¦

এইমাত্র পাওয়া

  • বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম পার্শ্বে কোনাবাড়ি এলাকায় বাসে পেট্রোল বোমা হামলা: ৬ যাত্রী দগ্ধ ২ জনের অবস্থা আশংকাজনক
কুমিল্লার পুরনো গোমতী নদী প্রভাবশালীদের দখলে

নজরুল ইসলাম দুলাল, কুমিল্লা ব্যুরো | প্রকাশ : ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৫

কুমিল্লার পুরনো গোমতী নদী এখন রাজনৈতিক নেতা ও প্রভাবশালীদের দখলে চলে গেছে। দখল হওয়া নদীর এ বিশাল এলাকাজুড়ে সরকারি জমিতে নির্মিত হয়েছে দোকানপাট ও বহুতল ভবন। বর্তমানে প্রভাবশালী অবৈধ দখলদারদের ৭৭২ জনের তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। তবে গত এক যুগ ধরে অবৈধ দখলদার উচ্ছেদ করার জন্য প্রশাসন থেকে পদক্ষেপ নিলেও রাজনৈতিক ও বিভিন্ন কারণে আজও তা কার্যকর হয়নি। চলতি বছরের জানুয়ারিতে প্রস্তুতকৃত হালনাগাদ তালিকা অনুযায়ী ২৫৮.৭৪ একর স্থানে অবৈধ দখলদারদের উচ্ছেদ করা হবে এমন খবর জেনে দখলদাররা অভিযান ঠেকাতে বিভিন্ন রাজনৈতিক ও প্রশাসনিকভাবে তদবির অব্যাহত রেখেছে বলে জানা গেছে। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, প্রাচীন জেলা কুমিল্লার ঐতিহ্য গোমতী নদী। ভারতের ত্রিপুরা রাজ্যের ভেতর দিয়ে প্রবাহিত হয়ে কুমিল্লার বিবিরবাজার সীমান্তে কুমিল্লা জেলায় প্রবেশ করে গোমতী নদী। এ নদীর গতিপথ পরিবর্তন করা হলে শহরের উত্তর প্রান্তের কাপ্তানবাজার থেকে শুভপুর পর্যন্ত দীর্ঘ নদীটি পুরনো গোমতী নদী নামে পরিচিতি লাভ করে। এরপর থেকে রাজনৈতিক ও স্থানীয় প্রভাবশালীরা অবৈধভাবে দখল করে নির্মাণ করে বাড়িঘর ও দোকানপাট। কেউ কেউ সংশ্লিষ্ট প্রশাসনের যোগসাজশে বহুতল ভবনও নির্মাণ করে ফেলেছে। সূত্র জানায়, শুভপুর, চাঁনপুর, সুজানগর, গাংচর, টিক্কারচর, গয়ামবাগিচা, মোগলটুলী (শাহসুজা মসজিদ রোড), পুরাতন চৌধুরীপাড়া, কাপ্তানবাজার, ভাটপাড়া, বিষ্ণপুর ও বজ পুর এলাকার মধ্যে পুরাতন গোমতীর দুই পাড়ের প্রায় ২শ একর সরকারি ভূমি অবৈধ দখলদারদের কবলে রয়েছে। এর মধ্যে ৫২২ জন অবৈধ দখলদারের তালিকা করা হয়েছে। ২০০৩ সাল থেকে এসব অবৈধ দখলদারকে ৮-৯ বার উচ্ছেদ নোটিশ দেয়া হয়। দখলদারদের মধ্যে রাজনৈতিক প্রভাবশালী নেতা থাকায় উচ্ছেদ কার্যক্রম পরিচালনায় বিঘ্ন সৃষ্টি হওয়ায় এ পর্যন্ত কার্যকর পদক্ষেপ নিতে পারেনি সংশ্লিষ্ট প্রশাসন। জানা যায়, আদর্শ সদর উপজেলা ভূমি অফিসের আওতাধীন অবৈধ দখলীয় খাস জমি ও জলাভূমির তথ্য অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) বরাবরে ১৮ জানুয়ারি প্রেরণ করেন আদর্শ সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. শামীম হোসেন। ওই তথ্যে অবৈধ দখলীয় কৃষি জমির পরিমাণ ১৫৬.৭৪ একর, অবৈধ দখলীয় অকৃষি খাস জমির পরিমাণ ১০২ একর উল্লেখ করে ওই অবৈধ দখলীয় ভূমি থেকে অবৈধ দখলদারমুক্ত করার পরবর্তী প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণের জন্য উল্লেখ করা হয়। সূত্র আরও জানায়, বহমান গোমতী নদীর জিরো পয়েন্ট থেকে ১৫ কিলোমিটার পর্যন্ত দক্ষিণ কটকবাজার থেকে আমতলী, আড়াইওড়া, আলেখারচর, দুর্গাপুর, ছত্রখীল, বানাসুয়া, রত্নবতী, দক্ষিণ রসুলপুর, গাজীপুর, অরণ্যপুর, জগন্নাথপুর, বদরপুর ও সংরাইশ পর্যন্ত এলাকায় সর্বমোট ৭২২ জন অবৈধ দখলদারের তালিকা প্রস্তুত করা হয়েছে। সরেজমিন ঘুরে দেখা গেছে, উত্তর প্রান্তে শুভপুর এবং দক্ষিণ-পূর্ব প্রান্তে চকবাজার হয়ে টিক্কারচর শ্মশানঘাট পর্যন্ত গোমতী নদীর ৪ নম্বর অংশে পূর্ব প্রান্তে টিক্কারচর সুইপার কলোনির পর থেকে শ্মশানের আগ পর্যন্ত বিশাল অংশজুড়ে নদীর পাড় দখলের সঙ্গে নদীর অংশও দখলে নিয়ে অবৈধভাবে শতাধিক ঘর নির্মাণ করা হয়েছে। নদীর উত্তরপাড়ের শুভপুরের পুলের মাথার আগে খোদ নদীর অংশ দখল করে সেখানে গড়ে উঠেছে একটি ফ্যাক্টরি। উত্তর পাড় দিয়ে সামনের দিকে পশ্চিমে এগুলো দেখা যাবে সফিক মিয়া নামে এক লোক নদীর অংশের প্রায় ৩ শতক দখল করে মাটি ফেলে তাতে বাড়ি ও দোকানকোঠা নির্মাণ করেছেন। আদর্শ সদর উপজেলা সহকারী কমিশনার (ভূমি) মো. শামীম হোসেন জানান, অবৈধ দখলীয় ভূমি থেকে অবৈধ দখলদারমুক্ত করার লক্ষ্যে উচ্ছেদ কার্যক্রম সহসাই গ্রহণ করা হবে। এ বিষয়ে অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. আবদুল মতিন জানান, অবৈধ দখলদারদের হালনাগাদ তালিকা করা হয়েছে। এ বিষয়ে আমাকে সভাপতি করে একটি কমিটিও গঠন করা হয়েছে। কমিটির সিদ্ধান্তের আলোকে সহসাই প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হবে।
বাংলার মুখ পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close