• শুক্রবার, ২১ ফেব্রুয়ারি ২০২০
যুগান্তর রিপোর্ট    |    
প্রকাশ : ০১ নভেম্বর, ২০১৭ ১১:০৭:৪৭ প্রিন্ট
হেলমেট পরুন, নিরাপদে থাকুন

প্রতিদিন সকালে ঘুম থেকে উঠে বাড়ে কর্মজীবী মানুষের ব্যস্ততা। ব্যস্ততা যেমন বাড়ছে তেমনি বাড়ছে রাস্তায় ট্রাফিক জ্যাম। জ্যামের হাত থেকে রাক্ষা পেতে আর সময় বাঁচাতে মোটরবাইক যেন একমাত্র বাহন। তাই প্রতিনিয়ত বাড়ছে বাইকের চাহিদা, তার সঙ্গে পাল্লা দিয়ে বাড়ছে দুর্ঘটনা। দুর্ঘটনা থেকে রক্ষা পাওয়ার জন্য মাথা ঠাণ্ডা রেখে চালাতে হবে বাইক আর ব্যবহার করতে হবে হেলমেট। 


হেলমেট পরা বাধ্যতামূলক করা হলেও অনেকে মানছে না এই আইন। হরহামেশাই ঘটছে দুর্ঘটনা, প্রাণ হারাচ্ছেন চালক ও আরোহী। তাই একটুখানি সচেতনতা পারে আপনাকে দুর্ঘটনা এবং আইনি ঝামেলা থেকে মুক্ত রাখতে।

মোটরবাইকের বিষয়ে আমাদের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য জানিয়েছেন ট্রাফিক উত্তর বিভাগের ডিসি প্রবীরকুমার রায়। তিনি বলেন, রাস্তায় বেশিরভাগ সময় মোটরবাইক চালকেরা বেশি দুর্ঘটনার শিকার হন। তারা কোনো আইন মানতে চান না, হেলমেট পরেন না, ফুটপাতের উপর দিয়ে বাইক উঠিয়ে দেন। এছাড়া সব সময়ই আগে যাওয়ার প্রবণতা কাজ করে। 


তিনি বলেন, বাইকচালকদের সচেতন করতে বিভিন্ন বিশ্বদ্যালয়, কলেজ , ব্পিনিবিতান ও রাস্তায় আমরা ভিডিও ফুটেজ দেখাচ্ছি। এছাড়া, মানববন্ধন, লিফলেট বিতরণ, সভা, সেমিনারের মাধ্যমেও সচেতন করার চেষ্টা করছি। এছাড়া মামলাও দেয়া হচ্ছে। কিন্তু সবকিছুর উপরে হচ্ছে ব্যক্তি সচেতনতা। আমার যদি সচেতন না হই, তবে মামলা দিয়েও কাজ হবে না। তাই বাইকে সড়ক দুর্ঘটনা এড়াতে ব্যক্তি সচেতনতাই হতে পারে অন্যতম হাতিয়ার।


আসুন জেনে নেই বাইক চালানোর গুরুত্বপূর্ণ কিছু বিষয়।


গতি বাড়লে ঝুঁকিও বাড়ে
অনিয়ন্ত্রিত ক্ষিপ্রগতির কারণে দুর্ঘটনা বেশি ঘটে। তাই সাবধানে বাইক চালাতে হবে। মনে রাখবেন, একটি দুর্ঘটনা সারজীবনের কান্না। আর বাইক চালানোর সময় সবচেয়ে বেশি ঝুঁকিতে থাকে আপনার মাথার অংশ। তাই হেলমেট পরা জরুরি। রাস্তা ফাঁকা পেলেই দ্রুতগতিতে বাইক চালানো থেকে বিরত থাকার চেষ্টা করুন।


মোটরবাইকে গতিসীমার আইন
গতিসীমার ওপরে বাইক চালানোর জন্য মোটরযানসংক্রান্ত ১৯৮৩ অধ্যাদেশ অনুযায়ী ১৪২ ধারায় মামলা দিতে পারেন ট্রাফিক সার্জন। আর দুর্ঘটনা ঘটলে মামলা হতে পারে ১৪৬ ধারায়।


হেলমেট আবশ্যক
বাইক চালাতে হলে অবশ্যই হেলমেট পরতে হবে। শুধু বাইক চালকই নয়, তার পেছনের মানুষটির জন্যও হেলমেট পরা জরুরি। একটু অসচেতনতার জন্য ঘটতে পারে বড় ধরনের দুর্ঘটনা। হেলমেট ব্যবহার না করলে মামলা হবে ১৪৯ ধারায়।


ফুটপাতে বাইক নয়
অনেকেই জ্যামের কারণে সময় বাঁচাতে ফুটপাতে বাইক উঠিয়ে দেন। মনে রাখতে হবে, ফুটপাত হাঁটার জন্য বাইকের জন্য নয়। ফুটপাতে বাইক চালানো আইনত দণ্ডনীয় অপরাধ। ফুটপাতে বাইক চালালে ট্রাফিক আইনে ১৩৭ ধারায় মামলা ও বিভিন্ন পরিমাণের অর্থমূল্যের জরিমানা।


বাইকের ফিটনেস
আপনার বাইকের ফিটনেসে কালো ধোঁয়া যেন বের না হয়, সেদিকে লক্ষ্য রাখতে হবে। ফিটনেসবিহীন মোটরবাইকের জন্য মামলা হতে পারে ১৫০ ধারায়। এছাড়া বাইকে লুকিং গ্লাস ও নিষিদ্ধ হর্ন ব্যবহারের  জন্য মামলা হতে পারে ১৩৯ ও ১৪৯ ধারায়।
 

লাল ও সবুজ বাতির  সংকেত লক্ষ্য করুন

রাস্তায় চলার সময় অবশ্যই সবুজ ও লাল বাতির সংকেট মেনে চলতে হবে। তাড়াহুড়া করে আইন অমান্যের দায়ে ১৪০ ধারায় মামলা হতে পারে।

 

[প্রিয় পাঠক, আপনিও দৈনিক যুগান্তর অনলাইনের অংশ হয়ে উঠুন। লাইফ স্টাইলবিষয়ক ফ্যাশন, স্বাস্থ্য, ভ্রমণ, নারী, ক্যারিয়ার, পরামর্শ, এখন আমি কী করব, খাবার, রূপচর্চা ও ঘরোয়া টিপস নিয়ে লিখুন এবং সংশ্লিষ্ট বিষয়ে ছবিসহ মেইল করুন- [email protected] এ ঠিকানায়। লেখা আপনার নামে প্রকাশ করা হবে।]

 


আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত