ডা. রাজাশিস চক্রবর্তী    |    
প্রকাশ : ৩০ জানুয়ারি, ২০১৬ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
হাঁপানি কমান বাসায় বসে
মেডিসিন ও বক্ষব্যাধি বিশেষজ্ঞ, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়
হাঁপানি রোগীদের জন্য শীতকালটা কঠিন সময়। কখন বাড়াবাড়ি রকমের শ্বাসকষ্ট শুরু হয়ে যায়, সে জন্য তাদের সতর্ক থাকতে হয়। হিমেল শুষ্ক বাতাস, ধুলাবালি, উড়ন্ত রেণু, পাতার গুঁড়া ইত্যাদির সংস্পর্শে হাঁপানি রোগীর অতি সংবেদনশীল শ্বাসতন্ত্র বেশি আক্রান্ত হয়। ফলে হঠাৎ বেড়ে যেতে পারে শ্বাসকষ্ট, কাশি ও বুকের আওয়াজ।
এ পরিস্থিতিতে কী করবেন-
শ্বাসকষ্ট যদি এতটাই বেড়ে যায় যে ঠিকমতো কথাও বলতে পারেন না, বুকের ভেতর বাঁশির মতো শব্দ হয় অথবা কাশির দমক বেড়ে যায় বুঝবেন আপনার হাঁপানি মারাত্মক হয়ে উঠেছে। সঙ্গে জ্বর ও কাশি থাকলে ধরে নেয়া যায়, জীবাণু সংক্রমণও হয়েছে। হাঁপানি রোগীদের ভাইরাস সংক্রমণ ও হঠাৎ জটিল রূপ নিতে পারে। তাই উপসর্গের এই পরিবর্তনগুলোকে ঠিকমতো গুরুত্ব দিন।
* হঠাৎ উপসর্গ বেড়ে গেলে প্রথমেই আপনার নিয়মিত ব্যবহার্য ইনহেলার প্রতি ২০ থেকে ৩০ মিনিট পর পর কয়েকবার নিতে থাকুন।
* শ্বাসতন্ত্র বেশি সংকুচিত হয়ে গেলে ইনহেলার ভেতরে প্রবেশ করতে পারে না। সে ক্ষেত্রে নেবুলাইজার যন্ত্রের সাহায্য নিতে পারেন। বাড়িতে নেবুলাইজার থাকলে ভালো, নয়তো কাছের যে কোনো সেবাকেন্দ্রে গিয়ে তা নিতে পারেন। বাড়িতে ব্যবহার করলে ভালো করে হাত ধুয়ে চিকিৎসকের নির্দেশমতো ওষুধ ও স্যালাইন মিশিয়ে ব্যবহার করুন।
* হাঁপানি রোগীদের পিক ফ্লো মিটার নামক যন্ত্র বাড়িতে রাখা উচিত। শ্বাসকষ্ট বাড়লে এই মিটার ব্যবহার করে তীব্রতা বোঝা যায়। সেখানে আপনার স্বাভাবিক শ্বাস গ্রহণ ক্ষমতার ৫০ থেকে ৭৯ শতাংশে নেমে এলে বুঝতে হবে সমস্যা বেড়ে গেছে।
* শ্বাসকষ্ট বেড়ে গেলে স্বল্পমেয়াদি স্টেরয়েড ওষুধের একটি কোর্স খাওয়া যায়। তবে সে জন্য অবশ্যই চিকিৎসকের পরামর্শ নিতে হবে। আগেই এ বিষয়ে চিকিৎসকের সঙ্গে কথা বলে নিতে পারেন।
* বাড়িতে ইনহেলার বা নেবুলাইজার ব্যবহার করেও কোনো সুফল না পেলে অবশ্যই হাসপাতালে যেতে হবে। কেননা হঠাৎ হাঁপানি বেড়ে গেলে তা থেকে মারাত্মক জটিলতা, এমনকি রেসপিরেটরি ফেইলিউর হতে পারে। এক্ষেত্রে হয়তো অক্সিজেন ও শিরায় ওষুধের প্রয়োজন হতে পারে।




আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত