প্রকাশ : ২৮ ডিসেম্বর, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
এমবাপ্পের কাছে অতীত রিয়াল ও রোনাল্ডো
তার মাঝে ভবিষ্যতের বিশ্বসেরার ছায়া দেখছেন খোদ দিয়েগো ম্যারাডোনা। মাত্র ১৯ বছর বয়সেই মহাতারকা হয়ে ওঠার পথে কিলিয়ান এমবাপ্পে। মোনাকো ও পিএসজির হয়ে এ বছর তার জাদুকরী ফুটবল মন্ত্রমুগ্ধ করে রেখেছিল সবাইকে। মোনাকোর জার্সিতে নাটকীয় উত্থানের পর তাকে দলে পেতে হুমড়ি খেয়ে পড়েছিল বড় দলগুলো। সেই তালিকায় সবার উপরে ছিল রিয়াল মাদ্রিদের নাম। কিন্তু নিজের প্রিয় দলের লোভনীয় প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়ে চলতি মৌসুমের শুরুতে পিএসজিতে নাম লেখান এই ফরাসি ফরোয়ার্ড। চ্যাম্পিয়ন্স লীগের শেষ ষোলোতে এবার সেই রিয়ালের সামনেই পড়েছে পিএসজি। নতুন বছরের শুরুতে বার্নাব্যু জয়ের মিশনে মাদ্রিদে আসার আগে স্প্যানিশ ক্রীড়াদৈনিক মার্কার মুখোমুখি হলেন এমবাপ্পে। দীর্ঘ সাক্ষাৎকারে নিজের উত্থান এবং ক্লাব ও আন্তর্জাতিক ক্যারিয়ারের প্রসঙ্গ ছুঁয়ে গেলেন ফরাসি সেনসেশন। দলবদল নিয়ে রিয়ালের সঙ্গে আলোচনার বিষয়টি স্বীকার করার পাশাপাশি রিয়ালের প্রস্তাব ফিরিয়ে দেয়ার কারণটাও ব্যাখ্যা করলেন এমবাপ্পে, ‘আমি রিয়ালের প্রস্তাব ফিরিয়ে দিয়েছিলাম, কারণ পিএসজি আমার নিজের শহরের ক্লাব। তাই আমি পিএসজিতেই খেলতে চেয়েছি। সবকিছু যেভাবে এগোচ্ছে তাতে আমি খুবই খুশি। আমার দলবদল নিয়ে গুঞ্জন ছিল। এটা সত্যি যে, রিয়ালের সঙ্গে আমার কথা হয়েছিল। তবে আমি মনে করি, সেটা এখন আমার ও রিয়াল মাদ্রিদের জন্য অতীত। এখন পিএসজিই আমার ধ্যানজ্ঞান।’
নিজের সিদ্ধান্তকে সঠিক প্রমাণ করতেই হয়তো পিএসজির হয়ে নতুন ইতিহাস গড়ার স্বপ্ন দেখছেন এমবাপ্পে। ‘বিশ্বের সেরা দল রিয়াল মাদ্রিদ। টানা দু’বার চ্যাম্পিয়ন্স লীগ জিতেছে তারা। আমরা এগোচ্ছি। বিশ্বসেরা হওয়া পিএসজির লক্ষ্য। আমরা জানি, বার্নাব্যুতে কিছু প্রমাণ করার আছে আমাদের। এই ম্যাচটি পিএসজির ইতিহাস বলে দিতে পারে। আমরা গোটা বিশ্বকে নিজেদের মান দেখাতে চাই। টানা দু’বারের ইউরোপিয়ান চ্যাম্পিয়নদের যে আমরা বিদায় করে দিতে পারি, সেটা দেখানোর দারুণ সুযোগ এটি। আমরা নিজেদের স্টাইলে খেলেই পরের পর্বে যেতে চাই,’ বলেছেন এমবাপ্পে।
শৈশবের হিরো ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর মুখোমুখি হওয়া নিয়ে আলাদা রোমাঞ্চ থাকলেও মাঠে প্রতিপক্ষকে একচুল ছাড় দেবেন না এমবাপ্পে, ‘ক্রিশ্চিয়ানো আমার শৈশবের হিরো। তার বিপক্ষে খেলাটা বিশেষ কিছু। কিন্তু মাঠে নামলে আমার কাছে জয়ই শেষ কথা। কার বিপক্ষে খেলছি, তা নিয়ে না ভেবে আমরা শুধু জিততে চাই। শৈশবে তাকে পছন্দ করলেও সেটা এখন অতীত। এখন আমি বার্নাব্যুতে যাব খেলতে এবং জিততে।’
পিএসজির বিশ্বসেরা আক্রমণ ভাগের দুই সহযোদ্ধা নেইমার ও কাভানিকে নিয়ে মুগ্ধতা ঝরেছে এমবাপ্পের কণ্ঠে। বিশেষ করে নেইমারকে নিয়ে। রিয়াল কোচ জিনেদিন জিদানেরও বড় ভক্ত এমবাপ্পে, ‘ফ্রান্সে সবাই জিদানকে ভালোবাসে। আসলে যারা ফুটবল ভালোবাসেন তারা সবাই জানেন, জিদান বিশেষ একজন। খেলোয়াড় ও কোচ হিসেবে তার যে অর্জন, তাতে একজন ফরাসি হিসেবে আমি গর্বিত।’ জিদানের মতো এমবাপ্পেও ফ্রান্সকে বিশ্বকাপ জেতাতে চান, ‘স্পেন, ইংল্যান্ড, ব্রাজিল ও আর্জেন্টিনার মতো ফ্রান্সও এবার ফেভারিট। রাশিয়ায় আমরা সেটা দেখাতে চাই।’
সবশেষে নতুন বছরে নিজের দুটি চাওয়ার কথা জানালেন এমবাপ্পে, ‘পিএসজির হয়ে চ্যাম্পিয়ন্স লীগ এবং ফ্রান্সের হয়ে বিশ্বকাপ জিততে চাই।’ ওয়েবসাইট।



আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত