শাহ আলম খান    |    
প্রকাশ : ২৮ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
নতুন কোম্পানি আইন
পাওয়ার গ্রুপের সঙ্গে বাণিজ্য মন্ত্রণালয় বসছে ৩ জানুয়ারি
আইন হবে বাংলায়
নতুন কোম্পানি আইনের খসড়ার ওপর অধিকতর পর্যালোচনা ও বিতর্কিত ইস্যুতে আপত্তি দূর করে গ্রহণযোগ্য সিদ্ধান্তে পৌঁছানোর একটি পথ খোঁজা হচ্ছে। এর লক্ষ্যে আগামী ৩ জানুয়ারি জরুরি বৈঠকে বসছে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে। নতুন কোম্পানি আইন বাংলায় করা হবে। নতুন বছরের শুরুতে এ বহুল প্রতীক্ষিত আইনের চূড়ান্ত খসড়া প্রস্তুতের চেষ্টা চলছে।
এ প্রসঙ্গে যুগান্তরকে বাণিজ্য সচিব শুভাশীষ বসু জানান, নতুন কোম্পানি আইন সম্পূর্ণ বাংলা ভাষায় করা হবে। এটি সবার কাছে সহজবোধ্য ও বোধগম্য করা হবে। বাস্তবায়নের প্রক্রিয়াও হবে জটিলতামুক্ত। তিনি বলেন, সর্বোপরি নতুন কোম্পানি আইন হবে আধুনিক ও ব্যবসা-বাণিজ্যবান্ধব। সবার মতামত নিয়ে সহমতের ভিত্তিতে আইনটির চূড়ান্ত রূপ দেয়া হবে।
সূত্র জানায়, বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে বেলা ১১টায় বৈঠক শুরু হবে। এতে সরকারি-বেসরকারি এবং কোম্পানি আইন সংশ্লিষ্ট দেশের সব স্টেকহোল্ডার প্রতিনিধি উপস্থিত থাকবেন। বৈঠকে আইন, সুপারিশ ও সবার মতামতের মতৈক্যে পৌঁছানোর চেষ্টা করা হবে।
জানা গেছে, বিশ্বব্যাংকের অর্থায়নে বাংলাদেশ ইনভেস্টমেন্ট ক্লাইমেট ফান্ড (বিআইসিএফ) নতুন কোম্পানি আইন ২০১৩-এর খসড়া তৈরি করেছে। ওই খসড়ায় বর্তমান কোম্পানি আইনের সঙ্গে সাংঘর্ষিক ১০০টি ধারা সংশোধন ও ৩টি ধারা পুরোপুরি বিলুপ্তির সুপারিশ করেছে বিশেষজ্ঞ কমিটি। এর আগেও আইনটি নিয়ে একাধিক খসড়া তৈরি হয়। তবে বিআইসিএফের করা খসড়ার পথ ধরে কোম্পানি আইন প্রণয়নে এগোচ্ছে সরকার। নতুন কোম্পানি আইনে অন্তর্ভুক্তি ও সাংঘর্ষিক অবস্থা পরিহারে সহায়তা দিতে বিভিন্ন সময়ে পাওয়ার গ্রুপের স্টেকহোল্ডার হিসেবে পরিচিত বাংলাদেশ ব্যাংক, বীমা উন্নয়ন নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ, সিকিউরিটিজ অ্যান্ড এক্সচেঞ্জ কমিশনও (এসইসি) নিজেদের মতো করে সুপারিশ দিয়েছে। এছাড়া বিআইসিএফের করা খসড়ার বিভিন্ন ধারা-উপধারা বিলুপ্তি, পরিবর্তন বা সংশোধনের বিষয়ে দ্য ইন্সটিটিউট অব কস্ট ম্যানেজমেন্ট অ্যাকাউন্টস অব বাংলাদেশ, দ্য ইন্সটিটিউট অব চার্টার্ড অ্যাকাউন্টস অব বাংলাদেশ, ইন্সটিটিউট অব চার্টার্ড সেক্রেটারিজ অব বাংলাদেশ এবং বাণিজ্য সংশ্লিষ্ট সব সংগঠন নিজেদের স্বার্থসংশ্লিষ্টতা বজায় রেখে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ে লিখিত সুপারিশ দিয়েছে। দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা জানান, আগের কোম্পানি আইনটির সঙ্গে বর্তমান প্রণীত খসড়ার ২৫ শতাংশের বেশি সংশোধনের প্রয়োজন হচ্ছে। এ কারণে আইনটি নতুনভাবে প্রণয়ন করতে হচ্ছে। তবে এ আইন সংশোধনের প্রক্রিয়াটি বেশ জটিল। অসংখ্য স্টেকহোল্ডার আর ব্যবসার খাত-উপখাতের সম্পৃক্ততা ছাড়াও দেশে প্রচলিত সহস্রাধিক আইনের সঙ্গে এর প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষ সম্পর্ক রয়েছে।
জানা গেছে, কোম্পানি আইন ১৯৯৪-এর সংশোধনীর পরিবর্তে ২০১১ সালে নতুন কোম্পানি আইন প্রণয়নের উদ্যোগ নেয় সরকার। নতুন কোম্পানি আইন প্রণয়নের লক্ষ্যে ওই সময়ে তিন দফা কোম্পানি আইন সংস্কার কমিটি গঠন ও বদল করা হয়।



আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত