বরিশাল ব্যুরো    |    
প্রকাশ : ২৬ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
বরিশাল সিটি কর্পোরেশন
দেড় কোটি টাকার জেনারেটর নিয়ে ঘাপলা তদন্তে কমিটি
বরিশাল সিটি কর্পোরেশনের (বিসিসি) দেড় কোটি টাকার ১০টি জেনারেটর নিয়ে ঘাপলার অভিযোগ অবশেষে আমলে নিয়েছে বরিশাল সিটি কর্পোরেশন প্রশাসন। রোববার প্রতিষ্ঠানটির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা মো. ওয়াহিদুজ্জামান প্রধান প্রকৌশলীকে উত্থাপিত অভিযোগ তদন্ত করে তিন কার্যদিবসের মধ্যে প্রতিবেদন প্রদানের নির্দেশ দিয়েছেন। অভিযোগ উঠেছে সিটি মেয়র ও প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তার অগোচরে তৎকালীন নির্বাহী প্রকৌশলী (পানি) ও সহকারী প্রকৌশলী ঠিকাদারের কাছ থেকে লেনদেনের বিনিময়ে গোপনে নিন্মমানের জেনারেটর গ্রহণ করেছেন।
প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা বলেন, ‘একাধিক গণমাধ্যমে এ বিষয়ে সংবাদ প্রকাশিত হয়েছে। আপাতত সে কারণেই প্রাথমিক তদন্তের নির্দেশ দিয়েছি। প্রতিবেদনে অভিযোগ বা অর্থ আত্মসাতের বিষয়টি উঠে এলে পরবর্তী ব্যবস্থা নেয়া হবে।’
পাঁচ বছর আগে ১০টি জেনারেটর সরবরাহের জন্য বরিশাল জনস্বাস্থ্য প্রকৌশল অধিদফতর বিদেশি অর্থায়নে প্রায় দেড় কোটি টাকা বরাদ্দ আনে। স্থানীয় ঠিকাদার মনজুরুল আহসান ফেরদৌস দরপত্রের মাধ্যমে জেনারেটর ক্রয়ের কার্যাদেশ পান। কিন্তু দরপত্র অনুযায়ী জেনারেটর কেনা হয়নি- এমন অভিযোগে তৎকালীন সিটি মেয়র শওকত হোসেন হিরন জেনারেটর গ্রহণ করেননি। এমনকি মেয়র ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠানের অনুকূলে বিল প্রদানে নিষেধাজ্ঞা আরোপ করেন। কিন্তু এর কয়েক মাস পর নির্বাচন চলে আসে। পরে নতুন মেয়র দায়িত্ব নেন। এর মধ্যে যে কোনো সময়ে দুই বিভাগের কয়েকজন প্রকৌশলী যোগসাজশ করে পুরো বিল উত্তোলন করে নেয় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান। এ ঘটনাটি গত কয়েকদিন ধরে জানাজানি হয়ে গেলে বিসিসির প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা তদন্ত কমিটি গঠন করেন। আগামী তিন কর্মদিবসের মধ্যে তদন্ত কমিটি এ বিষয়ে প্রতিবেদন পেশ করবে।



আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত