যুগান্তর ডেস্ক    |    
প্রকাশ : ২৬ জুলাই, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
আল আকসা ইস্যুতে পিছু হটল ইসরাইল
সরানো হল মেটাল ডিটেক্টর * তুরস্কে ইসরাইলি দূতাবাস বন্ধ ঘোষণা * কূটনৈতিক বিরোধে জর্ডান ও ইসরাইল * আল আকসা রক্ষায় লড়াইয়ের আহ্বান সৌদি প্রিন্সের
আল আকসা ইস্যুতে পিছু হটল ইসরাইল। মুসলমানদের অন্যতম পবিত্র এ মসজিদ প্রাঙ্গণ থেকে মেটাল ডিটেক্টর সরানো হয়েছে। এর পরিবর্তে নজরদারি ক্যামেরা বসানো হচ্ছে। মঙ্গলবার সকালে ইসরাইলের প্রধানমন্ত্রী বেঞ্জামিন নেতানিয়াহুর নেতৃত্বে মন্ত্রিপরিষদের এক বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেয়া হয়। নেতানিয়াহুর দফতর থেকে দেয়া এক বিবৃতিতে বলা হয়েছে- ‘মেটাল ডিটেক্টরের মাধ্যমে নজরদারির পরিবর্তে অত্যাধুনিক প্রযুক্তি ও অন্যান্য উপায়ে নিরাপত্তা নজরদারির ব্যবস্থা করতে নিরাপত্তা বাহিনীগুলোর দেয়া সুপারিশ গ্রহণ করেছে নিরাপত্তা মন্ত্রিপরিষদ।’ খবর বিবিসি ও রয়টার্সের।
ইসরাইলের এ সিদ্ধান্তের বিষয়ে আল আকসা মসজিদের পরিচালক শেখ নাজেহ বাকিরাত বলেন, শুধু মেটাল ডিটেক্টর সরানোর মধ্য দিয়ে মুসলিমদের দাবি পূরণ হয়নি। মসজিদ প্রাঙ্গণে এখন নিরাপত্তা ক্যামেরা বসানো হচ্ছে। মসজিদ প্রাঙ্গণ থেকে নজরদারি ক্যামেরা সরিয়ে নেয়ারও দাবি করেন তিনি। আল আকসা মসজিদ পরিচালনা কমিটির অন্যতম কর্মকর্তা শেখ রায়েদ সালেহ বলেন, ১৪ জুলাইয়ের পর নিরাপত্তার স্বার্থে যেসব উপকরণ স্থাপন করা হয়েছে, সেগুলো সরানোর আগপর্যন্ত কোনো ব্যবস্থা ফিলিস্তিনিরা মেনে নেবে না।
এদিকে আল আকসাকে কেন্দ্র করে তুরস্কে ইসরাইলি দূতাবাসের সব কার্যক্রম বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে। ফিলিস্তিনি সংবাদ সংস্থা মান এর জানায়, জেরুজালেমের ঘটনায় ইসরাইলি দূতাবাসে হামলা হতে পারে- এমন আশঙ্কায় এ পদক্ষেপ নিয়েছে ইসরাইলের পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়। রোববার রাতে জর্ডানে ইসরাইলি দূতাবাসে হামলায় দুইজন নিহত ও একজন আহত হন। এরপর থেকেই নিরাপত্তার স্বার্থে এমন সিদ্ধান্ত নেয় ইসরাইল। পররাষ্ট্র মন্ত্রণালয়ের এক উচ্চপর্দস্থ কর্মকর্তা বলেন, আম্মানের ঘটনায় আমরা উদ্বিগ্ন। পরিস্থিতি শান্ত না হওয়া পর্যন্ত আমরা সাময়িকভাবে দূতাবাস বন্ধ রাখছি।
জর্ডানে ইসরাইলি দূতাবাস প্রাঙ্গণে গত রোববার এক ইসরাইলি নিরাপত্তারক্ষীর গুলিতে দুই জর্ডানি নাগরিক নিহত হওয়ার ঘটনায় দেশ দুটির মধ্যে কূটনৈতিক সংকট দেখা দিয়েছে। জর্ডানের পক্ষ থেকে ওই রক্ষীকে জিজ্ঞাসাবাদ করতে চাওয়া হলে ইসরাইল তাদের কূটনৈতিক সুরক্ষার কথা উল্লেখ করে। নিহত একজন জর্ডানি নাগরিককে অসাবধানতাবশত গুলি করা হয়েছে বলে স্বীকার করেছে ইসরাইল। অত্যন্ত সুরক্ষিত দূতাবাস এলাকায় কিভাবে এমন ঘটনা ঘটল, তা নিয়ে জর্ডান কর্তৃপক্ষ তদন্ত করছে। হত্যাকাণ্ডের সঙ্গে জড়িত রক্ষীর দেশত্যাগে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়। তবে ওই রক্ষী ইতিমধ্যে জর্ডান ত্যাগ করেছে। খবর বিবিসির।
এদিকে মুসলিমদের তৃতীয় পবিত্রতম স্থান আল আকসা মসজিদ রক্ষায় লড়াইয়ের আহ্বান জানিয়েছেন সৌদি আরবের প্রয়াত বাদশা ফাহাদ বিন আবদুল আজিজের ছেলে আবদুল আজিজ বিন ফাহাদ। গত শুক্রবার এক টুইটার বার্তায় আবদুল আজিজ বিন ফাহাদ বলেন, ‘প্রত্যেক মুসলমানের উচিত ফিলিস্তিনি ভাইদের পাশে দাঁড়ানো। আল আকসা মসজিদ রক্ষা করা আমাদের দায়িত্ব। হে মুহাম্মদের (সা.) উম্মতরা, তাদের (ইসরাইলিদের) দেখিয়ে দাও তোমরা কারা? আমরা আল আকসার ব্যাপারটি এড়িয়ে গেলে আল্লাহ অখুশি হবেন। তার কাছে আমাদের কৈফিয়ত দিতে হবে।’ আরেক টুইটার বার্তায় তিনি বলেন, ‘হে আল্লাহর বান্দা ও মুহাম্মদের (সা.) উম্মতরা, ইসলামের তৃতীয় পবিত্র মসজিদটি আজ অপরাধীদের দখলে। আমাদের মধ্যে কি ঔদার্য নেই? আসুন, আমরা একসঙ্গে লড়াই করি। আমাদের এ যুদ্ধে জয়ী হতে হবে। রক্ষা করতে হবে আমাদের পবিত্র মসজিদকে। আর এ যুদ্ধে যদি আমরা হেরেও যাই, তবে আল্লাহ আমাদের ক্ষমা করে দেবেন।’



আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত