সাব্বিন হাসান    |    
প্রকাশ : ২৪ জুলাই, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
লক্ষ্য থাকলেই এগিয়ে যাওয়া যায়

করপোরেট দুনিয়ায় ম্যারি নামে পরিচিতি। পুরো নাম ম্যারি তেরেসা বারা। জন্ম ১৯৬১ সালের ২৪ ডিসেম্বর। বিশ্বের অটোমোবাইল ব্যবসায় সর্ববৃহৎ দায়িত্বে প্রথম কোনো নারী হিসেবে ম্যারি বারা সব সময়ই আলোচিত।

সর্বশেষ বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাবান ৭৪ ব্যক্তির একটি তালিকা দিয়েছে বিখ্যাত ফোর্বস সাময়িকী। এ তালিকায় মাত্র ছয়জন নারী আছেন। ফোর্বস-এর এ তালিকায় জেনারেল মোটরসের (জিএম) সিইও ম্যারি বারা আছেন ৬২তম অবস্থানে।

২০১৮ সাল থেকেই হাজারো স্বচালিত বৈদ্যুতিক গাড়ির পরীক্ষা করার পরিকল্পনা করছে মার্কিন গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠান জেনারেল মোটরস। পরিকল্পনা অনুযায়ী অ্যাপভিত্তিক ট্যাক্সি সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান লিফট-এর সঙ্গে স্বচালিত গাড়ির পরীক্ষা করবে জিএম। পরীক্ষায় নামলে ২০২০ সালের আগে এটিই হতে পারে কোনো মূল গাড়ি নির্মাতা প্রতিষ্ঠানের সবচেয়ে বড় পরিসরে স্বয়ংক্রিয় গাড়ির পরীক্ষার উদ্যোগ। এসব ভাবনা আর পরিকল্পনার পেছনে যার নাম উঠে আসে তিনিই ম্যারি বারা।

গত ডিসেম্বরে জেনারেল মোটরসের প্রধান নির্বাহী ম্যারি বারা জানিয়েছিলেন, ২০১৭ সালে বোল্ট ইভি মডেলের স্বয়ংক্রিয় সংস্করণ তৈরির পরিকল্পনা আছে। এরই মধ্যে যুক্তরাষ্ট্রের স্যান ফ্রান্সিসকো, স্কটসডেল এবং অ্যারিজনায় ৪০টি বোল্ট এভি গাড়ির পরীক্ষা করেছে প্রতিষ্ঠানটি। সুদীর্ঘ ১৮ বছর জেনারেল মোটরসের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্বের বিবেচনায় তিনি পেয়েছেন জেনারেল মোটরসের নেতৃত্ব। দায়িত্ব গ্রহণের তিন মাসের মধ্যেই বিখ্যাত টাইম ম্যাগাজিনের হিসেব মতে, বিশ্বের একশজন প্রভাবশালী ব্যক্তির তালিকায় জায়গা করে নিয়েছেন ম্যারি।

নতুন করে আলোচনায় এসেছেন বিশ্বের সবচেয়ে ক্ষমতাধর নারীদের তালিকার ষষ্ঠ অবস্থানে এসে। বিখ্যাত ফোর্বস ম্যাগাজিন সর্বশেষ এ তালিকা প্রকাশ করেছে। এ তালিকায় ৩৫তম অবস্থান থেকে উঠে এসে তিনি এখন শীর্ষ দশে জায়গা করে নিয়েছেন।

বাবার সূত্রে ম্যারি ফিনিশ বংশোদ্ভূত। বিয়ে করেছেন বিশেষজ্ঞ টনি বারাকে। সংসার জীবনে দুই সন্তানের সফল মা। থাকছেন নর্থভ্যালি শহরে। তার পছন্দের গাড়ি পনটিয়াক ফায়ারবার্ড আর সেভরোলেট ক্যামারো। তার বয়স তখন সবে ১৮। ওই বয়সেই জিএম মোটরসে কাজ শুরু করেন ম্যারি। ইলেকট্রিক্যাল ইঞ্জিনিয়ারিং নিয়ে পড়াশোনা করে ফেলোশিপ করেন ব্যবসা প্রশাসনে। একে একে উপরের দিকে উঠতে থাকেন ম্যারি। জিএম জনপ্রশাসনের কাজেও (জিএম) সফল হন তিনি। অদম্য ইচ্ছা আর প্রতিটি গুরুত্বপূর্ণ পদে কৌশলীভাবে এগিয়ে যাওয়ার পথে কোনো বাঁধাই তাকে সফলতা থেকে আটকাতে পারেনি।

সিইও হওয়ার আগে ম্যারি জেনারেল মোটরসের (জিএম) গ্লোবাল প্রডাক্ট ডেভেলপমেন্ট, পারচেস এবং সাপ্লাই চেইনের মতো কঠিন বিভাগের কাজগুলো দক্ষতার সঙ্গে পরিচালনা করে নিজের ক্ষমতার প্রমাণ দিয়েছেন। সিইও হন ২০১৪ সালের ১৫ জানুয়ারি। বিশ্বের ব্যবসা-বাণিজ্যে সবচেয়ে প্রভাবশালী নারী জেনারেল মোটরসের (জিএম) প্রধান নির্বাহী হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন ম্যারি বারা। পুরুষ প্রধান গাড়ি নির্মাণ শিল্পে প্রথম কোনো বড় প্রতিষ্ঠানের নেতৃত্বে ২০১৪ সালে জানুয়ারিতে অভিষিক্ত হন ৫২ বছর বয়সী এ চ্যালেঞ্জিং নারী।

বিশ্বের ব্যবসা অঙ্গনের প্রভাবশালী ম্যাগাজিন ফরচুন তৈরি নারীদের তালিকাতেও ম্যারির অবস্থান প্রথম সারিতে এখন। এ সাময়িকীর তথ্য মতে, ব্যবসা দুনিয়ার ক্ষমতাধর নারী হওয়া দূরের কথা, ম্যারি হচ্ছেন এমন এক প্রধান, যিনি এ ধরনের তালিকায় নিজের নাম দেখার কথা নিয়ে কখনই ভাবেননি। ফরচুনের প্রতিবেদনে ম্যারি বারা সম্পর্কে বলা হয়, নতুন এ ক্ষেত্রে নারীর পদচারণার সুফল পেতে শুরু করেছে বৈশ্বিক এ প্রতিষ্ঠান। এত বৃহৎ একটি আন্তর্জাতিক প্রতিষ্ঠানের গুরুদায়িত্বে বসে ম্যারি অবিচল কাজ করছেন। নব্য আর ভবিষ্যৎ ধ্যানধারণা অবয়বে ঢেলে সাজাচ্ছেন জেনারেল মোটরসকে।

অনেক প্রতিকূলতাকে পেছনে ফেলে জীবনের কঠিন প্রতিযোগিতায় সাহসী আর সফল নারীদের একজন ম্যারি। আর ঈর্ষণীয় এ সফলতার পেছনের গল্পে আছে সুকৌশলে পরিস্থিতি মোকাবেলা করার দারুণ ক্ষমতা। সারা বিশ্বের ৬টি মহাদেশে ছড়িয়ে থাকা ৩৯৬টি কারখানা ও একটি বড় পরিচালন নেটওয়ার্কের ২ লাখ ১২ হাজার কর্মীর নেতৃত্বে আছেন একজন নারী। অথচ ২০০৯ সালে দেউলিয়া হওয়ার মতো অবস্থা থেকে জেনারেল মোটরসকে এক অর্থে টেনে তোলে যুক্তরাষ্ট্র সরকার। ২০১৩ সালের শেষদিকে কিছুটা লোকসানেই নিজেদের শেয়ারগুলো বাজারে বিক্রি করে প্রতিষ্ঠানকে পুরোপুরি বেসরকারি খাতে ছেড়ে দেয় মার্কিন সরকার। বিশ্বের অটোমোবাইল বাজার মানেই চড়াই-উৎরাইয়ের গোলক ধাঁধা। দূরদর্শী আর গ্রাহক চাহিদার সঙ্গে তাল মিলিয়ে চলতে না পারলে হোঁচট খেতে হয় যে কোনো গাড়ি নির্মাতাকে। এ ধরনের শিল্পে নারী নেতৃত্বের খুব বেশি নজির নেই। তাছাড়া জেনারেল মোটরস যখন মুনাফাবিমুখ অবস্থানে, এমন অবস্থায় এত বিশাল একটি প্রতিষ্ঠানের দায়িত্ব নেয়ায় পুরো বিশ্বের ব্যবসা অঙ্গনেই শুরু হয় সমালোচনার বৈরী ঝড়। এসব সমালোচনা-আলোচনার তোয়াক্কা না করে দায়িত্ব নিয়ে কাজ শুরু করেছেন ম্যারি। সুদীর্ঘ কাজের অভিজ্ঞতা থাকায় প্রতিষ্ঠানের সব ধরনের যোগ্য কর্মীকেই তিনি চিনতেন। এরই মধ্যে কিছু প্রতিকূলতা থাকলেও জেনারেল মোটরস এগিয়ে যেতে শুরু করেছে ভবিষ্যতের গাড়ি তৈরিতে।

ব্যক্তি জীবনে চ্যালেঞ্জিং পেশা নিয়ে ক্যারিয়ার গড়েছেন ম্যারি। তাই দিনশেষে প্রাপ্তিটাও অসামান্য। গাড়ি শিল্পে নারীর সাফল্যের ইতিহাসে তাই ম্যারি বারা অপ্রতিরোধ্য আর প্রেরণার আরেক নাম। এ বছরের শেষ নাগাদ আরও চমকের আভাস দিয়েছেন ম্যারি। তবে তা এখনই জানা যাবে না। গাড়ি ভক্তদের জন্য ইন্টারনেট শিল্পকে নতুন করে সাজাচ্ছেন ম্যারি। অপেক্ষা তাই সময়ের। নতুন ঘরানার গাড়ি দিয়ে গাড়িপ্রেমীদের চমকে দিতে ম্যারি কাজ করছেন স্বয়ংক্রিয় গাড়ি নিয়ে। তাই স্বয়ংক্রিয় চালকহীন গাড়ির ইতিহাসে জুড়ে যাচ্ছে ম্যারির নাম।


 


আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত