পাবনা প্রতিনিধি    |    
প্রকাশ : ১০ জুলাই, ২০১৭ ০০:০০:০০ প্রিন্ট
সামান্য বৃষ্টিতেই পাবনা পৌর এলাকায় জলাবদ্ধতা
প্রথম শ্রেণীর পৌরসভা হলেও এর সুফল পাচ্ছেন না পাবনা পৌরবাসী। সামান্য বৃষ্টিতেই পৌরসভার অধিকাংশ এলাকা তলিয়ে যায় এবং সৃষ্টি হয় মারাত্মক জলাবদ্ধতা। শহরের নিন্মাঞ্চল তো বটেই পাবনা শহরের প্রধান প্রধান রাস্তাও ডুবে যায় পানিতে। জলাবদ্ধতা দূরীকরণে পৌরসভার উদ্যোগ নেই। তারা বলছেন, সরকারি কোনো বরাদ্দ নেই এ সমস্যা সমাধানের জন্য। এক সপ্তাহের টানা বর্ষণে পাবনা শহরের নিউমার্কেট, পাবনা কলেজ গলি, আওরঙ্গজেব সড়ক, প্রেস ক্লাব সড়ক. দিলালপুর, কফিল উদ্দিনপাড়া, শান্তিনগর, বেলতলা সড়ক, বড় বাজার, দই বাজার মোড় এবং শালগাড়িয়া, যুুগিপাড়াসহ ১৫টি ওয়ার্ডের মধ্যে ১০টি ওয়ার্ডের অধিকাংশ এলাকায় মারাত্মক জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। এতে করে চরম দুর্ভোগে পড়েছেন পৌরসভার হাজার হাজার মানুষ। এদিকে অনেক এলাকায় গভীর নলকূপ ডুবে যাওয়ায় দেখা দিয়েছে বিশুদ্ধ খাবার পানির সংকট। এতে করে দেখা দিয়েছে পানিবাহিত নানা রোগ। পৌরবাসী জানান, গত কয়েক বছর ধরে সামান্য বৃষ্টিতেই এমন জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হলেও পৌর কর্তৃপক্ষের এ ব্যাপারে কোনো মাথাব্যথা নেই। পাবনা পৌর এলাকার ৯নং ওয়ার্ডের উত্তর শালগাড়িয়া এলাকার বাসিন্দারা জানান, এ এলাকায় নেই কোনো ড্রেনেজ ব্যবস্থা, ফলে সামান্য বৃষ্টিতেই তলিয়ে যায় এলাকার রাস্তা বাড়িতে সৃষ্টি হয় জলাবদ্ধতা। এলাকার লোকজন একাধিকবার পৌরসভায় গেলেও এর কোনো সমাধান হয়নি। কোনো কোনো এলাকায় স্থায়ী জলাবদ্ধতারও সৃষ্টি হয়েছে। পৌর এলাকার বাসিন্দারা অভিযোগ করে বলেন, পৌরসভার বিভিন্ন পাড়া-মহল্লার পানি নিষ্কাশনের ড্রেনগুলো বন্ধ হয়ে যাওয়ার কারণেই এমনটি হয়েছে। ড্রেনগুলোর পানি শহরের একমাত্র নদী ইছামতি নদীতে গিয়ে পড়ে। কিন্তু ইছামতি নদী দখল আর ময়লা-আবর্জনা ফেলার কারণে নালার মুখগুলো বন্ধ হয়ে গেছে। মূলত শহরের পানি নিষ্কাশনের ব্যবস্থা ভালো না হওয়ার কারণেই এমনটি হচ্ছে। আশ্চর্য হলেও সত্য, পাবনার প্রথম শ্রেণীর পৌরসভায় অনেককেই ছোট নৌকা ও কলাগাছের ভেলা করে যাতায়াত করতে হচ্ছে। শহরের নিউমার্কেট এলাকার ব্যবসায়ীরা জানান, বর্ষা মৌসুম এলেই আমাদের চরম সমস্যার মধ্যে পড়তে হয়। সামান্য বৃষ্টিতেই আওরঙ্গজেব সড়কে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হওয়ায় ক্রেতারা আসে না। ফলে আমাদের বেচাকেনাও কম হয়। নিউ মার্কেটের সামনের রাস্তাটি পিচঢালা পথ না মাটির রাস্তা বোঝা মুশকিল। অথচ পৌরসভার কোনো মাথাব্যথা নেই। তারা জানান, নিউ মার্কেটের সামনের রাস্তায় হাঁটু পানি থাকলে আমরা ক্রেতা পাব কোথায়। আমাদের কথা কেউ ভাবছেন না। আওরঙ্গজেব সড়কের অভিজাত বিপণিবিতানের মালিক জিন্নাত আলী জিন্না ও রশিদিয়া বস্ত্রালয়ের মালিক খোকন জানান, কাদাপানি এবং জলাবদ্ধতার কারণে এবারের ঈদে ভালো ব্যবসা হয়নি তাদের। শিবরামপুর মহল্লার ব্যবসায়ী আমিনুল হক বলেন, একটু বৃষ্টি হলেই রাস্তাঘাট ডুবে যায়। আমরা এলে শহরে না গ্রামে বাস করি ঠিক বুঝতে পারি না। এর চেয়ে গ্রামই অনেক ভালো। পাবনা পৌরসভার মেয়র কামরুল হাসান মিন্টু জলাবদ্ধতার কথা স্বীকার করে বলেন, এখানে আমার কি করণীয় থাকতে পারে। একদিকে সরকারি কোনো বরাদ্দ নেই। অপরদিকে সারা দেশের ন্যায় পাবনায়ও ব্যাপক বৃষ্টি হওয়ার কারণেই এমনটি হয়েছে। তারপরও আমি সব ওয়ার্ড কাউন্সিলকে বলেছি, পানি প্রবাহের জায়গা এবং ড্রেনগুলো পরিষ্কার রাখতে, যেন পানি দ্রুত বের হয়ে যায়।



আরো পড়ুন
  • শীর্ষ খবর
  • সর্বশেষ খবর

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Design and Developed by

© ২০০০-২০১৭ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত