বরিশাল ব্যুরো    |    
প্রকাশ : ২১ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
বরিশালে তোলপাড়
অপহরণ নাকি প্রেম করে পালাচ্ছিলেন অসীম-সামান্থা
নারায়ণগঞ্জের রূপগঞ্জ ফেরিঘাট থেকে বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়রের মেয়ে কানিজ ফাতেমা সামান্থাসহ বরিশাল মহানগর ছাত্রলীগের সাধারণ সম্পাদক অসীম দেওয়ান আটক হন। এরপর থেকে বরিশালের সাধারণ মানুষের মনে প্রশ্ন, এটি অপহরণ নাকি অন্য কিছু? এরই মধ্যে দল থেকে বহিষ্কার করা হয়েছে অসীম দেওয়ানকে। আটক হওয়ার পর সামান্থা অসীমের বিরুদ্ধে অপহরণের অভিযোগ তুলেছেন। কিন্তু নির্ভরযোগ্য একাধিক সূত্র বলছে, প্যানেল মেয়রের মেয়ে সামান্থার সঙ্গে দীর্ঘ ৭ বছর ধরে প্রেমের সম্পর্ক রয়েছে অসীমের। সামান্থার বসুন্ধরার ফ্ল্যাটে বহুদিন সময় কাটাতেও দেখা গেছে তাকে। অসীম দেওয়ানের ঘনিষ্ঠ সূত্রগুলো বলছে, ২০১১ সাল থেকে শুরু হওয়া এ প্রেমের সম্পর্কের এক পর্যায়ে তাদের বিয়ে হয়েছে বলেও জানাজানি হয়। ঢাকায় পরিচিত সবাই তাদেরকে স্বামী-স্ত্রী বলেই জানত। অসীম দেওয়ানের এক বন্ধু জানান, বেসরকারি বিশ্ববিদ্যালয় নর্থ সাউথে পড়ার সুবাদে বসুন্ধরা আবাসিক এলাকায় ফ্ল্যাট নিয়ে থাকতেন সামান্থা। অসীম থাকতেন কলাবাগানে। প্রায়ই সামান্থার ফ্ল্যাটে একই কক্ষে সময় কাটাতেন দু’জন। এছাড়া তারা বিভিন্ন রেস্টুরেন্ট ও সিনেমা হলে একই সঙ্গে যাতায়াত করতেন। এমন বহু ছবি এখন ছড়িয়ে পড়েছে ফেসবুকে। এরমধ্যে অসীমকে নিয়ে সামান্থার তোলা সেলফিও রয়েছে। তবে এ প্রেমের সম্পর্ক মেনে নিতে পারেননি সামন্থার বাবা বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের প্যানেল মেয়র কেএম শহীদুল্লাহ। এ কারণে সামান্থাকে বিভিন্ন সময় হুমকিও দিতেন তিনি। সর্বশেষ এ নিয়ে অসীম দেওয়ান বেশ উত্তেজিত হয়ে পড়েন এবং বসুন্ধরা আবাসিক এলাকার ফ্ল্যাটে গিয়ে সামান্থার সঙ্গে হট্টগোল বাধান। এ সময় সামান্থা ৬ মাসের সময় চান অসীমের কাছে। এমনকি কোর্ট ম্যারেজের সিদ্ধান্ত পর্যন্ত নেন তারা। বিষয়টি জানতে পেরে সামান্থার বাবা তাদের ওপর চাপ সৃষ্টি করলে দু’জন পালানোর পরিকল্পনা করেন।



আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত