তারা ঝিলমিল প্রতিবেদক    |    
প্রকাশ : ২৬ অক্টোবর, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
প্রীতম হাসান : যেন বাবার কণ্ঠের ধারক-বাহক

তরুণ সঙ্গীত পরিচালক ও শিল্পী প্রীতম হাসান। বাবা প্রয়াত শিল্পী খালিদ হাসান মিলুর নামজুড়ে আছে তার নামের সঙ্গে। তাই গানের জগতে তার পথচলা পরিবারকে দেখেই। ছোট বেলায় বাবা ছিলেন উৎসাহের কেন্দ্রবিন্দু। বড় হয়ে শিখছেন আরেক ভাই প্রতীক হাসানের কাছ থেকে। তবে গান শিখে সেটি নিয়ে সামনের পথে চলা, তা ছিল নিজের ইচ্ছাতেই। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘গানের পরিবেশেই বেড়ে উঠা আমার। বাবা এবং ভাইকে দেখে গানের প্রতি ভালো লাগা কাজ করেছে। তবে ক্যারিয়ারের সিদ্ধান্ত নিজ ইচ্ছাতেই নিয়েছি।’ বড় ভাই সঙ্গীতশিল্পী প্রতীক হাসানের কম্পিউটারে গেমস খেলার ফাঁকে ফাঁকেই কম্পোজিশন শুরু করেন প্রীতম। যদিও শুরুতে গানের জগতে আসার কোনো ইচ্ছা ছিল না তার। এ প্রসঙ্গে প্রীতম বলেন, ‘মিউজিক নিয়ে ভেবেচিন্তে কিছু করব তেমন কোনো পরিকল্পনা ছিল না। ইচ্ছা ছিল সামরিক বাহিনীতে যোগ দেয়ার। যদিও পরবর্তীতে তা আর হয়ে ওঠেনি।’ গানের জগতে খুব কম সময় পদচারণা করলেও ক্যারিয়ারের শুরুতেই বাউল শিল্পী কুদ্দুস বয়াতিকে নিয়ে একটি মিউজিক ভিডিও বানিয়ে বাজিমাত করেন তরুণ এ সঙ্গীত পরিচালক। পরবর্তীতে আরও কিছু গান প্রকাশ করলেও তেমন আলোচনায় আসতে পারেননি। তবে দমে যাওয়ার পাত্র নন তিনি। সম্প্রতি রবি ইউন্ডার মিউজিকে বেশ কয়েকটি গান প্রকাশ করেছেন প্রীতম। গানের পাশাপাশি অভিনয়েও দেখা মিলেছে তার। ‘জাদুকর’ শিরোনামের একটি মিউজিক্যাল ফিল্মে জাদুকরের ভূমিকায় অভিনয় করেছেন তিনি। এতে অভিনয় করে বেশ প্রশংসাও কুড়িয়েছেন। শুধু তাই নয়, ইউটিউবে প্রকাশের পর এটি বেশ আলোচিত হয়েছে। সিঙ্গেল গান প্রকাশ ও অভিনয়ের পাশাপাশি প্লে-ব্যাকেও রয়েছে তার পদচারণা। গান করেছেন বুলবুল বিশ্বাসের ‘রাজনীতি’, সোহেল আরমানের ‘ভ্রমর’ এবং অনন্য মামুনের ‘অস্তিত্ব’ ছবিতে। সেখানে খুব একটা সফলতার দেখা না মিললেও ব্যর্থও নন। প্লেব্যাক প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘ভিন্ন ঘরানায় গান করতে চাই সব সময়। নতুন মাত্রার গান করার লক্ষ্যেই কাজ করছি। সামনে আরও ভালো মানের চলচ্চিত্রের গানে কাজ করার ইচ্ছা আছে।’ যে কাজই হোক না কেন ডেডিকেশন নিয়ে নিজের সম্পূর্ণ ভালোটা দিয়ে কাজ করায় বিশ্বাসী তিনি। তাই প্রতিটা কাজ তার কাছে সমান প্রাধান্য পায় বলেই মন্তব্য করেন প্রীতম। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, ‘নিজের অ্যালবাম হোক কিংবা কোনো ছোট কাজ, আমার জন্য সব কাজই সমান গুরুত্বপূর্ণ। তাই প্রতিটি কম্পোজিশনই আমি করি সমান প্রতিশ্রুতি আর পরিশ্রম দিয়ে।’ অল্প সময়ে যেটুকু এসেছেন তার জন্য কৃতজ্ঞতা স্বীকার করতেও ভুল করলেন না প্রীতম। শুরুর দিকে কাজ করেছেন বিভিন্ন জিঙ্গেলে। তখন সঙ্গীতশিল্পী হাবিব ওয়াহিদের সহযোগী হয়েও কাজ করেছেন লম্বা সময়। তাই নিজের সঙ্গীত জীবনে যতটুকু প্রাপ্তি তার জন্য হাবিবের অবদান অনেক বলে জানান প্রীতম। সুরকার ও সঙ্গীতশিল্পী অদিত আর গীতিকার আসিফ ইকবালও গানের জগতে নানাভাবে প্রীতমকে এগিয়ে যেতে সাহায্য করেছেন। তবে এতটা পথ পাড়ি দিতে বড় ভাইয়ের অবদানও কম নয়। এ প্রসঙ্গে তিনি বলেন, “গানের জগতে নিজস্বতা দিয়ে আমি ভাইয়াকেও ছাড়িয়ে যেতে চাই। ভাইয়া যেভাবে সব সামলে এতটা পথ এসেছে, যেভাবে নিজেকে প্রতিষ্ঠিত করেছেন, আমাকে প্রতি মুহূর্তে অনুপ্রেরণা দিয়েছেন, আমার বিশ্বাস তা নিয়ে আমি অনেকটা পথ যেতে পারব। নিজেকে ভাইয়ার মতো প্রতিষ্ঠিত করতে পারব। আরেকটি বিষয় সবসময় আমার মাঝে কাজ করে, জনপ্রিয় সঙ্গীতশিল্পী প্রয়াত খালিদ হাসান মিলুর ছেলে আমি। বিষয়টি আমার জন্য গর্বের। কিন্তু আমার বাবাকে সব সময় আমার প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে দেখি। খালিদ হাসান মিলুর ছেলে প্রীতম এমনটা নয়। যেদিন মানুষ জানবে ‘প্রীতমের বাবা খালিদ হাসান মিলু’ সেদিন হয়তো বাবাও অনেক খুশি হবেন।” বিশেষ কোনো পরিকল্পনা না থাকলেও সামনের দিনগুলোতে ভালো মানের কাজ উপহার দিতে চান বলেই ভবিষ্যৎ পরিকল্পনার কথা জানালেন তিনি। উল্লেখ্য, তার করা কুদ্দুস বয়াতির ‘আসো মামা হে’ এবং মমতাজের ‘লোকাল বাস’ বেশ জনপ্রিয়তা পায়। জিপি মিউজিকে প্রকাশিত প্রথম মিক্সড ‘প্রীতম’ও শ্রোতারা গ্রহণ করে। প্রশংসিত হয় তার করা মমতাজের ‘মায়ের কোলে’, তাহসানের ‘প্রথম ভালোবেসে’, কণার ‘আকাশ ভরা জোছনা’ গানগুলো।


 


আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত