• শুক্রবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০
যুগান্তর রিপোর্ট    |    
প্রকাশ : ১৪ অক্টোবর, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
ইপিজেড করতেই রোহিঙ্গা তাড়ানো হচ্ছে : বাণিজ্যমন্ত্রী
রাখাইন রাজ্য মূল্যবান খনিজসম্পদে পরিপূর্ণ হওয়ায় সেখানে রফতানি প্রক্রিয়াকরণ অঞ্চল প্রতিষ্ঠা করতে আগ্রহী মিয়ানমার। আর এ কারণেই রোহিঙ্গাদের বাঙালি আখ্যা দিয়ে সেখান থেকে তাড়ানো হচ্ছে। বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ এমন মন্তব্য করেছেন।
শুক্রবার আন্তর্জাতিক কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় ‘শোকেস কোরিয়া-২০১৭’ প্রদর্শনীর উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। বিশেষ অতিথি ছিলেন বাংলাদেশে নিযুক্ত দক্ষিণ কোরিয়ার রাষ্ট্রদূত অনি সিউং ডু। কোরিয়া-বাংলাদেশ চেম্বার অ্যান্ড কমার্স (কেবিসিসিআই) প্রদর্শনীর আয়োজন করেছে। শনিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত চলবে। প্রধান অতিথির বক্তব্যে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, সহিংসতার কারণে এরই মধ্যে ৫ লাখ রোহিঙ্গা এসেছে। আগে আরও ৫ লাখ রোহিঙ্গা ছিল। সব মিলিয়ে এ সংখ্যা ১০ লাখ ছাড়িয়ে গেছে। বাকি যারা আছে তাদেরও তাড়ানো হচ্ছে। তবে কূটনৈতিক তৎপরতার মাধ্যমে রোহিঙ্গাদের ফেরত পাঠানোর চেষ্টা চলছে। এজন্য মিয়ানমারের প্রতি চাপ অব্যাহত রাখতে বিশ্ববাসীর প্রতি আহ্বান জানান মন্ত্রী। ‘রোহিঙ্গারা বাঙালি’- মিয়ানমারের সেনাপ্রধানের এ বক্তব্যের তীব্র বিরোধিতা করে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, রোহিঙ্গারা প্রায় দু’শ বছর আগ থেকেই রাখাইনে বসবাস করছে। ১৮২৪ সালে ব্রিটিশ-বার্মা যুদ্ধে বার্মা পরাজিত হলে ব্রিটিশরা বার্মা দখল করে। তার আগ থেকেই রোহিঙ্গা মুসলমানরা আরাকান বা রাখাইন রাজ্যের তিনটি নদীর পাশে বসবাস করে আসছে। সেখানে একজন বার্মিজ রাজা ছিলেন। তিনি ছিলেন ধর্মনিরেপক্ষ, সেই রাজদরবারে উপবিষ্ট কবি আলাওল, দৌলত কাজী ছিলেন মুসলমান। আর মিয়ানমারের জেনারেল বললেন, ‘রোহিঙ্গারা বাংলাদেশি’। এ বক্তব্য মিথ্যা। যাদের বিবেক আছে, আত্মা আছে, মনুষ্যত্ব আছে, তারা এমন বক্তব্য দিতে পারে না।
তিনি বলেন, ‘১৯৭১ সালে প্রায় ১ কোটি লোক দেশান্তরি হয়ে ভারতে আশ্রয় নিয়েছিলাম। সে কারণে আমরা জানি, দেশান্তর হওয়া কী দুঃসহ যন্ত্রণার। তাই মানবিক দিক বিবেচনা করে রোহিঙ্গাদের আমরা জায়গা দিয়েছি। কিন্তু তাদের ফিরিয়ে নিতে হবে।’
প্রদর্শনীর আয়োজকরা জানান, কোরিয়ার বিশ্ববিখ্যাত ইলেকট্রনিক ও কনজুমার পণ্যের সঙ্গে ভোক্তাদের পরিচয় করিয়ে দিতেই এ ‘শোকেস’ আয়োজন করা হয়েছে। প্রদর্শনীতে দক্ষিণ কোরিয়ার ব্র্যান্ড স্যামসাং, ইন্ডিয়া ইলেক্ট্রনিকস (বাংলাদেশ ব্রাঞ্চ), এলজি ইলেক্ট্রনিকস বাংলাদেশসহ প্রায় ৪৫টি কোরিয়ান কোম্পানি তাদের প্রস্তুতকৃত ইলেক্ট্রনিকস ও কনজুমার পণ্য প্রদর্শন করছে। অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন কেবিসিসিআই’র সভাপতি মোস্তফা কামাল, সহসভাপতি শাহাব উদ্দিন খান ও এলজি ইলেক্ট্রনিকস বাংলাদেশের ব্যবস্থাপনা পরিচালক অ্যাডওয়ার্ড কিম প্রমুখ।



আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত