প্রিন্ট সংস্করণ    |    
প্রকাশ : ২৪ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০৮:২৪:০২ প্রিন্ট
দেরিতে হলেও ভালো গান করার চেষ্টা করি
কোনো কারণেই ফেরানো গেল না তাকে, সরলতার প্রতিমাসহ অসংখ্য জনপ্রিয় গান উপহার দিয়েছেন সঙ্গীতশিল্পী খালিদ। গান ও স্টেজ শো নিয়ে ব্যস্ত থাকলেও কিছুটা আড়ালেই থাকেন এ শিল্পী। সম্প্রতি কিছু নতুন গান রেকর্ডিংয়ের কাজে ব্যস্ত সময় পার করছেন। বর্তমান ব্যস্ততা ও সমসাময়িক বিষয় নিয়ে কথা বলেছেন তিনি।
 
* বর্তমান ব্যস্ততা কী নিয়ে?
 
** গত তিন বছর ধরে গতানুগতিক ধারায় চলছি। বেশিরভাগ সময় স্টেজ শো নিয়ে ব্যস্ত থাকি। পাশাপাশি টিভিতে লাইভ শো’তে সময় দিতে হয়। এখন কয়েকটি সিঙ্গেল গানের রেকর্ডিং চলছে।
 
* নতুন একটি গান প্রকাশের কথা বলছিলেন...
 
** ভালোবাসো আর নাইবা বাসো- শিরোনামের নতুন একটি গানে কণ্ঠ দিলাম। এটি লিখেছেন তারেক বিন ফিরোজ। নতুন বছরের জন্যই কাজটি করা। অনেক দিন পর আমার গান পাচ্ছেন ভক্তরা। আশা করছি নিরাশ হবেন না।
 
* গানে আপনাকে কম পাওয়া যায়, কেন?
 
** কম পাওয়া যায় তা নয়। নিয়মিত শো করি। কিন্তু গানের কথা ও সুর পছন্দ না হলে সাধারণত গান করি না। এ কারণে আমার নতুন গানের সংখ্যাও তুলনামূলক কম। ‘ভালোবাসো আর নাইবা বাসো’ গানটির কথা আমার খুব পছন্দ হয়েছে। এর সুর ও সঙ্গীতায়োজন একেবারেই আলাদা। অনেকদিন পর ভালোলাগার মতো একটি কাজ করলাম।
 
* সঙ্গীত নিয়ে আজকের অবস্থানে আসবেন ভেবেছিলেন?
 
** কখনও ভাবিনি খুব আয়োজন করে সঙ্গীত নিয়ে কিছু করব। কীভাবে যেন একদিন আবিষ্কার করলাম গানের প্রতি ভালো লাগা। হারমোনিয়াম বাজাতে পারি। সেই ভাবনা থেকে শুরু। এরপর আর কিছু ভাবতে হয়নি, এখনও গানের সঙ্গেই পথ চলছি।
 
* অ্যালবামের কাজে দীর্ঘ বিরতি কেন?
 
** যদি পেশাগত দিক বিবেচনা করে তাড়াহুড়ার মধ্যে করা গান হয়, তাতে হয়তো গানের মান ঠিক থাকে না। অ্যালবামের কাজ সাধারণত সময় নিয়ে করাটাই আমার কাছে ভালো মনে হয়। সবসময় চেষ্টা করি দেরিতে হলেও ভালো গান করার। তাই সময় নিয়ে অ্যালবাম করি।
 
* নতুন প্রজন্মের শিল্পীদের গান নিয়ে আপনার মূল্যায়ন কী?
 
** এখন যারা গান করছে তাদের মধ্যে প্রতিভা আছে। আমার মনে হয় আমাদের দেশে যারা প্রতিষ্ঠিত শিল্পী এবং গীতিকার রয়েছেন তারা নতুনদের সুযোগ করে দিলে নতুনরা অনেক দূর যেতে পারবে। নতুনদের উচিত সাধনা করে গান করা।


আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত