• মঙ্গলবার, ২৮ জানুয়ারি ২০২০
আল আমিন তুষার, সোনারগাঁ থেকে -    |    
প্রকাশ : ০৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৭ ১৯:৫০:৫১ প্রিন্ট
ঈদের ছুটিতে বেড়ানো
সোনারগাঁয়ের বিনোদনকেন্দ্রে উপচেপড়া ভিড়

প্রিয়জনদের সঙ্গে ঈদের আনন্দ ভাগাভাগি করে নিতে বাংলার ঐতিহ্যবাহী রাজধানী সোনারগাঁয়ের পর্যটন নগরীগুলোতে দর্শনার্থীদের উপচেপড়া ভিড় লক্ষ্য করা গেছে।

সরেজমিন সোনারগাঁয়ের বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশন, বাংলার তাজমহল ও পিরামিড, ঐতিহাসিক পানাম নগরী, বারদী জ্যোতিবসুর বাড়ি, বৈদ্যেরবাজার মেঘনা নদীর ঘাট, কাইকারটেক ব্রিজসহ দর্শনীয় স্থানগুলো ভ্রমণপিপাসুদের মিলনমেলায় পরিণত হয়। বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশন দর্শনার্থীর ঈদ আনন্দ বাড়িয়ে দিতে লোকসঙ্গীতসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করে। এ ছাড়াও নৌপথে ট্রলারযোগে ও স্থলপথে পিকআপ ভ্যানযোগে আগত অনেক দর্শনার্থী তাদের সঙ্গে ট্যাম্পপ্যাড ও সাউন্ড সিস্টেম বিভিন্ন যন্ত্রাংশ বাজিয়ে ঈদ উৎসব উদযাপন করে।

এদিকে লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশন এলাকায় বিপুলসংখ্যক পর্যটকের সমাগম ঘটায় ফাউন্ডেশনের প্রধান ফটকের সামনে থেকে আশপাশের আট কিলোমিটার এলাকাজুড়ে তীব্র যানজটের সৃষ্টি হয়।  

 
সরেজমিন আরো দেখা মেলে, এবারের ঈদুল আজহার ছুটিতে বিনোদন স্পট, ঐতিহাসিক নির্দশনগুলো ও প্রকৃতির কাছাকাছি সময় কাটিয়ে ঈদ উদযাপন করার জন্য সোনারগাঁয়ের লোকশিল্প জাদুঘর, বাংলার তাজমহল, পিরামিড এবং পানাম সিটিসহ সোনারগাঁয়ের প্রতিটি বিনোদনকেন্দ্র ও দর্শনীয় স্থানগুলোতে বিভিন্ন বয়সের নারী, পুরুষ এবং শিশুদের সরব উপস্থিতি ছিল লক্ষ্যণীয়। সবচেয়ে বেশি পর্যটকদের উপস্থিতি ছিল শিল্পাচার্য জয়নুল আবদীনের নির্মিত বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশন এবং বাংলার তাজমহলে।

রঙ-বেরঙের পোশাকপরিহিত অনেক দর্শনার্থী ফাউন্ডেশন চত্বরের লেকে তাদের প্রিয়জনকে সঙ্গে নিয়ে নৌকা দিয়ে বেড়ানোর মাধ্যমে এবারের ঈদের আনন্দ উপভোগ করেন। শিশু-কিশোররা নাগর দোলায় দোল খেয়ে ঈদ আনন্দ উপভোগ করেছেন। অধিকসংখ্যক দর্শনার্থীর উপস্থিতির কারণে ঈদের দিন থেকেই  লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশন এবং বাংলার তাজমহল খোলা রাখা হয়।

দর্শনার্থীদের পদচারণায় মুখরিত হয়ে উঠেছিল লোক ও কারুশিল্প জাদুঘর প্রাঙ্গণ। এছাড়া দর্শনাথীদের আনন্দ উপভোগের জন্য বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশন দুই দিনব্যাপী লোকসঙ্গীতসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করে। দর্শনার্থীরা তাদের পরিবার-পরিজন, বন্ধু-বান্ধব ও প্রিয়জনদের নিয়ে এ আনন্দ উৎসব উপভোগ করেন। আগত দর্শনার্থীদের মধ্যে অনেকে জাদুঘরের ভেতর থাকা কারুপল্লি থেকে জামদানি শাড়ি ও হস্ত কারুশিল্পসহ বিভিন্ন সামগ্রী ক্রয় করেন।  

বাংলাদেশ লোক ও কারুশিল্প ফাউন্ডেশনের উপপরিচালক রবিউল ইসলাম জানান, এবারের ঈদুল আজহার দিন থেকে ফাউন্ডেশন এলাকায় পর্যটকদের উপচেপড়া ভিড় নামে। দর্শনার্থীদের ঈদ আনন্দ বাড়িয়ে দিতে ফাউন্ডেশন কর্তৃপক্ষ দুই দিনব্যাপী লোকসঙ্গীতের আসরসহ নানা অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করে।

এদিকে সোনারগাঁয়ের লোকশিল্প জাদুঘর ও বাংলার তাজমহল ছাড়াও পানাম সিটি, বারদীতে জ্যোতি বসুর বাড়ি, মেঘনা নদীর আনন্দবাজার, বৈদ্যের বাজার ঘাট ও কাইকারটেক ব্রিজ এলাকায় বিপুলসংখ্যাক দর্শনার্থী প্রচণ্ড তাপদাহ উপেক্ষা করে ঈদ আনন্দে মেতে ওঠেন।


আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত