ডা. আলমগীর মতি    |    
প্রকাশ : ১৩ অক্টোবর, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়ক খাবার
ক্যান্সারের মধ্যে স্তন ক্যান্সার একটি সুপরিচিত ক্যান্সার এবং অনেকটা প্রাণঘাতীও বটে। একটি স্বাস্থ্যকর খাদ্য তালিকা স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে পারে।
হলুদ : হলুদে কারকিউমিন হিসেবে পরিচিত একটি যৌগ রয়েছে, যা কোষের বিভিন্ন ধরনের ক্যান্সার যেমন- স্তন, গ্যাস্ট্রোইনটেস্টাইনাল, ফুসফুস এবং ত্বকের ক্যান্সার থেকে কোষকে রক্ষা করে। গবেষণায় দেখা গেছে, এটা ব্যাপকভাবে ক্যান্সারের বিরুদ্ধে লড়াই করে কারণ এতে সেল প্রোটেক্ট্যান্ট ও অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট থাকে যাতে বিরোধী প্রদাহজনক বৈশিষ্ট্য থাকে ও ক্যান্সারের ঝুঁকি কমিয়ে আনে। খালি পেটে রোজ সকালে আপনার খাবারে একটু হলুদ গুঁড়া যোগ করে বা জল দিয়ে কাঁচা হলুদের একটি চিমটি খেলেও হলুদের কারকিউমিন সুবিধা উপভোগ করতে পারেন। এছাড়া আধা কেজি পানিতে ১ টেবিল চামচ হলুদ গুঁড়া মিশিয়ে ১০ মিনিট ফুটিয়ে প্রতিদিন পান করতে পারেন।
স্যামন মাছ : স্যামন মাছ একটি তৈলাক্ত মাছ যাতে ওমেগা-৩ ফ্যাটি এসিড বেশি পরিমাণে থাকে, যা ক্যান্সারের টিউমারের বৃদ্ধি মন্থর করে এবং ইমিউন সিস্টেমকে উৎসাহ দান করে। একই সময়ে, স্যামন মাছ একটি চর্বিহীন প্রোটিন, যা ভিটামিন বি১২ এবং ডি-এর একটি উৎস। স্যামন মাছকে সিদ্ধ করে, ভেপে অথবা ভেজেও খেতে পারেন। ভালো উপকার পেতে, সপ্তাহে দু’দিন অন্তত স্যামন মাছ খাওয়া উচিত। এছাড়া অন্যান্য তৈলাক্ত মাছ, যা স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়তা করে সেগুলো হল ম্যাকড়ল, সারডিন, ট্রাউট মাছ ও টুনা।
টমেটো : পোস্টমেনোপজাল মহিলাদের স্তন ক্যান্সারের ঝুঁকি কমাতে টমেটো বেশ উপকারি। টমেটোতে লাইসোপিনি থাকে, যা একটি শক্তিশালী অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট যা ক্যান্সার কোষের বৃদ্ধি কমিয়ে আনে এবং স্তন ক্যান্সারের উন্নয়ন প্রতিরোধ করে। টমেটোকে রান্না ভর্তা অথবা প্রক্রিয়াজাত করেও খেতে পারেন। দৈনিক দেড় গ্লাস টমেটো জুস পান করা উচিত।
রসুন : রসুনে উপস্থিত সালফার যৌগ ও ফ্ল্যাভোনয়েড স্তন ক্যান্সার প্রতিরোধে সহায়তা করে। রসুন ছিলে তা কুচিয়ে ১৫ মিনিট রেখে দিতে হবে। আপনি প্রতিদিন সকালে এক টুকরো রসুন খেতে পারেন, এতে করে আপনি ক্যান্সারমুক্ত জীবন পেতে পারেন।
পালংশাক : পালংশাকে অ্যান্টিঅক্সিডেন্ট লুটেইন রয়েছে যা অন্ননালী, পাকস্থালির ক্যান্সার এবং স্তন ক্যান্সারের বিরুদ্ধে একটি গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করে। এটি ম্যাঙ্গানিজ ও ক্যারটিনইয়েড সমৃদ্ধ, যা আপনার শরীরের মৌলে বলা অস্থির অণু অপসারণ করে। মহিলাদের সপ্তাহে কয়েকবার পালংশাক খাওয়া উচিত। পালংশাক সালাদে, সুপে, সিদ্ধ করে অথবা ভেজেও খাওয়া যেতে পারে। পালংশাকের সঙ্গে অন্যান্য সবুজশাক অথবা পাতা যেমন লেটুস, পাতা কপি খেতে পারেন।
আখরোট : আখরোটে অনেক সহায়ক পুষ্টি থাকে এবং স্তন ক্যান্সার, টিউমারের অস্বাভাবিক বৃদ্ধি কমিয়ে আনে। প্রতিদিন প্রায় দুই আউন্স আখরোট খেতে পারেন। ফলে স্তন ক্যান্সারে যে একাধিক জিনের কার্যকলাপ পরিবর্তন করতে সাহায্য করে তা হ্রাস করে।
ডা. আলমগীর মতি
হারবাল গবেষক ও চিকিৎসক
মডার্ন হারবাল গ্রুপ, ঢাকা।
মোবাইল ফোন : ০১৯১১৩৮৬৬১৭।



আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত