• বৃহস্পতিবার, ২১ নভেম্বর ২০১৯
রবিউল কমল    |    
প্রকাশ : ১৯ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০৯:০৫:০৭ প্রিন্ট
ছোটদের বন্ধু সান্টা ক্লজ

সান্টা-ক্লজের নাম শোনেনি বিশ্বে এমন শিশুর সংখ্যা খুবই কম। সান্টা-ক্লজ হাসিখুশি একজন বুড়ো মানুষ। পরনে তার লাল কোট-প্যান্ট। কোটের কলার আর হাতায় তুষারশুভ্র সাদা তুলো।

পায়েও সাদা বর্ডার দেয়া লাল রঙের বুটজুতা। তার সাদা দাড়ি। পিঠে তার বিশাল এক থলে। যার ভেতরে নানা রকম খেলনা। শিশুদের জন্য তিনি উপহার নিয়ে আসেন ক্রিসমাসের রাতে। মানে ২৪ ডিসেম্বরের গভীর রাতে।

যাকে বলা হয় ক্রিসমাস ইভ। ২৫ ডিসেম্বর ভোরবেলা দেখা যায় ক্রিসমাস ট্রির নিচে তিনি রেখে গেছেন মজার কোনো উপহার। সান্টা-ক্লজ থাকেন বরফঢাকা উত্তর মেরুতে।

বলগা হরিণটানা বিশাল এক স্নেজ গাড়িতে চড়ে ঘুরে বেড়ান তিনি। তার গাড়িটি আকাশে উড়তে পারে অনায়াসে। আর আকাশে তো উড়তে হবেই। নইলে এক রাতের মধ্যে বিশ্বের সব শিশুর জন্য তিনি কীভাবে উপহার নিয়ে আসবেন? তার রয়েছে খেলনার এক বিশাল কারখানা।

সে কারখানায় তৈরি হচ্ছে অসংখ্য খেলনা। সেগুলো তৈরি করছে এলফ নামে বিশেষ এক জাতের পরীর দল। এলফদের ছেলেপরিও বলা হয়। এলফরা সবসময় সান্টা-ক্লজের সঙ্গে থাকে। অনেক সময় তারা ঘরের চিমনি বেয়ে নেমে আসে। আর ঘরের ভেতর রেখে যায় উপহার।

কে ছিলেন সত্যিকারের সান্টা-ক্লজ তা নিয়ে গবেষকদের মধ্যে মতভেদ রয়েছে। তাদের অনেকে বলেন, সেইন্ট নিকোলাসের নাম থেকেই সান্টা-ক্লজের নামের উৎপত্তি। সেইন্ট নিকোলাস ছিলেন চতুর্থ শতাব্দীতে গ্রিসের একজন খ্রিস্টান সাধু।

তিনি ছিলেন খুব দয়ালু। দরিদ্র মানুষকে বিভিন্ন উপহার দেয়ার জন্য তিনি বিখ্যাত ছিলেন। সবাইকে নানাভাবে সাহায্য করতেন তিনি। তার আদলেই পরে সান্টা-ক্লজের ভাবমূর্তি গড়ে উঠেছে বলে মনে করা হয়। আবার যিশুর জন্মেও পর সাধুরা বিভিন্ন রকম উপহার নিয়ে এসেছিলেন পরিত্রাতা এই শিশুর জন্য।

সেখান থেকেও সান্টা-ক্লজের উপহারদাতা ইমেজ গড়ে উঠতে পারে বলে মনে করেন কোনো কোনো গবেষক। আবার প্রাক খ্রিস্টান যুগে নর্স পুরাণের ওডিন ছিলেন প্রধান দেবতা। ওডিনের ছিল লম্বা সাদা দাড়ি।

ওডিনের নামানুসারে ইউরোপের বিভিন্ন দেশে উৎসব ও উপহার দানের প্রথা ছিল। ওডিন অনেক সময় ঘরের চিমনি দিয়ে নেমে আসতেন এবং উপহার রেখে যেতেন।

পরবর্তীতে খ্রিস্টান যুগে সেই প্রথাই বদলে যায় বড়দিনে উপহার দানের প্রথায়। ওডিনের চেহারার ছাপ পড়ে সান্টা-ক্লজের উপর। সান্টা-ক্লজ সারাবিশ্বে বর্তমানে ক্রিসমাস উৎসবের অবিচ্ছেদ্য অংশে পরিণত হয়েছেন। ক্রিসমাসের রীতি ও লোকাচারের সঙ্গে মিশে গেছেন সান্টা-ক্লজ।
 


আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত