jugantor
টানা অবরোধে বিপর্যস্ত জনজীবন
অগ্নিসংযোগ, ভাংচুর ও নাশকতার কারণে ঘর থেকে বের হচ্ছে না মানুষ : সর্বত্রই বিরাজ করছে আতংক

  যুগান্তর ডেস্ক  

০২ ডিসেম্বর ২০১৩, ০০:০০:০০  | 

১৮ দলের ডাকা একের পর এক হরতাল ও অবরোধের কারণে জনজীবনে দুর্ভোগ নেমে এসেছে। ব্যবসা-বাণিজ্যে দেখা দিয়েছে মন্দা ভাব। ৭২ ঘণ্টার টানা অবরোধের দ্বিতীয় দিনে রোববার সারা দেশে অনেকটা স্থবিরতা বিরাজ করছে। অগ্নিসংযোগ, ভাংচুর ও নাশকতার কারণে ঘর থেকে বের হচ্ছে না মানুষ। সর্বত্রই অনেকটা আতংক বিরাজ করছে। বিভিন্ন পয়েন্ট পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবি টহল দিলেও আতংক কাটছে না। অবরোধের কারণে যানবাহনের অভাবে যাত্রীরা দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। হেঁটে গন্তব্যে পৌঁছাচ্ছে মানুষ। অবরোধ সফল করতে রোববার সকাল থেকেই বিভিন্ন সড়কে অবস্থান নেন বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীরা। এ সময় তারা সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে ও গাছের গুঁড়ি ফেলে অবরোধ করে। নেতাকর্মীরা পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে বিভিন্ন স্থানে বিক্ষিপ্তভাবে যানবাহন ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করেছে। অবরোধের কারণে দূরপাল্লার যানবাহন বন্ধ রয়েছে। যুগান্তর ব্যুরো ও প্রতিনিধিরা জানান-

ময়মনসিংহ ব্যুরো : সকাল থেকেই দক্ষিণ জেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী একেএম মোশাররফ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আবু ওয়াহাব আকন্দ, নগর বিএনপির সভাপতি অধ্যাপক শফিকুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক শেখ আমজাদ আলীর নেতৃত্বে শহরের মাসকান্দা আন্তঃজেলা বাস টার্মিনাল ও টাঙ্গাইল বাসস্ট্যান্ড এলাকায় অবস্থান নিয়ে নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল ও সড়ক অবরোধ করে রাখে। এ সময় বিএনপি নেতা কাজী রানা, আলমগীর মাহমুদ আলম, মাহবুবুল আলম মাহবুব, রতন আকন্দ, শাহ শিব্বির আহমেদ বুলু, এনামুল হক আকন্দ লিটন, টুটুল, জহুরুল হক তোতা, আবদুর রাজ্জাক, মহিলা দলের সভানেত্রী অধ্যাপিকা রায়হানা ফারুক, ফারজানা রহমান হোসনা, শ্রমিক দলের আবু সাঈদ, যুবদল সভাপতি শামীম আজাদ, স্বেচ্ছাসেবক দলের শহিদুল আমিন খসরু, ছাত্রদলের শামসুল আলম উজ্জ্বল, জোবায়েদ হোসেন শাকিল, সোহেল খান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

শেরপুর : অবরোধকারীরা একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা ভাংচুর করেছে। গ্রেফতার আতংকে শেরপুর জেলা বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের এবং জামায়াত শিবিরের অধিকাংশ নেতাকর্মী গা-ঢাকা দিয়েছে। আতংক এবং নিরাপত্তাহীনতার কারণে দূরপাল্লার বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে।

শিবগঞ্জ : কোনো রুটেই কোনো যানবাহন চলাচল করেনি। ভারতের মহদীপুর স্থলবন্দর থেকে কোনো পণ্যবাহী ট্রাক সোনামসজিদ স্থলবন্দরে প্রবেশ করেনি। পানামা ইয়ার্ডের ভেতরে শ্রমিকরাও কোনো কাজ করেনি। অবরোধের সমর্থনে সকালে বিএনপি, জামায়াত-শিবিরের মিছিল বের হয়।

পাবনা : সকালে পাবনা-নগরবাড়ী মহাসড়কের রাজাপুর, ধোপাঘাটা, পুষ্পপাড়া, জফরাবাদ, বাঙ্গাবাড়ীয়া এবং ঈশ্বরদীর ঈশ্বরদী-ঢাকা মহাসড়কের চাদআলীর মোড়সহ বিভিন্ন স্থানে রাস্তার পাশ থেকে গাছ কেটে ও ইট ফেলে সড়ক অবরোধ করে ১৮ দলের নেতাকর্মীরা। অবরোধ চলাকালে পাবনা থেকে দূরপাল্লার গাড়ি চলাচল বন্ধ রয়েছে। বন্ধ রয়েছে অভ্যন্তরীণ সড়কগুলোতে সব ধরনের যান চলাচল।

নোয়াখালী : কেন্দ্রীয় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও জেলা বিএনপির সভাপতি মোঃ শাহজাহান, সাধারণ সম্পাদক ও নোয়াখালী পৌর মেয়র মোঃ হারুন অর রশিদ আজাদ, শহর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবু নাসের, জাসাস জেলা আহ্বায়ক লেয়াকত আলী খান, শহর জামায়াতের আমীর মাওলানা রুহুল আমিন, খায়রুল আলম বুলবুল, ভিপি জসিম প্রমুখের নেতৃত্বে মিছিল হয়েছে।

চুয়াডাঙ্গা : কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই দ্বিতীয় দিনের মতো ১৮ দলের ডাকা সড়ক, রেল ও নৌপথ অবরোধ কর্মসূচি শান্তিপূর্ণভাবে পালিত হচ্ছে।

১৮ দলের অবরোধের কারণে চুয়াডাঙ্গা থেকে কোনো দূরপাল্লার যানবাহন ছেড়ে যায়নি। আন্তঃজেলা বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। শান্তিপূর্ণ পরিবেশে অবরোধ পালিত হলেও যানবাহন চলাচল না করার কারণে জেলা ও উপজেলা শহরে কাজে কোনো লোকজন আসতে পারছে না।

মানিকগঞ্জ : বারবার পুলিশি বাধার মুখে পড়েও অবরোধের সমর্থনে সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতার নেতৃত্বে মানিকগঞ্জে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে বিএনপি। ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক হয়ে শহরের খাল পাড়ে পৌঁছলে মিছিলে পুলিশ বাধা দেয় এবং ব্যানার ছিনিয়ে নেয়। পুলিশি বাধার মুখে মিছিলটি বাসস্ট্যান্ডের দিকে অগ্রসর হয়ে পৌর মার্কেটের সামনে পৌঁছলে সেখানেও পুলিশ বাধা দেয়, বাধার মুখে সেখানেই সমাবেশ করেন তারা।

নেত্রকোনা : ১৮ দলের কর্মীরা অবরোধের সমর্থনে জেলা শহরের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে তিনটি অটোরিকশা ভাংচুর করেছে। শহরের রাজুরবাজার এলাকায় নেত্রকোনা-মোহনগঞ্জ রেলপথে স্লিপার তুলে ফেললে ওই সড়কে প্রায় ৬ ঘণ্টা ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। অবরোধ চলাকালে দূরপাল্লার কোন যানবাহন চলাচল করেনি।

লক্ষ্মীপুর : শতাধিক যাত্রী লক্ষ্মীপুর বাস টার্মিনালে গত দুই দিন থেকে আটকা পড়ছে। চরম দুর্ভোগে মানবেতর জীবনযাপন করছেন তারা।

ওইসব যাত্রী তাদের গন্তব্যে যাওয়ার জন্য ঢাকা-চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে এসে লক্ষ্মীপুর বাস টার্মিনালে আটকা পড়ে। শুক্রবার ভোররাতে ওইসব যাত্রী লক্ষ্মীপুর বাসটার্মিনালে পৌঁছলেও অবরোধের কারণে নিজ নিজ গন্তব্যে যেতে পারেনি। এদের মধ্যে শিশু ও বৃদ্ধ রয়েছেন।

নাগরপুর (টাঙ্গাইল) : কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য নাগরপুর উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট গৌতম চক্রবর্তীর নেতৃত্বে মিছিল দলীয় কার্যালয় থেকে বের হয়। পরে অবরোধ কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক আহম্মদ আলী রানা, হাবিবুর রহমান হবি, ফরিদুজ্জামান কোহিনুর, ফনির হোসেন ভূঁইয়া, আবুল কালাম আজাদ, রফিকুল ইসলাম দিপন, মীর খোকন, রফিজ উদ্দিন, মোঃ নজরুল ইসলাম, মিজানুর রহমান লাভলু, মোঃ এরশাদ মিয়া, জিহাদ হোসেন ডিপটি, জাহিদ হাসান প্রমুখ।

নাঙ্গলকোট (কুমিল্লা) : পৌর বিএনপির সভাপতি নুরুল আমিন জসিমের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সাবেক উপজেলা সেক্রেটারি নুরুল আফসার নয়ন, পৌর সেক্রেটারি জাহাঙ্গীর আলম মজুমদার, জামাত সেক্রেটারি মাওঃ মহিউদ্দিন, কমিশনার ইউসুফ, যুবদল সভাপতি মাহবুবুল আলম সিজার, এনায়েত উল্লাহ কামাল, আবু বক্কর, জেলা ছাত্র শিবিরের সাহিত্য সম্পাদক আনোয়ার হোসেন, ছাত্রদল সভাপতি মনিরুল ইসলাম মনির, যুগ্ম আহ্বায়ক শাখাওয়াত হোসেন শাহীন, মোদাচ্ছের হোসেন লিটন, শিবির সভাপতি জোবায়ের ফয়সাল।

পীরগাছা (রংপুর) : ১৮ দল উপজেলার কদমতলায় আঞ্চলিক মহাসড়কে বিক্ষোভ মিছিল ও পথ সভা করে। এতে বক্তৃতা করেন উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি আফছার আলী, সাধারণ সম্পাদক আলহাজ আমিনুল ইসলাম রাঙ্গা, সাংগঠনিক সম্পাদক ফরহাদ হাসান অনু প্রমুখ।

আগৈলঝাড়া : কোনো দূরপাল্লার যানবাহন ছেড়ে যায়নি বা আসেনি। পক্ষে-বিপক্ষে কোনো মিছিল-সমাবেশ হয়নি বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

গৌরীপুর (ময়মনসিংহ) : দূরপাল্লার কোনো বাস ছেড়ে যায়নি। শহরে লোকজনের উপস্থিতিও ছিল কম। শ্রমজীবী মানুষের বেড়েছে দুর্ভোগ। ব্যবসায়ীদের কাঁচামাল, ফল দেশের বিভিন্ন প্রান্তে আটকে নষ্ট হচ্ছে বলে জানান ব্যবসায়ী নেতা মোঃ নজরুল ইসলাম।

কালাই (জয়পুরহাট) : ইঞ্জিনিয়ার গোলাম মোস্তফা এমপির নেতৃত্বে ১৮ দলীয় জোটের নেতাকর্মীরা কালাই পৌর শহরে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। পরে সমাবেশে বক্তৃতা কালাই থানা বিএনপির আবদুস সামাদ মাস্টার, পৌর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আনিছুর রহমান তালুকদার, থানা যুবদলের সভাপতি আবদুল আলিম সরকার, কালাই উপজেলা জামায়াতের আমীর অধ্যক্ষ তাইফুল ইসলাম ফিতা, অ্যাডভোকেট শাহাজাহান আলী, মোস্তাক আহাম্মেদ সিদ্দিকী রিপন প্রমুখ।

পটুয়াখালী : পুলিশের বাধার মুখে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, গাজী আশফাকুর রহমান বিপ্লব, মশিউর রহমান মিলন, মনিরুল ইসলাম লিটন, তৌফিক আলী খান কবির, মেহেদী হাসান নান্নু, গাজী মিজানুর রহমান সাঈদ, অ্যাডভোকেট রুহুল আমিন রেজা, মোঃ কামাল হোসেন, মেহেদী হাসান নান্নু, রুহুল আমিন সিকদার আকরাম, মোঃ রফিক খোন্নার, মোঃ রিমানুল ইসলাম রিমু, শাহিন বিহারী, মেহেদী হাসান জাহাঙ্গীর প্রমুখ।

ফরিদগঞ্জ : সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন রফিকুল ইসলাম, মাহফুজুর রহমান, মহসীন মোল্লা, মজিবুর রহমান, বিল্লাল হোসেন, বোরহান উদ্দিন, টুটুল পাটওয়ারী, রফিক পাটওয়ারী, জাহাঙ্গীর মাস্টার, ফজলুর রহমান, মামুন হোসেন পাটওয়ারী, হাছান মাহমুদ, আক্তার, নজরুল, মাসুদ, আরিফ, আনোয়ার হোসেন, মোঃ আলী, নাজিম উদ্দিন, ছাত্রদলের মহসীন, সাইফুল, মানিক, জাহাঙ্গীর, ইসমাইল, তুহিন, সুমন, জুয়েল, রাজিব, শ্রমিক দলের আঃ কাদির, আজিম খান, বেলায়েত প্রমুখ।

গৌরনদী : দূরপাল্লার কোনো বাস ট্রাক চলাচল করেনি।

ইজিবাইক, টেম্পো, নসিমন, ভ্যান রিকশা স্বাভাবিকভাবে চলাচল করেছে। অবরোধের পক্ষে বিপক্ষে কোনো সভা সমাবেশ হয়নি।

গুরুদাসপুর : মিছিল শেষে প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন, পৌর বিএনপির সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান শাহ, উপজেলা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ আলী আজম, দুলু মুক্তি সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি মোঃ শরিফুল ইসলাম বিপ্লব, ছাত্রদল নেতা এম সময় হাসান, নুরুজ্জামান সিদ্দিকি রাজু, ইয়ারুল কাজী, নুরুজ্জামান, সালাউদ্দিন সোহেল, সুরুজ প্রমুখ।

শায়েস্তাগঞ্জ : বিক্ষোভ সমাবেশে পৌর যুবদলের সভাপতি আবদুল মজিদ কাউন্সিলরের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক কামরুল হাসান রিপনের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন, শায়েস্তাগঞ্জ পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ তানভীর আহমেদ জুয়েল, পৌর স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক সাইদুর রহমান কাউন্সিলর, মঈনুল হাসান রতন, ইফতেকার আলম ইকবাল প্রমুখ।

তাহিরপুর (সুনামগঞ্জ) : বক্তব্য রাখেন, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি আনিসুল হক, বোরহান উদ্দিন, জুনাব আলী, ফেরদৌস আলম, মুহিবুর রহমান, লুৎফুর রহমান, নুরুল হক, এমদাদুল হুদা, শফিক মিয়া, শাহ আলম প্রমুখ।

আমতলী : মামলার কারণে বিএনপি নেতাকর্মীদের রাজপথে দেখা যায়নি। আমতলী থেকে দূরপাল্লার কোনো যানবাহন ছেড়ে যায়নি। তবে অভ্যন্তরীণ রুটে যানবাহন চলাচল অব্যাহত ছিল।

দৌলতখান : জেলা সদরের সঙ্গে দৌলতখানের যাত্রীবাহী বাস চলাচল করেনি। তবে দিনভর রিকশা, অটোরিকশাসহ ছোট ছোট যানবাহন অবাধে চলাচল করেছে। দৌলতখান ও ভোলা সদর সীমান্তবর্তী কন্ট্রাকটর বাড়ির সামনে অবরোধ সমর্থকরা সকালের দিকে কয়েকটি ইজিবাইক ভাংচুর করেছে।

মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) : সমাবেশে বক্তৃতা করেন উপজেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য আবুল কালাম আজাদ সিদ্দিকী, পৌর বিএনপির সভাপতি হযরত আলী মিঞা, সাধারণ সম্পাদক মোঃ জুলহাস মিয়া, ফিরোজ হায়দার খান, আবদুল কাদের সিকদার, মৃধা নজরুল ইসলাম, খন্দকার জয়নাল আবেদীন, যুবদল নেতা গোলাম মোস্তফা জীবন, জসিম উদ্দিন খান, আবদুর রাজ্জাক সিদ্দিকী, সেতু হায়দার খান প্রমুখ।

কাউখালী (পিরোজপুর) : দক্ষিণাঞ্চলের কচা নদীর থেকে অন্যতম পারাপারের মাধ্যম বেকুটিয়া ফেরি বন্ধ থাকায় যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। পিরোজপুর-কাউখালী-স্বরূপকাঠী সড়কে কোনো যানবাহন চলাচল করেনি ফলে বন্ধ আছে আমরাজুড়ী ফেরি। অবরোধে নৌ-পথে ছেড়ে যায়নি ঢাকার ও স্থানীয় ছোট-বড় লঞ্চ।

হোসেনপুর (কিশোরগঞ্জ) : সকালে হোসেনপুর-কিশোরগঞ্জ সড়কের রামপুর এলাকায় দলীয় নেতাকর্মীরা অবস্থান নিলে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পরে পুলিশের উপস্থিতিতে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়। তবে কোনো ধরনের সহিংসতা ও অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।

বকশীগঞ্জ : বিএনপি সভাপতি আবদুর রউফ তালুকদারের নেতৃত্বে মিছিল শেষে উত্তরবাজার দলীয় কার্যালয় সামনে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সহ-সভাপতি আবদুল হালিম, রকিবুল হাসান বাবুল, ইউপি চেয়ারম্যান ফখরুজ্জামান মতিন, শ্রমিক দলের সভাপতি কাইছার আমীন, কৃষক দলের সম্পাদক ওবায়দুল ইসলাম প্রমুখ।

আখাউড়া : অবরোধকারীরা স্থলবন্দর, মহাসড়কের খরখার-আখাউড়া, মোগড়া-মনিয়ন্দ, কর্নেলবাজার-গঙ্গাসাগর বাইপাস সড়কের মোড়, নারায়ণপুর মোড়, নূরপুর এবং গাজীরবাজার এলাকায় টায়ারে আগুন দিয়ে সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ করে দেয়।

ছাগলনাইয়া : সকালে পৌর ছাত্রদলের সভাপতি মোশারফ হোসেন খোন্দকারের নেতৃত্বে একদল পিকেটার ফেনী-ছাগলনাইয়া সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ করে দেয়।

দিরাই : বিএনপির আসফিয়া গ্র“পের সমর্থকরা উপজেলা সদরে বিক্ষোভ মিছিল করেছে। জেলা বিএনপির সদস্য আবদুশ শহিদ চৌধুরীর নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিলটি স্থানীয় বিএনপির কার্যালয় থেকে বের হয়ে পৌর শহরের বিভিন্ন রাস্তা প্রদক্ষিণ করে থানা পয়েন্টে এসে শেষ হয়।

দুমকি : পুলিশি টহল জোরদার থাকায় কোথাও কোনো সহিংসতার ঘটনা ঘটেনি। দূরপাল্লা ও অভ্যন্তরীণ রুটের পরিবহন এবং যাত্রীবাহী বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে।

কমলগঞ্জ : বাস চলাচল বন্ধ থাকলেও হালকা বাহন সিএনজি অটোরিকশা চলাচল করেছে। তাছাড়া অবরোধে সড়কপথে নাশকতা হওয়ার আশংকায় লোকজন চলাচলও করে অনেক কম।

সাটুরিয়া (মানিকগঞ্জ) : রাস্তায় পুলিশ মোতায়েন থাকলেও পুরো এলাকায় সাধারণ মানুষ আতংকে রয়েছে। নাশকতা এড়াতে উপজেলা বিএনপি ও ১৪ দলনেতা কর্মীদের ওপর কঠোর নজরদারি রেখেছে থানা পুলিশ।


 

সাবমিট

টানা অবরোধে বিপর্যস্ত জনজীবন

অগ্নিসংযোগ, ভাংচুর ও নাশকতার কারণে ঘর থেকে বের হচ্ছে না মানুষ : সর্বত্রই বিরাজ করছে আতংক
 যুগান্তর ডেস্ক 
০২ ডিসেম্বর ২০১৩, ১২:০০ এএম  | 

১৮ দলের ডাকা একের পর এক হরতাল ও অবরোধের কারণে জনজীবনে দুর্ভোগ নেমে এসেছে। ব্যবসা-বাণিজ্যে দেখা দিয়েছে মন্দা ভাব। ৭২ ঘণ্টার টানা অবরোধের দ্বিতীয় দিনে রোববার সারা দেশে অনেকটা স্থবিরতা বিরাজ করছে। অগ্নিসংযোগ, ভাংচুর ও নাশকতার কারণে ঘর থেকে বের হচ্ছে না মানুষ। সর্বত্রই অনেকটা আতংক বিরাজ করছে। বিভিন্ন পয়েন্ট পুলিশ, র‌্যাব ও বিজিবি টহল দিলেও আতংক কাটছে না। অবরোধের কারণে যানবাহনের অভাবে যাত্রীরা দুর্ভোগ পোহাচ্ছে। হেঁটে গন্তব্যে পৌঁছাচ্ছে মানুষ। অবরোধ সফল করতে রোববার সকাল থেকেই বিভিন্ন সড়কে অবস্থান নেন বিএনপি-জামায়াতের নেতাকর্মীরা। এ সময় তারা সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে ও গাছের গুঁড়ি ফেলে অবরোধ করে। নেতাকর্মীরা পুলিশের চোখ ফাঁকি দিয়ে বিভিন্ন স্থানে বিক্ষিপ্তভাবে যানবাহন ভাংচুর ও অগ্নিসংযোগ করেছে। অবরোধের কারণে দূরপাল্লার যানবাহন বন্ধ রয়েছে। যুগান্তর ব্যুরো ও প্রতিনিধিরা জানান-

ময়মনসিংহ ব্যুরো : সকাল থেকেই দক্ষিণ জেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক জ্বালানি প্রতিমন্ত্রী একেএম মোশাররফ হোসেন, সাধারণ সম্পাদক আবু ওয়াহাব আকন্দ, নগর বিএনপির সভাপতি অধ্যাপক শফিকুল ইসলাম, সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক শেখ আমজাদ আলীর নেতৃত্বে শহরের মাসকান্দা আন্তঃজেলা বাস টার্মিনাল ও টাঙ্গাইল বাসস্ট্যান্ড এলাকায় অবস্থান নিয়ে নেতাকর্মীরা বিক্ষোভ মিছিল ও সড়ক অবরোধ করে রাখে। এ সময় বিএনপি নেতা কাজী রানা, আলমগীর মাহমুদ আলম, মাহবুবুল আলম মাহবুব, রতন আকন্দ, শাহ শিব্বির আহমেদ বুলু, এনামুল হক আকন্দ লিটন, টুটুল, জহুরুল হক তোতা, আবদুর রাজ্জাক, মহিলা দলের সভানেত্রী অধ্যাপিকা রায়হানা ফারুক, ফারজানা রহমান হোসনা, শ্রমিক দলের আবু সাঈদ, যুবদল সভাপতি শামীম আজাদ, স্বেচ্ছাসেবক দলের শহিদুল আমিন খসরু, ছাত্রদলের শামসুল আলম উজ্জ্বল, জোবায়েদ হোসেন শাকিল, সোহেল খান প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

শেরপুর : অবরোধকারীরা একটি সিএনজিচালিত অটোরিকশা ভাংচুর করেছে। গ্রেফতার আতংকে শেরপুর জেলা বিএনপি ও অঙ্গসংগঠনের এবং জামায়াত শিবিরের অধিকাংশ নেতাকর্মী গা-ঢাকা দিয়েছে। আতংক এবং নিরাপত্তাহীনতার কারণে দূরপাল্লার বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে।

শিবগঞ্জ : কোনো রুটেই কোনো যানবাহন চলাচল করেনি। ভারতের মহদীপুর স্থলবন্দর থেকে কোনো পণ্যবাহী ট্রাক সোনামসজিদ স্থলবন্দরে প্রবেশ করেনি। পানামা ইয়ার্ডের ভেতরে শ্রমিকরাও কোনো কাজ করেনি। অবরোধের সমর্থনে সকালে বিএনপি, জামায়াত-শিবিরের মিছিল বের হয়।

পাবনা : সকালে পাবনা-নগরবাড়ী মহাসড়কের রাজাপুর, ধোপাঘাটা, পুষ্পপাড়া, জফরাবাদ, বাঙ্গাবাড়ীয়া এবং ঈশ্বরদীর ঈশ্বরদী-ঢাকা মহাসড়কের চাদআলীর মোড়সহ বিভিন্ন স্থানে রাস্তার পাশ থেকে গাছ কেটে ও ইট ফেলে সড়ক অবরোধ করে ১৮ দলের নেতাকর্মীরা। অবরোধ চলাকালে পাবনা থেকে দূরপাল্লার গাড়ি চলাচল বন্ধ রয়েছে। বন্ধ রয়েছে অভ্যন্তরীণ সড়কগুলোতে সব ধরনের যান চলাচল।

নোয়াখালী : কেন্দ্রীয় বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও জেলা বিএনপির সভাপতি মোঃ শাহজাহান, সাধারণ সম্পাদক ও নোয়াখালী পৌর মেয়র মোঃ হারুন অর রশিদ আজাদ, শহর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক আবু নাসের, জাসাস জেলা আহ্বায়ক লেয়াকত আলী খান, শহর জামায়াতের আমীর মাওলানা রুহুল আমিন, খায়রুল আলম বুলবুল, ভিপি জসিম প্রমুখের নেতৃত্বে মিছিল হয়েছে।

চুয়াডাঙ্গা : কোনো ধরনের অপ্রীতিকর ঘটনা ছাড়াই দ্বিতীয় দিনের মতো ১৮ দলের ডাকা সড়ক, রেল ও নৌপথ অবরোধ কর্মসূচি শান্তিপূর্ণভাবে পালিত হচ্ছে।

১৮ দলের অবরোধের কারণে চুয়াডাঙ্গা থেকে কোনো দূরপাল্লার যানবাহন ছেড়ে যায়নি। আন্তঃজেলা বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে। শান্তিপূর্ণ পরিবেশে অবরোধ পালিত হলেও যানবাহন চলাচল না করার কারণে জেলা ও উপজেলা শহরে কাজে কোনো লোকজন আসতে পারছে না।

মানিকগঞ্জ : বারবার পুলিশি বাধার মুখে পড়েও অবরোধের সমর্থনে সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আতাউর রহমান আতার নেতৃত্বে মানিকগঞ্জে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ করেছে বিএনপি। ঢাকা-আরিচা মহাসড়ক হয়ে শহরের খাল পাড়ে পৌঁছলে মিছিলে পুলিশ বাধা দেয় এবং ব্যানার ছিনিয়ে নেয়। পুলিশি বাধার মুখে মিছিলটি বাসস্ট্যান্ডের দিকে অগ্রসর হয়ে পৌর মার্কেটের সামনে পৌঁছলে সেখানেও পুলিশ বাধা দেয়, বাধার মুখে সেখানেই সমাবেশ করেন তারা।

নেত্রকোনা : ১৮ দলের কর্মীরা অবরোধের সমর্থনে জেলা শহরের কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের সামনে তিনটি অটোরিকশা ভাংচুর করেছে। শহরের রাজুরবাজার এলাকায় নেত্রকোনা-মোহনগঞ্জ রেলপথে স্লিপার তুলে ফেললে ওই সড়কে প্রায় ৬ ঘণ্টা ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। অবরোধ চলাকালে দূরপাল্লার কোন যানবাহন চলাচল করেনি।

লক্ষ্মীপুর : শতাধিক যাত্রী লক্ষ্মীপুর বাস টার্মিনালে গত দুই দিন থেকে আটকা পড়ছে। চরম দুর্ভোগে মানবেতর জীবনযাপন করছেন তারা।

ওইসব যাত্রী তাদের গন্তব্যে যাওয়ার জন্য ঢাকা-চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন স্থান থেকে এসে লক্ষ্মীপুর বাস টার্মিনালে আটকা পড়ে। শুক্রবার ভোররাতে ওইসব যাত্রী লক্ষ্মীপুর বাসটার্মিনালে পৌঁছলেও অবরোধের কারণে নিজ নিজ গন্তব্যে যেতে পারেনি। এদের মধ্যে শিশু ও বৃদ্ধ রয়েছেন।

নাগরপুর (টাঙ্গাইল) : কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সদস্য নাগরপুর উপজেলা বিএনপির আহ্বায়ক অ্যাডভোকেট গৌতম চক্রবর্তীর নেতৃত্বে মিছিল দলীয় কার্যালয় থেকে বের হয়। পরে অবরোধ কর্মসূচিতে উপস্থিত ছিলেন উপজেলা বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক আহম্মদ আলী রানা, হাবিবুর রহমান হবি, ফরিদুজ্জামান কোহিনুর, ফনির হোসেন ভূঁইয়া, আবুল কালাম আজাদ, রফিকুল ইসলাম দিপন, মীর খোকন, রফিজ উদ্দিন, মোঃ নজরুল ইসলাম, মিজানুর রহমান লাভলু, মোঃ এরশাদ মিয়া, জিহাদ হোসেন ডিপটি, জাহিদ হাসান প্রমুখ।

নাঙ্গলকোট (কুমিল্লা) : পৌর বিএনপির সভাপতি নুরুল আমিন জসিমের সভাপতিত্বে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সাবেক উপজেলা সেক্রেটারি নুরুল আফসার নয়ন, পৌর সেক্রেটারি জাহাঙ্গীর আলম মজুমদার, জামাত সেক্রেটারি মাওঃ মহিউদ্দিন, কমিশনার ইউসুফ, যুবদল সভাপতি মাহবুবুল আলম সিজার, এনায়েত উল্লাহ কামাল, আবু বক্কর, জেলা ছাত্র শিবিরের সাহিত্য সম্পাদক আনোয়ার হোসেন, ছাত্রদল সভাপতি মনিরুল ইসলাম মনির, যুগ্ম আহ্বায়ক শাখাওয়াত হোসেন শাহীন, মোদাচ্ছের হোসেন লিটন, শিবির সভাপতি জোবায়ের ফয়সাল।

পীরগাছা (রংপুর) : ১৮ দল উপজেলার কদমতলায় আঞ্চলিক মহাসড়কে বিক্ষোভ মিছিল ও পথ সভা করে। এতে বক্তৃতা করেন উপজেলা বিএনপি’র সভাপতি আফছার আলী, সাধারণ সম্পাদক আলহাজ আমিনুল ইসলাম রাঙ্গা, সাংগঠনিক সম্পাদক ফরহাদ হাসান অনু প্রমুখ।

আগৈলঝাড়া : কোনো দূরপাল্লার যানবাহন ছেড়ে যায়নি বা আসেনি। পক্ষে-বিপক্ষে কোনো মিছিল-সমাবেশ হয়নি বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ স্থানে পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে।

গৌরীপুর (ময়মনসিংহ) : দূরপাল্লার কোনো বাস ছেড়ে যায়নি। শহরে লোকজনের উপস্থিতিও ছিল কম। শ্রমজীবী মানুষের বেড়েছে দুর্ভোগ। ব্যবসায়ীদের কাঁচামাল, ফল দেশের বিভিন্ন প্রান্তে আটকে নষ্ট হচ্ছে বলে জানান ব্যবসায়ী নেতা মোঃ নজরুল ইসলাম।

কালাই (জয়পুরহাট) : ইঞ্জিনিয়ার গোলাম মোস্তফা এমপির নেতৃত্বে ১৮ দলীয় জোটের নেতাকর্মীরা কালাই পৌর শহরে বিক্ষোভ মিছিল বের করে। পরে সমাবেশে বক্তৃতা কালাই থানা বিএনপির আবদুস সামাদ মাস্টার, পৌর বিএনপির সিনিয়র সহ-সভাপতি আনিছুর রহমান তালুকদার, থানা যুবদলের সভাপতি আবদুল আলিম সরকার, কালাই উপজেলা জামায়াতের আমীর অধ্যক্ষ তাইফুল ইসলাম ফিতা, অ্যাডভোকেট শাহাজাহান আলী, মোস্তাক আহাম্মেদ সিদ্দিকী রিপন প্রমুখ।

পটুয়াখালী : পুলিশের বাধার মুখে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন, গাজী আশফাকুর রহমান বিপ্লব, মশিউর রহমান মিলন, মনিরুল ইসলাম লিটন, তৌফিক আলী খান কবির, মেহেদী হাসান নান্নু, গাজী মিজানুর রহমান সাঈদ, অ্যাডভোকেট রুহুল আমিন রেজা, মোঃ কামাল হোসেন, মেহেদী হাসান নান্নু, রুহুল আমিন সিকদার আকরাম, মোঃ রফিক খোন্নার, মোঃ রিমানুল ইসলাম রিমু, শাহিন বিহারী, মেহেদী হাসান জাহাঙ্গীর প্রমুখ।

ফরিদগঞ্জ : সমাবেশে উপস্থিত ছিলেন রফিকুল ইসলাম, মাহফুজুর রহমান, মহসীন মোল্লা, মজিবুর রহমান, বিল্লাল হোসেন, বোরহান উদ্দিন, টুটুল পাটওয়ারী, রফিক পাটওয়ারী, জাহাঙ্গীর মাস্টার, ফজলুর রহমান, মামুন হোসেন পাটওয়ারী, হাছান মাহমুদ, আক্তার, নজরুল, মাসুদ, আরিফ, আনোয়ার হোসেন, মোঃ আলী, নাজিম উদ্দিন, ছাত্রদলের মহসীন, সাইফুল, মানিক, জাহাঙ্গীর, ইসমাইল, তুহিন, সুমন, জুয়েল, রাজিব, শ্রমিক দলের আঃ কাদির, আজিম খান, বেলায়েত প্রমুখ।

গৌরনদী : দূরপাল্লার কোনো বাস ট্রাক চলাচল করেনি।

ইজিবাইক, টেম্পো, নসিমন, ভ্যান রিকশা স্বাভাবিকভাবে চলাচল করেছে। অবরোধের পক্ষে বিপক্ষে কোনো সভা সমাবেশ হয়নি।

গুরুদাসপুর : মিছিল শেষে প্রতিবাদ সভায় বক্তব্য রাখেন, পৌর বিএনপির সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান শাহ, উপজেলা উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান মোঃ আলী আজম, দুলু মুক্তি সংগ্রাম পরিষদের সভাপতি মোঃ শরিফুল ইসলাম বিপ্লব, ছাত্রদল নেতা এম সময় হাসান, নুরুজ্জামান সিদ্দিকি রাজু, ইয়ারুল কাজী, নুরুজ্জামান, সালাউদ্দিন সোহেল, সুরুজ প্রমুখ।

শায়েস্তাগঞ্জ : বিক্ষোভ সমাবেশে পৌর যুবদলের সভাপতি আবদুল মজিদ কাউন্সিলরের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক কামরুল হাসান রিপনের পরিচালনায় বক্তব্য রাখেন, শায়েস্তাগঞ্জ পৌর বিএনপির সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ তানভীর আহমেদ জুয়েল, পৌর স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক সাইদুর রহমান কাউন্সিলর, মঈনুল হাসান রতন, ইফতেকার আলম ইকবাল প্রমুখ।

তাহিরপুর (সুনামগঞ্জ) : বক্তব্য রাখেন, জেলা বিএনপির সহ-সভাপতি আনিসুল হক, বোরহান উদ্দিন, জুনাব আলী, ফেরদৌস আলম, মুহিবুর রহমান, লুৎফুর রহমান, নুরুল হক, এমদাদুল হুদা, শফিক মিয়া, শাহ আলম প্রমুখ।

আমতলী : মামলার কারণে বিএনপি নেতাকর্মীদের রাজপথে দেখা যায়নি। আমতলী থেকে দূরপাল্লার কোনো যানবাহন ছেড়ে যায়নি। তবে অভ্যন্তরীণ রুটে যানবাহন চলাচল অব্যাহত ছিল।

দৌলতখান : জেলা সদরের সঙ্গে দৌলতখানের যাত্রীবাহী বাস চলাচল করেনি। তবে দিনভর রিকশা, অটোরিকশাসহ ছোট ছোট যানবাহন অবাধে চলাচল করেছে। দৌলতখান ও ভোলা সদর সীমান্তবর্তী কন্ট্রাকটর বাড়ির সামনে অবরোধ সমর্থকরা সকালের দিকে কয়েকটি ইজিবাইক ভাংচুর করেছে।

মির্জাপুর (টাঙ্গাইল) : সমাবেশে বক্তৃতা করেন উপজেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক সংসদ সদস্য আবুল কালাম আজাদ সিদ্দিকী, পৌর বিএনপির সভাপতি হযরত আলী মিঞা, সাধারণ সম্পাদক মোঃ জুলহাস মিয়া, ফিরোজ হায়দার খান, আবদুল কাদের সিকদার, মৃধা নজরুল ইসলাম, খন্দকার জয়নাল আবেদীন, যুবদল নেতা গোলাম মোস্তফা জীবন, জসিম উদ্দিন খান, আবদুর রাজ্জাক সিদ্দিকী, সেতু হায়দার খান প্রমুখ।

কাউখালী (পিরোজপুর) : দক্ষিণাঞ্চলের কচা নদীর থেকে অন্যতম পারাপারের মাধ্যম বেকুটিয়া ফেরি বন্ধ থাকায় যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। পিরোজপুর-কাউখালী-স্বরূপকাঠী সড়কে কোনো যানবাহন চলাচল করেনি ফলে বন্ধ আছে আমরাজুড়ী ফেরি। অবরোধে নৌ-পথে ছেড়ে যায়নি ঢাকার ও স্থানীয় ছোট-বড় লঞ্চ।

হোসেনপুর (কিশোরগঞ্জ) : সকালে হোসেনপুর-কিশোরগঞ্জ সড়কের রামপুর এলাকায় দলীয় নেতাকর্মীরা অবস্থান নিলে যান চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। পরে পুলিশের উপস্থিতিতে যান চলাচল স্বাভাবিক হয়। তবে কোনো ধরনের সহিংসতা ও অপ্রীতিকর ঘটনার খবর পাওয়া যায়নি।

বকশীগঞ্জ : বিএনপি সভাপতি আবদুর রউফ তালুকদারের নেতৃত্বে মিছিল শেষে উত্তরবাজার দলীয় কার্যালয় সামনে সমাবেশে বক্তব্য রাখেন সহ-সভাপতি আবদুল হালিম, রকিবুল হাসান বাবুল, ইউপি চেয়ারম্যান ফখরুজ্জামান মতিন, শ্রমিক দলের সভাপতি কাইছার আমীন, কৃষক দলের সম্পাদক ওবায়দুল ইসলাম প্রমুখ।

আখাউড়া : অবরোধকারীরা স্থলবন্দর, মহাসড়কের খরখার-আখাউড়া, মোগড়া-মনিয়ন্দ, কর্নেলবাজার-গঙ্গাসাগর বাইপাস সড়কের মোড়, নারায়ণপুর মোড়, নূরপুর এবং গাজীরবাজার এলাকায় টায়ারে আগুন দিয়ে সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ করে দেয়।

ছাগলনাইয়া : সকালে পৌর ছাত্রদলের সভাপতি মোশারফ হোসেন খোন্দকারের নেতৃত্বে একদল পিকেটার ফেনী-ছাগলনাইয়া সড়কে টায়ার জ্বালিয়ে সব ধরনের যান চলাচল বন্ধ করে দেয়।

দিরাই : বিএনপির আসফিয়া গ্র“পের সমর্থকরা উপজেলা সদরে বিক্ষোভ মিছিল করেছে। জেলা বিএনপির সদস্য আবদুশ শহিদ চৌধুরীর নেতৃত্বে বিক্ষোভ মিছিলটি স্থানীয় বিএনপির কার্যালয় থেকে বের হয়ে পৌর শহরের বিভিন্ন রাস্তা প্রদক্ষিণ করে থানা পয়েন্টে এসে শেষ হয়।

দুমকি : পুলিশি টহল জোরদার থাকায় কোথাও কোনো সহিংসতার ঘটনা ঘটেনি। দূরপাল্লা ও অভ্যন্তরীণ রুটের পরিবহন এবং যাত্রীবাহী বাস চলাচল বন্ধ রয়েছে।

কমলগঞ্জ : বাস চলাচল বন্ধ থাকলেও হালকা বাহন সিএনজি অটোরিকশা চলাচল করেছে। তাছাড়া অবরোধে সড়কপথে নাশকতা হওয়ার আশংকায় লোকজন চলাচলও করে অনেক কম।

সাটুরিয়া (মানিকগঞ্জ) : রাস্তায় পুলিশ মোতায়েন থাকলেও পুরো এলাকায় সাধারণ মানুষ আতংকে রয়েছে। নাশকতা এড়াতে উপজেলা বিএনপি ও ১৪ দলনেতা কর্মীদের ওপর কঠোর নজরদারি রেখেছে থানা পুলিশ।


 

 
শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র