ফারিন সুমাইয়া    |    
প্রকাশ : ২৬ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
শীতের যত অনুষঙ্গ

‘শীতের হাওয়ায় লাগল নাচন আমলকীর এই ডালে ডালে’। আসলেই শীতের হাওয়ার কাঁপন আর চারপাশের পরিবেশ জানিয়ে দেয় যে শীত তার কুয়াশার চাদর গায়ে চেপে চলে এসেছে ধরিত্রীর বুকে। সকালের সূর্যের মুখের দেরি করে দেখা পাওয়া আর সঙ্গে অলস প্রকৃতি খুব সহজেই বার্তা ছাড়াই তার আগমনের খবর পৌঁছে দেয় সবার মাঝে। ছোট ছোট রাস্তার মোড় থেকে শুরু করে দোকানগুলোতে দেখা যায় চায়ের কাপ হাতে মানুষের ভিড়। কখনও কখনও পিঠা তৈরির সরঞ্জাম নিয়েও বসে পড়েন অনেকেই শীতের আমেজকে আরও একটু বাড়িয়ে দিতে। ভাপা, চিতই, পাটিসাপটা আরও কত নামের পিঠার দেখা মেলে এসব পিঠার দোকানে! আবার অন্যদিকে কুয়াশার ঘোর কেটে সূর্যের সোনালি আলো চোখে পড়তেই শিশিরবিন্দুর উজ্জ্বল আলো ছড়িয়ে পড়ে চারদিকে আর শীতের আমেজকে নিজের সঙ্গেই বন্দি করে সবাই ছুটে চলেন কর্মস্থলের দিকে। শীতের এই মৌসুমে প্রকৃত কিছুটা নির্জীব হলেও তাতে দেখা মেলে নতুনত্বের। আর এ নতুনত্বের ক্ষেত্রে পোশাকের দেখা মিলে বেশ ভালোভাবেই। শীতের এই সঙ্গীদের মধ্যে তাই অন্যতম একটি পোশাক হচ্ছে শাল। তীব্র শীত থেকে শুরু করে হালকা শীতে নিজেকে খুব সহজেই শালের মাঝে জড়িয়ে নেয়া যায়। যে কোনো পোশাকের সঙ্গেই মানিয়ে যায় এই শাল। এই শালের মাঝে আছে নানা ধরন। কোনোটি সুতি শাল, উলের শাল, কোনোটি রেশমি, পশমি, খাদি শাল, কাশ্মীরি, কটন, সিল্ক আর তসর কাপড় ব্যবহার করেও তৈরি করা হয় এসব শাল। এসব শালকে নজরকাড়া করতে করা হয় নানা ডিজাইন। কখনও তাতে থাকে হাতের কাজ আবার কখনও প্রিন্ট কিংবা স্টোনের নানা বৈচিত্র্য। রঙের ক্ষেত্রে কালো, লাল, নীল, আসমানি, বেগুনি, কমলা এসব রঙের শালের ব্যবহার বেশি চোখে পড়ে। কখনও কখনও দুটি রঙের কাপড়ের মিশ্রণ করে তৈরি করা হয় এসব শাল। শীতের এ তীব্রতাতে ঠেকাতে শালেই কেবল সীমাবদ্ধ নেই ফ্যাশনপ্রেমীরা। তাই শীতের এ মৌসুমের অন্যতম একটি আকর্ষণ হচ্ছে কোটি। শাড়ি থেকে শুরু করে ওয়েস্টার্ন এবং সালোয়ার-কামিজের সঙ্গে খুব সহজেই মানিয়ে যায় এটি। এসব কোটির মাঝে কিছু কোটি আছে লম্বা, কিছু আছে মোটা কাপড়ের, কিছু আছে হাফ আবার কিছু আছে হাতাকাটা। শীতের প্রকোপের ওপর নির্ভর করে কোটির আকার এবং কাপড় নির্বাচিত করা হয়। শীতের এই কোটিগুলো মোটা কাপড় যেমন উল, খদ্দর, পশমি দিয়ে তৈরি করা হয়। এসব কোটির গলা গোল কিংবা চারকোণা আকৃতির হয়ে থাকে।

হালকা শীতে যা খুব সহজেই উষ্ণতার ছোঁয়া দিয়ে যায়। এ ছাড়া শীতের আরেকটি ফ্যাশনেবল পোশাক হচ্ছে পঞ্চ। এটি দেখতে ত্রিকোণাকৃত্রির কিন্তু পাঁচ কোনার কাপড়। এর গলা গোলাকার হয়ে থাকে। চাঁদর আর সোয়েটার এ দুটির আদলে এটি তৈরি। এটি একরঙা হয়ে থাকে বেশিরভাগ ক্ষেত্রে। ওয়েস্টার্ন পোশাকের সঙ্গে বেশি মানায় পঞ্চ। এ ছাড়া পঞ্চ ব্যবহারেও আরামদায়ক এবং সঙ্গে ফ্যাশনেবলও।

কোথায় পাবেন

যমুনা ফিউচার পার্ক, নিউমার্কেট, মৌচাক, রাজলক্ষ্মী, শাহবাগ আজিজ মার্কেট থেকে শুরু করে আপনার আশপাশের শপিংমলে।

দাম

খদ্দরের শালের দাম পড়বে ৭০০ থেকে ২৫০০ টাকার মধ্যে, সিল্কের শালের দাম পরবে ৬৫০ থেকে ২৮০০ টাকার মাঝে আর কাশ্মীরি শাল ৫০০ থেকে ৩৫০০ টাকার মাঝে। পঞ্চের দাম পড়বে ২৫০০ থেকে ৮০০০ টাকার মধ্যে আর কোটির দাম পড়বে ১৫০০ থেকে ২৫০০ টাকার মধ্যে।


 


আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত