স্পোর্টস রিপোর্টার    |    
প্রকাশ : ১৪ অক্টোবর, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
চার সেঞ্চুরির দিনে সাত হাজারি ক্লাবে নাঈম

দক্ষিণ আফ্রিকা সফরে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানরা যখন খাবি খাচ্ছেন, দেশের ঘরোয়া ক্রিকেটে তখন রানের বন্যা বইছে। শুক্রবার জাতীয় ক্রিকেট লীগে ব্যাটসম্যানদের জন্য দারুণ একটি দিন কেটেছে। পঞ্চম রাউন্ডের প্রথমদিনে সেঞ্চুরি হয়েছে চারটি। রংপুরের নাঈম ইসলাম (১২০*) ও সোহরাওয়ার্দী শুভ (১৪৫) ঢাকার বিপক্ষে সেঞ্চুরি করেছেন। বাংলাদেশের ব্যাটসম্যানদের মধ্যে প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে সর্বোচ্চ ২৪টি সেঞ্চুরি করা তুষার ইমরানকে ধরতে নাঈমের প্রয়োজন আর মাত্র একটি সেঞ্চুরি। এদিন ঢাকা মেট্রোর বিপক্ষে সিলেটের ইমতিয়াজ হোসেন (১৩২) এবং বরিশালের বিপক্ষে খুলনার রবিউল ইসলামও (১০৮) সেঞ্চুরি করেছেন। এছাড়া পাঁচ রানের জন্য সেঞ্চুরি মিস করেছেন চট্টগ্রামের সাজ্জাদুল হক (৯৫)। চার সেঞ্চুরির দিনে দেশের সপ্তম ব্যাটসম্যান হিসেবে প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে সাত হাজার রানের মাইলফলক পেরিয়েছেন নাঈম। তার আগে সাত হাজারি ক্লাবে নাম লিখিয়েছেন তুষার ইমরান, অলক কাপালী, রাজিন সালেহ, ফরহাদ হোসেন, মোহাম্মদ আশরাফুল ও শাহরিয়ার নাফীস।

খুলনায় ঢাকার বিপক্ষে ৫৫ রানের মধ্যেই তিন উইকেট হারিয়ে ফেলে রংপুর। কিন্তু চতুর্থ উইকেটে নাঈম ইসলাম ও সোহরাওয়ার্দী শুভ ২৬৬ রানের জুটি গড়ে দলকে পথ দেখান। সেঞ্চুরি করেছেন দু’জনেই। নাঈম ২১৪ বলে ১৫টি চার ও দুটি ছক্কায় ১২০ রানে অপরাজিত রয়েছেন। প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে এটি নাঈমের ২৩তম সেঞ্চুরি। ২৪ সেঞ্চুরি নিয়ে নাঈমের ওপরে রয়েছেন শুধু তুষার ইমরান। এবার লীগের প্রথম ম্যাচে নাঈম করেছিলেন ১৩৫ রান। সোহরাওয়ার্দী শুভর সুযোগ ছিল নিজেকে ছাড়িয়ে যাওয়ার। এর আগে তার সর্বোচ্চ রান ছিল ১৫১। প্রথম শ্রেণীর ক্যারিয়ারের চতুর্থ সেঞ্চুরি করা সোহরাওয়ার্দী দিনের শেষ ওভারে ১৪৫ করে আউট হন। ৮৯.২ ওভারে চার উইকেট হারিয়ে রংপুর করেছে ৩২১ রান। ঢাকার শুভগত হোম তিনটি উইকেট নেন। রাজশাহীতে রবিউল ইসলামের সেঞ্চুরি এবং তুষার ইমরান (৫১) ও জিয়াউর রহমানের (৫২*) হাফ সেঞ্চুরিতে বরিশালের বিপক্ষে খুলনা চার উইকেটে ৩০৭ রান করেছে। ১৯৬ বলে ১৭টি চারে ১০৮ রানে রিটায়ার্ড হার্ট হন রবিউল। প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে এটি তার দ্বিতীয় সেঞ্চুরি। দুটি শতকই করেছেন এবারের লীগে। তুষার এবারের লীগে পেয়েছেন চতুর্থ হাফ সেঞ্চুরি। এছাড়া জিয়াউর রহমান ৫২* রানে অপরাজিত রয়েছেন। বরিশালের সালমান দুটি উইকেট নেন।

এদিকে চট্টগ্রামে ঢাকা মেট্রোর বিপক্ষে সিলেটকে টেনে তুলেছেন ইমতিয়াজ হোসেন। প্রথম শ্রেণীর ক্রিকেটে ক্যারিয়ারের দশম সেঞ্চুরির পথে ২১৭ বলে ১৭ চারে ১৩২ করেন তিনি। তার দারুণ ইনিংসের পরও সিলেট প্রথমদিন শেষে ছয় উইকেটে ২৪১ রান তুলেছে। দুটি করে উইকেট নেন সৈকত আলী, নিহাদ উজ জামান ও শরিফউল্লাহ। বগুড়ায় দিনের অপর ম্যাচে রাজশাহীর বিপক্ষে ২৬০ রানে অলআউট হয়েছে চট্টগ্রাম। সাজ্জাদুল হক ১৭৬ বলে ৯৫ করে আউট হয়ে সেঞ্চুরি মিস করেন। হাফ সেঞ্চুরি করেন সাঈদ সরকারও (৭০)। রাজশাহীর ফরহাদ রেজা চারটি এবং দেলোয়ার হোসেন ও শরিফুল ইসলাম তিনটি করে উইকেট নেন। জবাবে নয় ওভারে দুই উইকেট হারিয়ে ৩৪ রান করেছে রাজশাহী।

সংক্ষিপ্ত স্কোর

রংপুর ও ঢাকা

রংপুর প্রথম ইনিংস ৩২১/৪, ৮৯.২ ওভারে (সায়মন আহমেদ ৩১, নাঈম ইসলাম ১২০*, সোহরাওয়ার্দী শুভ ১৪৫। শুভাগত হোম ৩/৯৫, মোশাররফ হোসেন ১/৬৪)।

চট্টগ্রাম ও রাজশাহী

চট্টগ্রাম প্রথম ইনিংস ২৬০/১০, ৭২.৪ ওভারে (জসিম ২২, ইরফান শুকুর ৩১, সাজ্জাদুল ইসলাম ৯৫, সাঈদ সরকার ৭০। ফরহাদ রেজা ৪/৮৬, দেলোয়ার হোসেন ৩/৬৯, শরিফুল ইসলাম ৩/৪৯)।

রাজশাহী প্রথম ইনিংস ৩৪/২, ৯ ওভারে (সাব্বির হোসেন ৯, মিজানুর রহমান ২০*। মেহেদী হাসান রানা ১/২০, শাখাওয়াত হোসেন ১/৪)।

খুলনা ও বরিশাল

খুলনা প্রথম ইনিংস ৩০৭/৪, ৯০ ওভারে (রবিউল ইসলাম রবি ১০৮, এনামুল হক বিজয় ৪৪, তুষার ইমরান ৫১, মোহাম্মদ মিঠুন ৩৮, জিয়াউর রহমান ৫২*। সালমান ২/৬০, সোহাগ গাজী ১/৬৬)।

ঢাকা মেট্রো ও সিলেট

সিলেট প্রথম ইনিংস ২৪১/৬, ৯০ ওভারে (ইমতিয়াজ হোসেন ১৩২, রাজিন সালেহ ৪২, এজাজ আহমেদ ২৭। সৈকত আলী ২/৩৫, নিহাদ উজ জামান ২/৬৯, শরিফউল্লাহ ২/৬৭)।


 


আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত