গোলাম কবির বিলু, পীরগঞ্জ (রংপুর) থেকে    |    
প্রকাশ : ২৪ জুলাই, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
২৫ হাজার টাকা নিলেন মামলাও দিলেন!
পুলিশের পা জড়িয়ে ধরার পরও ক্রন্দনরত বৃদ্ধাকে লাথি
‘বাবা মোর কোলজার টুকরা ছাওয়ালটাক (আফজাল হোসেন) ওংকা করি মারেন না বাবা। অই কোন অপরাধ করে নাই বাবা। ওক ছাড়ি দ্যাও বাবা।’ ছেলের মুক্তির জন্য পা জড়িয়ে ধরে দরিদ্র মায়ের এই আকুতি মন গলাতে পারেনি পুলিশ ও মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ কার্যালয়ের পরিদর্শকের। বরং বিরক্ত হয়ে ৫৬ বছর বয়সী বৃদ্ধা ফজিলাতুন্নেছা বেগমকে সজোরে লাথি মেরে সরিয়ে দিয়ে পুলিশ প্রকাশ্যে বেদম প্রহার করতে থাকে যুবককে। শনিবার বিকালে কিল-ঘুষি আর লাঠিপেটা করতে করতেই আফজালকে গাড়িতে তুলে থানায় নিয়ে যায় আইনশৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যরা। আফজালের বিরুদ্ধে অভিযোগ, তার বাড়িতে ৮ পিস ইয়াবা পাওয়া গেছে। রংপুরের ‘খ’ অঞ্চলের মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রক কার্যালয়ের পরিদর্শক আবদুর রহিমের নেতৃত্বে পুলিশ সদস্যরা আটকের পর পরই দেনদরবারে মেতে ওঠে। গাড়িতে বসেই পুলিশের নির্দেশে আফজাল তার মোবাইল থেকে ফোনে মায়ের কাছে ৫০ হাজার টাকা দাবি করেন। বলেন, মা ৫০ হাজার টাকা দিলে ওরা আমাকে ছেড়ে দেবে। শেষ পর্যন্ত ২৫ হাজার টাকায় রফা হয়। ধারকর্জ করে বিকাশের মাধ্যমে পাঠিয়ে দেয়া হয় এ টাকা। তবে টাকা নেয়ার পরও আফজালের বিরুদ্ধে মদকের মামলা দেয়া হয়েছে।
কথা হয় উপজেলার পাঁচগাছী ইউনিয়নের পাঁচগাছী গ্রামের মো. ময়েজ উদ্দিনের ছেলে আফজাল হোসেনের মামাতো ভাই এমদাদুল হকের সঙ্গে। তিনি যুগান্তরকে জানান, ছেড়ে দেয়ার শর্তে ২৫ হাজার টাকায় রফাদফা হওয়ার পর ধারকর্জ করে পুলিশের দেয়া বিকাশ নম্বরে পুরো টাকা পাঠানো হয়। তিনি বলেন, মিঠাপুকুরের পদ্মপুকুর বাজারের বিকাশ ব্যবসায়ী রঞ্জু মিয়ার দোকান থেকে ১৫ হাজার এবং নুর আলমের দোকান থেকে ১০ হাজার টাকা ধার করি। পরে পুলিশের দেয়া বিকাশ (০১৭৯২৯৯৮৯২৮) নম্বরে ২৫ হাজার টাকা পাঠানো হয়। ছয় ধাপে ০১৭৬৩০৩৯০০০ নম্বর থেকে ১০ হাজার, ০১৭১৭০১৪৫৫৪৭ ও ০১৭৭৩২০৪৭১৯ থেকে ৪ হাজার করে ৮ হাজার, ০১৮৩৯৫৯৫৫১৪ থেকে ২ হাজার, ০১৭১৭৩২৯১৯২ ও অপর একটি নম্বর থেকে আড়াই হাজার করে মোট ৫ হাজার টাকা পাঠানো হয়। পরে বিকাশ নম্বরটি বন্ধ পাওয়া যায়। টাকা নেয়ার পরও জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রক কার্যালয়ের পরিদর্শক আবদুর রহিম বাদী হয়ে মাদকদ্রব্য আইনে আফজালের বিরুদ্ধে মামলা করেন। থানা হাজতে আটক আফজাল বলেন, শত্রুতা করে আমাকে ফাঁসানো হয়েছে। আমি ইয়াবা খাই না। আফজালের মাকে মারধরের বিষয়ে জানতে চাইলে পরিদর্শক আবদুর রহিম বলেন, তাকে মারব কেন। ওরা তো মা-বোনের জাতি। টাকা নেয়ার বিষয়ে জানতে চাইলে তিনি বলেন, আমি কারও কাছ থেকে টাকা নেইনি। থানার ওসি (তদন্ত) হারুন অর রশিদ বলেন, জেলা মাদকদ্রব্য নিয়ন্ত্রণ বিভাগ আফজালকে আটক করেছে। তার বিরুদ্ধে মাদক আইনে মামলা হয়েছে।



আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত