুণাগুণসম্পন্ন। এ গাছের পাতায় যে ভেষজ উপাদান পাওয়া যায় তা হল- হ্যায়োস্যামাইন, বেলডোনা ও হেনবেন। ব্রংকাইটিস, হাঁপানি রোগের ওষুধ, অনিদ্রা ও মুখের লালাক্ষরণ দূর করে, শরীরের ব্যথা সারাতেও ব্যবহৃত হয় ধুতরা। আয়ুর্বেদিক, ইউনানী ও হেকিমি শাস্ত্রবিদরা যুগ যুগ ধরে বিভিন্ন রোগের চিকিৎসায় ধুতরার বিভিন্ন অংশ ব্যবহার করে আসছেন। সঠিক ব্যবহার ও মাত্রার ওপর যত্নবান থাকলে কোনো ধরনের পার্শ্বপ্রতিক্রিয়া হয় না।

লেখক : কৃষিবিদ


 


আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত