• বৃহস্পতিবার, ১৪ নভেম্বর ২০১৯
আল-মামুন    |    
প্রকাশ : ২৭ ডিসেম্বর, ২০১৭ ১৭:২৪:৫৩ প্রিন্ট
বাংলাদেশের হয়ে অনেক দিন খেলব: মেহেদী হাসান মিরাজ
বয়স ভিক্তিক দলে বোলিংয়ের পাশাপাশি দারুণ ব্যাটিং করেছেন মেহেদী হাসান মিরাজ। যুব দলের এই অধিনায়ক জাতীয় দলে ঢোকার পর থেকে বোলিংয়ে আলো ছড়ালেও ব্যাটিংয়ে সেভাবে ফোকাস করতে পারেননি। যুগান্তর অনলাইনের সঙ্গে আলাপকালে খুলনার এই অলরাউন্ডার জানান সামনে ব্যাটিংয়েও উন্নতির পরিকল্পনা আছে তার। মিরাজের সেই সাক্ষাৎকারের চুম্বক অংশ তুলে ধরা হলো। 
 
যুগান্তর : যুব দলে থাকাকালে বোলিংয়ের চেয়ে ব্যাটিংয়েই বেশি ফোকাস ছিল আপনার, কিন্তু জাতীয় দলে ঢোকার পর ব্যাটিংয়ে তেমন কোন সাফল্য দেখাতে পারেননি কেন?
মিরাজ : আসলে ব্যাটিং অবশ্যই আমি জানি। বর্তমানে বাংলাদেশ টিমে যে ব্যাটিং অর্ডার আছে, সেখানে আমাকে লেট অর্ডারে ব্যাটিং করতে হবে। তবে আমি হ্যাপি যে, সুযোগ পেলে কামব্যাক করব। হয়ত এখন হচ্ছে না। আমার ইচ্ছা আছে বাংলাদেশের হয়ে অনেক দিন খেলব এবং পরবর্তীতে ব্যাটিংটায় উন্নতি করে আরো উপরে খেলার চেষ্টা করব। এখন বোলার হিসেবে আছি আলহামদুলিল্লাহ (হাসি), দুইটায় ভালো অপারচুনিটি পেলে আমি করব। তবে বোলিংটা ভালো হচ্ছে, আমার কাছে বোলিংটা অনেক গুরুত্বপূর্ণ। আল্লাহর রহমতে সামনে আরো ভালো করার চেষ্টা করবো। 
 
যুগান্তর : বাংলাদেশের ক্রিকেটে মেহেদী হাসান মিরাজ, মেহেদী হাসান, মেহেদী মারুফ এবং মেহেদী হাসান রানাসহ অরো অনেক মেহেদী আছে। আপনার কি মনে হয় বাংলাদেশের ক্রিকেট মেহেদীর রঙে রাঙানো?
মিরাজ : (আবারও হাসি) হুম, খুব ভালো লাগে। মেহেদী আমার খুব ক্লোজ ফ্রেন্ড। বয়স ভিত্তিক দলে বলেন আর খুলনার বিভাগীয় দলে বলেন; সবখানেই আমি আর ও এক সঙ্গে খেলেছি। আর খুব ভালো লাগছে যে, ও জাতীয় দলে সুযোগ পেয়েছে। আমাদের খুলনা থেকে আরেকটা মেহেদী উঠে এসেছে। ওভারল খুব ভালো লাগছে। ওর জন্য দোয়া করি যেন জাতীয় দলে দীর্ঘদিন খেলতে পারে।
 
যুগান্তর : জাতীয় লিগের শেষ রাউন্ডে দশ উইকেট পেয়েছেন, সম্প্রতি প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে খুলনায় একটা জায়গা বুঝে পেয়েছেন। এ ব্যাপারে আপনার অনুভূতি যদি জানান?
 
মিরাজ : আসলে যেটা বলব ওটা আসলে আউট কাম। আর জমি যেটা পেয়েছি ভালো লাগছে। জাতীয় দলে সুযোগ পাওয়ার পর ইংল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম সিরিজে ম্যান অব দ্য টুর্নামেন্ট হয়ে বাংলাদেশকে টেস্টে জিতিয়ে ছিলাম। সেই উপলক্ষ্যে প্রধানমন্ত্রীর পক্ষ থেকে আমাকে খুলনাতে একটা জমি দেয়া হয়েছে। খুব ভালো লাগছে। এজন্য প্রধানমন্ত্রীকে অনেক অনেক ধন্যবাদ। উনি কথা দিয়ে কথা রেখেছেন। প্রধানমন্ত্রীর কাছ থেকে জমি পেয়ে আমিসহ আমার পরিবারের সবাই খুব খুশি। খুলনায় আমার একটা বাসস্থান হলো।
 
যুগান্তর : আপনাদের কোচ হাথুরুসিংহে এখন শ্রীলংকা দলের কোচ। প্রতিপক্ষ যখন শ্রীলংকা তখন আলাদা কোন পরিকল্পনা আছে কি?
মিরাজ : উনি আমাদের সঙ্গে কাজ করায় বাংলাদেশের ক্রিকেটারদের সম্পর্কে ভালো করেই জানেন। আমরাও কিন্তু ওনার সস্পর্কে জানি। তবে আগের চেয়ে আলাদা পরিকল্পনা করে আমাদের খেলতে হবে। 
 
যুগান্তর : ত্রিদেশীয় এবং দ্বিপাক্ষিক সিরিজে প্রতিপক্ষ শ্রীলংকা অনেক শক্তিশালী, আপনিসহ আপনার দল কি ভাবছে? 
মিরাজ : এবছর আমাদের অনেক খেলা আছে। সবচেয়ে বড় কথা হল সবাইকে ফিট থাকতে হবে। একটা টিমের সবাই শতভাগ ফিট থাকলে সবার কাছে থেকে সেরাটা পাওয়া যায়। আমাদের যারা আছে সবাই ফিট থাকলে আশা করি ভালো কিছু হবে। সবাই অনেক আশাবাদী। বিপিএল খেলছে, ঘরোয়া ক্রিকেটে খেলছে। আমি আশাবাদী যে আমাদের টিমটা ভালো কিছু করবে। 
 
যুগান্তর : ত্রিদেশীয় সিরজটা কেমন হতে পারে? 
মিরাজ : আসলে কেমন হবে তা বলা যায় না। তবে চেষ্টা করব ভালো কিছু করার জন্য। আল্লাহ যেটা লিখে রেখেছেন সেটাই হবে। আমাদের চেষ্টা থাকবে শতভাগ দেয়ার জন্য। টিমের সবাই হার্ডওয়ার্ক করছে। সিরিজের আগে যে কয়দিন সময় পাবো চেষ্টা করবো নিজেদের তৈরি করে নিতে। 
 
 
যুগান্তর : জাতীয় দলের নেতৃত্বের পরিবর্তন হয়েছে। এখন নতুন অধিনায়ক আপনাদের কোন ম্যাসেজ দিয়েছেন কি?
মিরাজ : আসলে ঐরকম কোন ম্যাসেজ না। আর এইটাতো এখন খেলা। একজন ক্যাপ্টেনতো থাকবেই। সবার সঙ্গে সবার বোঝাপড়া অনেক ভালো। অধিনায়ক আর সহ-অধিনায়ক ডাজেন্ট ম্যাটার। সবাই দেশের জন্য খেলছে। তবে সাকিব ভাই একটা কথাই বলেছেন, এবছর আমাদের অনেক খেলা আছে। সবাই ফিট থেকে নিজের সেরাটা দেয়ার জন্য বলেছেন। কোচও একই কথা বলেছেন। আমরা যদি আমাদের সেরাটা দিয়ে খেলতে পারি তাহলে বাংলাদেশ অরো অনেক উপরে যেতে পারবে। সেই সময়টা এখন আমাদের। 
 
যুগান্তর : আজ তো শুধু ফিটনেস টেস্ট হল। সবার ফিটনেস কেমন আছে? 
মিরাজ : ফিটনেস লেভেল সবার অনেক ভালো। আমাদের ট্রেইনার মারিও ভিল্লাভারায়েন বলেছেন এত খেলার পরেও সবার ফিটনেস লেভেল খুবই ভালো আছে। সাধারণত এরকম খেলার পর ফিটনসের এত ভালো থাকে না। তবে আমরা যদি ভালো করে অনুশীলন করতে পারি তাহলে এখন যে অবস্থায় আছে, সেখান থেকে ফিটনেস লেভেল আরো ভালো হবে।
 


আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত