আ ন ম আমিনুর রহমান    |    
প্রকাশ : ২৩ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
লম্বা ঠোঁটের খয়রাকানা

বিরল ও দুর্লভ পাখির খোঁজে আমরা টাঙ্গুয়ার হাওরে। ট্রালারে রৌওয়া বিলে ঢুকতেই জলাঝোপে লম্বা ঠোঁটের বড় একটা পাখিকে শিকারের আশায় দাঁড়িয়ে থাকতে দেখলাম। লম্বা ঘাস আর ঝোপের আড়ালে পাখিটার গায়ের রঙ ভালো করে দেখা যাচ্ছে না। এরপরও পাখিটাকে আমি ঠিকই চিনতে পরলাম। খয়রাকানা বক। এরা বেগুনি বক বা ঝুঁটি বক নামেও পরিচিত। ইংরেজি নাম Purple Heron. বৈজ্ঞানিক নাম Ardea perpurea.

খয়রাকানা বড় আকারের বক। দেহের দৈর্ঘ্য ৭৮ থেকে ৯০ সেমি। ওজন ০.৫০ থেকে ১.৩৫ কেজি। প্রাপ্তবয়স্ক পাখির মাথার চাঁদি কালো। লম্বা, চিকন ও নলাকার খয়েরি পালকের গলার ওপরের অংশ এবং ঘাড়ের পাশ দিয়ে একটা কালো দাগ পিঠের দিকে চলে গেছে। ঘাড়ের ওপরটা কালো। ঠোঁটের নিচের গলার অংশ সাদা। টিকির মতো কালো দুগোছা সুতোপালক কানের কাছ দিয়ে পেছনে দিকে গেছে। পিঠ ও দেহের ওপরটা বেগুনি-ধূসর। ডানার সামনের অংশ ও কাঁধ লালচে। বুক-পেট ও দেহের নিচটা লালচে। বুক ও ঘাড়ের দু’পাশ থেকে কিছু সুতোপালক ঝুলে থাকে। লেজতল ঢাকনি কালো। কোমর ও লেজ ধূসর। চোখ হলুদ। লম্বা ঠোঁট কালচে-হলুদ। পা ও পায়ের পাতা লালচে-বাদামি। অপ্রাপ্তবয়স্ক বকের ঠোঁট তুলনামূলকভাবে অনুজ্জ্বল ও কাঁধের পালক কম ধূসর হয়।

খয়রাকানা সচরাচর দৃশ্যমান আবাসিক পাখি। সুন্দরবনসহ দেশের হাওর, বিল, দ্বীপ, মোহনা, নদী আগাছাপূর্ণ বড় জলাশয়ে বিচরণ করে। সকাল-সন্ধ্যা এরা বেশি সক্রিয় থাকে। সচরাচর একাকী বা জোড়ায় দেখা যায়। জলঝোপ বা ভাসমান উদ্ভিদে ভরা অগভীর পানিতে দাঁড়িয়ে মাছ, ব্যাঙ, জলজ কীটপতঙ্গ, ছোট কাঁকড়া, সাপ ইত্যাদি শিকার করে। আড়ালে থাকতেই পছন্দ করে। ভয় পেলে বা বিপদে পড়লে ঘাড়-মাথাসসহ পুরো দেহ টানটান করে ঠোঁট আকাশের দিক উঁচিয়ে নলখাড়া বা ঝোপের ঘাসের সঙ্গে মিশে যায়। সাধারণত ওড়ার সময় উঁচু স্বরে ‘ফ্যাঙ্ক... ফ্যাঙ্ক... ফ্যাঙ্ক... ডাকে।

জুন-অক্টোবর খয়রাকানার প্রজননকাল। পানিতে দাঁড়ানো গাছের শাখা বা নুয়ে থাকা নলখাগড়ার ওপর শুকনো ও সরু কঞ্চি, ডালপালা বা নল বিছিয়ে বড় আকারের বাসা বানায়। অবশ্য অনেক সময় ধূসর বক বা অন্যান্য বকের সঙ্গে কলোনি বাসায়ও যোগ দেয়। নিলচে-সবুজ ডিম পাড়ে ৪ থেকে ৬টি। স্ত্রী-পুরুষ মিলে ডিমে তা দেয়। ২৫ থেকে ২৮ দিনে ডিম ফুটলে উভয়েই ছানার যত্ন নেয়। ছানা ৪৫ থেকে ৫০ দিনে উড়তে শেখে এবং দু’মাস বয়সে স্বাবলম্বী হয়। এদের আয়ুষ্কাল প্রায় ১০ বছর।

লেখক : বন্যপ্রাণী জীববিজ্ঞানী ও প্রাণিচিকিৎসা বিশেষজ্ঞ, বন্যপ্রাণী প্রজনন ও সংরক্ষণ কেন্দ্র, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়


 


আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত