প্রকাশ : ২৫ জুলাই, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
সবজি ও মাছের স্বাদ

রেসিপি দিয়েছেন জিন্নাত রায়হান সুমি, আলোকচিত্রী মনির আহমেদ

রুই চিচিঙ্গা

যা লাগবে : চিচিঙ্গা ২৫০ গ্রাম, রুই মাছের টুকরা ৭-৮টি, হলুদ গুঁড়া ১ চা চামচ, মরিচ গুঁড়া আধা চা চামচ, ধনিয়া গুঁড়া ১ চা চামচ, আদা বাটা আধা চা চামচ, রসুন বাটা আধা চা চামচ, পেঁয়াজ কুচি কোয়ার্টার চা চামচ, লবণ স্বাদমতো, ধনিয়া পাতা কুচি ১ টেবিল চামচ, তেল ৩+২ টেবিল চামচ, গরম পানি দেড় কাপ।

যেভাবে করবেন : মাছ কেটে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে অর্ধেক হলুদ ও লবণ মেখে রাখুন। চিচিঙ্গা খোসা ফেলে ধুয়ে লম্বা টুকরা করে কেটে নিন। প্যানে তেল দিয়ে মাছ ভেজে নিন। একটি কড়াইতে ২ টেবিল চামচ তেল দিয়ে পেঁয়াজ কুচি ভেজে আধা কাপ পানিতে সব মশলা গুলে দিন। মশলা কষানো হলে চিচিঙ্গা দিয়ে নেড়ে লবণ দিন। চিচিঙ্গা কষানোর সময় কোয়ার্টার কাপ পানি দিন। চিচিঙ্গা সেদ্ধ ও কষানো হলে গরম পানি দিন। ফুটিয়ে ঝোল থাকতেই ধনিয়া পাতা দিয়ে নামিয়ে নিন।



কাঁঠাল বিচি চিংড়ি ধুন্দুল কারি

যা লাগবে : ধুন্দুল ৫০০ গ্রাম, কাঁঠাল বিচি ২৫০ গ্রাম, চিংড়ি মাছ ২৫০ গ্রাম, পেঁয়াজ কুচি চার ভাগের এক কাপ, হলুদ গুঁড়া এক চা চামচ, মরিচ গুঁড়া এক চা চামচ, ধনে গুঁড়া দুই চা চামচ, আদা বাটা আধা চা চামচ, কাঁচামরিচ ফালি চার-পাঁচটি, লবণ স্বাদমতো, তেল তিন টেবিল চামচ।

যেভাবে করবেন : ধুন্দুল খোসা ফেলে ধুয়ে কিউব করে কেটে নিন। চিংড়ি মাছ কেটে ধুয়ে পানি ঝরিয়ে নিন। কাঁঠালের বিচি পরিষ্কার করে কেটে নিন। কড়াইতে তেল দিয়ে গরম হলে পেঁয়াজ কুচি দিন। পেঁয়াজ কুচি নরম হলে সব মশলা আধা কাপ পানিতে গুলে দিন। মশলা কষানো হলে চিংড়ি মাছ কষিয়ে নিন। চিংড়ি মাছ কষানো হলে কাঁঠালের বিচি দিয়ে আধা কাপ পানি দিন।

কাঁঠালের বিচি আধা সেদ্ধ হলে ধুন্দুল দিন। আঁচ মাঝারি থেকে ও কম রাখুন। ঢাকনা দেবেন না। আলাদা পানি লাগবে না। ধুন্দুলের গায়ের পানিতেই মাখা মাখা তরকারি হবে। নামানোর আগে কাঁচামরিচ ফালি দিয়ে নামিয়ে নিন।



সরষে পটোল

যা লাগবে : পটোল ৫০০ গ্রাম, সরিষা ৩ টেবিল চামচ, কাঁচামরিচ ৭-৮টি (রুচি অনুযায়ী), রসুন কোয়া ১টি (বড়) হলুদ গুঁড়া ১ চা চামচ, পেঁয়াজ কুচি আধা কাপ, লবণ স্বাদমতো, কালিজিরা আধা চা চামচ, সরিষার তেল ৩+২ টেবিল চামচ।

যেভাবে করবেন : পটোল খোসা ফেলে ধুয়ে ছুরি দিয়ে লম্বালম্বি দাগ টেনে দিন। এবার লবণ ও অর্ধেক হলুদ গুঁড়া মেখে রাখুন ৩০ মিনিট। কড়াইতে ৩ টেবিল চামচ তেল দিয়ে গরম হলে পটোল ভেজে তুলুন। এ পটোল ভাজা তেলের সঙ্গে আরও ২ টেবিল চামচম তেল দিয়ে পেঁয়াজ কুচি দিন। পেঁয়াজ কুচি নরম হলে দিন পটোল, সরিষা, কাঁচামরিচ, রসুন কোয়া আধা কাপ পানি এক চিমটি লবণ একসঙ্গে ব্লেন্ড করে পটোলের সঙ্গে দিয়ে দিন। স্বাদ দেখে লবণ দিন। ঢিমা আঁচে রান্না করুন ১০-১৫ মিনিট। একেবারে আঠালো হবে না। মাখা মাখা থাকবে।



পুঁই-ঝিঙা ইলিশ মিলমিশ

যা লাগবে : ঝিঙা ৫০০ গ্রাম (লম্বা করে কাটা), পুঁইশাক ৩০০ গ্রাম (কাটা-বাছা), ইলিশ লেজ-মাথাসহ পাঁচ-ছয় টুকরা, পেঁয়াজ কুচি তিন টেবিল চামচ, হলুদ গুঁড়া এক চা চামচ, মরিচ গুঁড়া আধা চা চামচ, কাঁচামরিচ ফালি সাত-আটটি, লবণ স্বাদমতো, তেল দুই টেবিল চামচ।

যেভাবে করবেন : কড়াইতে তেল দিয়ে পেঁয়াজ কুচি দিন। পেঁয়াজ কুচি নরম হলে হলুদ মরিচ ধনে গুঁড়া চার ভাগের এক কাপ পানিতে গুলে দিয়ে দিন। মশলা কষানো হলে মাছ দিয়ে কষান। প্রয়োজনে একটু পানি দিন। মাছ কষানো হলে তুলে রাখুন। মাছ কষানো মশলায় ঝিঙা দিন। ঝিঙা একটু নরম হলে শাক দিয়ে আধা কাপ গরম পানি দিন। ঝিঙা ও পুঁইশাক মজে এলে কষানো ইলিশ দিয়ে বলক তুলে নামিয়ে নিন।



ঢেঁড়স ডাল

যা লাগবে : ঢেঁড়স ২০০ গ্রাম, মুসুর ডাল ২৫০ গ্রাম, হলুদ গুঁড়া আধা চা চামচ, কাঁচামরিচ ফালি ৬-৭টি, রসুন ছেঁচা ৩-৪ কোয়া (বড়) পেঁয়াজ কুচি ১ টেবিল চামচ, লবণ স্বাদমতো, তেল ১ টেবিল চামচ।

যেভাবে করবেন : ডাল ধুয়ে ভিজিয়ে রাখুন ৩০ মিনিট। ঢেঁড়স ধুয়ে আধা ইঞ্চি টুকরা করে নিন। ডালে ২ কাপ পানি হলুদ গুঁড়া, রসুন ছেঁচা ও লবণ দিয়ে চুলায় দিন। ডাল সেদ্ধ হলে ঘুটে দিন। এবার ঢেঁড়সগুলো দিন। ঢেঁড়স আধা সেদ্ধ হলে কাঁচামরিচ ফালি দিন। একটি কড়াইতে তেল দিয়ে পেঁয়াজ বেরেস্তা করে ডাল ঢেলে দিন। একবার ফুটিয়ে নামিয়ে নিন।



পুরভরা কাঁকরোল

যা লাগবে : কাঁকরোল সাত-আটটি, টকদই এক টেবিল চামচ, চিংড়ি কিমা এক কাপ, তেল আধা কাপ, পেঁয়াজ কুচি এক কাপ, টুথপিক প্রয়োজনমতো, কাঁচামরিচ কুচি এক টেবিল চামচ, আদাবাটা এক+এক চা চামচ, রসুন বাটা এক+এক চা চামচ, পেঁয়াজ বাটা এক টেবিল চামচ, হলুদ গুঁড়া চার ভাগের এক ভাগ+চার ভাগের এক চা চামচ, মরিট গুঁড়া আধা চা চামচ (রুচি অনুযায়ী) জিরা গুঁড়া আধা চা চামচ+আধা চা চামচ, ধনিয়া পাতা কুচি চার ভাগের এক কাপ, লবণ-স্বাদমতো।

যেভাবে করবেন : পরিষ্কার কর ধুয়ে বোঁটার দিকে আধা ইঞ্চি পরিমাণ কেটে নিন। কাটা অংশটুকু রেখে দিন। এবার কাঁকরোলের ভেতরের বিচিগুলো কুরিয়ে বের করে ফেলুন। ফুটন্ত লবণ পানিতে কাঁকরোল তিন-চার মিনিট ভাঁপিয়ে ঠাণ্ডা পানিতে ধুয়ে নিন। চিংড়ি কিমা, পেঁয়াজ কুচি, কাঁচামরিচ কুচি, ধনিয়া পাতা কুচি, আদা-রসুন বাটা, হলুদ মরিচ জিরা গুঁড়া ও দুুই টেবিল চামচ তেল ও স্বাদমতো লবণ দিয়ে ভুনে নিন। ভুনাটা শুকনা শুকনা হবে।

কাঁকরোলের ভেতরে ঠেসে চিংড়ির পুর ভরে ছোট করে কাটা অংশটি টুথপিক দিয়ে আটকে দিন। প্রয়োজনে দুই-তিনটি টুথপিক ব্যবহার করুন। ফ্রাইপ্যানে তেল দিয়ে পুরভরা করলাগুলো চার-পাঁচ মিনিট ভেজে নিন। খেয়াল রাখুন সবুজভাব যেন ঠিক থাকে। কাঁকরোল ভাজা তেলে আরও একটু তেল দিয়ে এক টেবিল চামচ, পেঁয়াজ কুুচি দিয়ে নরম হলে অবশিষ্ট সব মশলা দই কষিয়ে ভাজা কাঁকরোল দিন। কাঁকরোল কষিয়ে আধা কাপ পানি দিন। মাখা মাখা হলে নামিয়ে ভাত বা পোলাউয়ের সঙ্গে পরিবেশন করুন।


 


আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত