logo
অস্কার পাননি তাতে কী আসে যায়!
    |    
প্রকাশ : ১৬ মার্চ, ২০১৭ ০০:০০:০০
বিশ্ব চলচ্চিত্রের সবচেয়ে সম্মানজনক পুরস্কার হিসেবে ধরা হয় অস্কারকে। তাই একজন শিল্পী অস্কার পাওয়াকে তার কাজের সর্বোচ্চ স্বীকৃতিই ভাবেন। এ পুরস্কার পেয়ে নিজেকে আবিষ্কার করেন অন্য দিগন্তের তারকা হিসেবে। বিশ্বসেরা এ পুরস্কার নিয়ে কিন্তু বিতর্কও কম নয়। এমনও অভিনেতা রয়েছেন যারা বিশ্বের কোটি কোটি দর্শকদের জনপ্রিয়তার তালিকায় থাকলেও এ পুরস্কার জোটেনি তাদের ললাটে। কিংবা অভিনয় দক্ষতায় নিজেকে অন্য মাত্রায় নিয়ে গেলেও অস্কার কর্তৃপক্ষ তালিকায় আনেননি তাদের। তবে যে যাই বলুক অস্কার পুরস্কার জয় মানেই তার অসাধারণ অভিনয়ের চূড়ান্ত স্বীকৃতিটা পেয়েছেন তিনি। আর যারা অসাধারণ অভিনয় শিল্পী হয়েও এখন পর্যন্ত অস্কার ট্রুফি নিতে পারেননি তাদের কী বলবেন আপনি? তাই এটাকে ভাগ্যের নির্মম পরিহাস বলেই চালিয়ে দিতে হবে। ভাগ্যের এ নির্মম পরিহাস থেকে কিছুদিন আগে উতরে গিয়েছেন ‘টাইটানিক’খ্যাত অভিনেতা লিওনার্দো ডিক্যাপ্রিও। তবে ভাগ্য সুপ্রসন্ন হয়নি জনি ডেপের। হলিউডে অসাধারণ অভিনয় করেন এমন কয়েকজন অভিনেতার নাম উঠলেই জনি ডেপের নাম আগে আসবে। ‘পাইটেরটস অব দ্য ক্যারাবিয়ান’র এ তারকা ২০০৪ সালে তার ‘দ্য কার্স অব দ্য ব্ল্যাক পার্ল’ ছবির জন্য অস্কারে মনোনয়ন পান। এরপর ২০০৬ সালে তার দুটি সিনেমা ‘ফাইন্ডিং নেভারল্যান্ড’ এবং ‘সুয়েনী টোড’র জন্যও মনোনয়ন পেয়েছেন। এই মনোনয়ন পর্যন্তই শেষ। অস্কারের ট্রুফিটা আর পাওয়া হয়নি তার। একই নায়ের মাঝি হলিউডের আরেক অভিনেতা ব্র্যাড পিট। এ তারকার ‘দ্য কিউরিয়াস কেস অব বেঞ্জামিন’ ছবিটি যারা দেখেছেন তাদের কাছে বিষয়টি অদ্ভুতই মনে হবে। ছবিটি যখন অস্কারে মনোনয়ন পায় তখনই সবাই ধারণা করে নিয়েছেন ছবিটির জন্য অবশ্যই অস্কার পাবেন ব্র্যাড। কিন্তু আশায় গুড়ে বালি। অস্কার পাননি তিনি। এরপর অসাধারণ ছবি ‘মানিবেল’ এবং ‘টুয়েলভ মাঙ্কিস’ দুটির জন্য মনোনয়ন পেয়েছিলেন ব্রাড। কিন্তু শেষ হাসি হাসতে পারেননি তিনি। ব্রুস উইলিস ক্যারিয়ারে অনেকবারই গোল্ডেন গ্লোব অ্যাওয়ার্ড জিতলেও অ্যাকাডেমি অ্যাওয়ার্ডটা এখনও তার কাছে অধরাই রয়ে গেছে। উইলিস ভক্তদের চাওয়া একবার হলেও যেন তার ‘ডাই হার্ড’ সিনেমার জন্য অস্কার জিততে পারেন তিনি। দেখা যাক, ভাগ্য কতটা সহায় হয় তার। অন্যদিকে মাত্র একবার অস্কারে মনোনয়ন পেয়েছেন হলিউডের সাড়া জাগানো অভিনেতা হ্যারিসন ফোর্ড। ‘উইটনেস’ সিনেমায় অসাধারণ অভিনয়ের জন্য সেরা অভিনেতার মনোনয়ন পেয়েছিলেন তিনি। মজার কথা হচ্ছে ‘স্টার ওয়ার ফ্যাঞ্চাইজি’ যে ছবিগুলোর জন্য তিনি বিশেষ পরিচিতি পেয়েছেন সে ছবিগুলো অস্কারের মনোনয়ন দৌড়েও সুযোগ পায়নি। ‘দ্য ইন্ড অব দ্য অ্যাফেয়ার’, ‘বুগী নাইটস’, ‘ফার ফ্রম হ্যাভেন’ এবং ‘দ্য আওয়ারস’-এর মতো অসংখ্য ছবির অভিনেত্রী জুলিয়ানা মুর। উল্লিখিত ছবিগুলো চারবার অস্কারের জন্য মনোনয়ন পেলেও পুুরস্কার ঘরে তোলা হয়নি তার। তাই দর্শকদের ভালোবাসা নিয়েই সন্তুষ্ট থাকতে হচ্ছে তাকে। অসাধারণ অভিনয়গুণে এ পর্যন্ত তিনবার অস্কারের মনোনয়ন দৌড়ে শামিল হয়েছেন মিশেল ফাইফার। ‘লাভ ফিল্ড’, ‘ড্যাঞ্জারাস লীয়াইসন’ এবং ‘দ্য ফ্যবুলাস বেকার বয়’ নামের ছবিতে অসাধারণ অভিনয়ের জন্য মনোনয়ন পেয়েছিলেন তিনি। তবে মিশেল সবচেয়ে পরিচিতি পেয়েছেন ‘স্কারফেস’ ছবির জন্য। এ ছবিও অস্কার এনে দিতে পারেনি তাকে। এ অভিনেত্রীর সর্বাধিক দর্শকপ্রিয় ছবি হচ্ছে ‘ব্যাটম্যান রিটার্নস’ (১৯৯২) এবং ‘হেয়ারস্প্রে’। ‘মিশন ইম্পসিবল’ ছবির নায়ক টম ক্রুজ। জনপ্রিয়তার মিশনে সফল হলেও অস্কার জেতার মিশন এখন তার কাছে ইম্পসিবলই রয়ে গেছে। মিশন ইম্পসিবলের বাইরে তার অভিনীত জনপ্রিয় সিনেমা হচ্ছে, ‘বর্ন অন দ্য ফোর্থ জুলাই’, ‘জেরী ম্যাগুইরে অ্যান্ড ম্যাগ্নোলিয়া’, ‘থ্রি’। এসব ছবি তাকে কেবল সুনাম আর টাকাই এনে দিয়েছে, কিন্তু অস্কার এনে দিতে পারেনি। হলিউডের অন্যতম অভিনেতা রিচার্ড গিয়ার অস্কারের মনোনয়ন পর্যন্ত পাননি এখনও। বিষয়টিকে রহস্যজনক হিসেবেই দেখছেন তার ভক্তরা। তার অভিনীত ‘হ্যাচি : অ্যা ডগস টেল’ সিনেমাটি দেখেননি এমন সিনেপ্রেমী খুঁজে পাওয়া দুস্কর। কিন্তু অস্কার সে তো অধরাই রয়ে গেছে এ তারকার।