¦
বিভিন্ন স্থানে শিলাবৃষ্টিতে ফসল ও বাড়িঘরের ব্যাপক ক্ষতি

যুগান্তর ডেস্ক | প্রকাশ : ২০ ফেব্রুয়ারি ২০১৫

বটিয়াঘাটা, চৌগাছা, কেশবপুর, লড়াইল, মহেশপুর, আলমডাঙ্গা, জীবননগর, সাঁথিয়া, কালাই, পুঠিয়া, গোবিন্দগঞ্জসহ বিভিন্ন এলাকায় শিলাবৃষ্টিতে ফসল ও বাড়িঘরের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। এছাড়া মানিকগঞ্জ ও অভয়নগরে বজ পাতে দুজনের মৃত্যু হয়েছে। যুগান্তর ব্যুরো ও প্রতিনিধিরা জানান-
খুলনা ব্যুরো : বুধবার রাতে সাড়ে ৮টা থেকে সাড়ে ১১টা পর্যন্ত বটিয়াঘাটা উপজেলা ও এর আশপাশে শিলাবৃষ্টি হয়। ৩ ঘণ্টার শিলা বৃষ্টিতে বাঁশবাড়িয়া গ্রামসহ আশপাশের ২টি এলাকার দেড় হাজার টিনের ঘর বিধ্বস্ত করে দেয়। এতে ওই এলাকার প্রায় ১০ হাজার মানুষ সারা রাত দুর্ভোগ পোহায়। প্রতিটি বাড়ির লোকজনই বিপদগ্রস্ত হয়েছে। শিলের আঘাতে প্রতিটি বাড়ির টিনের চালা ছিদ্র হওয়াসহ ব্যাপক ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে।
যশোর ব্যুরো : ঝড়ের বেগে পড়া বড় বড় শিলার আঘাতে টিনের ঘরের চাল ছিদ্র হয়ে গেছে। এরপর বৃষ্টিতে ভেসে গেছে ঘর। আর মাঠের ফসল মসুর, গম, ধান, সবজি মাটিতে মিশে গেছে। চৌগাছা উপজেলার সুখপুকুরিয়া ও স্বরুপদাহ ইউনিয়নের অন্তত দশটি গ্রামের কৃষক বাড়ি ও ফসল হারিয়ে দিশেহারা হয়ে পড়েছে। চোখে অন্ধকার দেখছেন। চৌগাছা ছাড়াও শার্শা, মণিরামপুর, অভয়নগর উপজেলায় বুধবার ও বৃহস্পতিবার সকালের শিলাবৃষ্টি ও ঝড়ে বাড়ি ঘর এবং ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে।
নড়াইল : নড়াইলে ঝড় ও শীলাবৃষ্টিতে শতাধিক কাঁচা ঘর বাড়ি ও গাছপালা উপড়ে গেছে। এছাড়া গম, মসুর, মটর ও কলাইয়ের ক্ষতি হয়েছে। বুধবার রাত ১০টার দিকে নড়াইলের ওপর দিয়ে শিলাবৃষ্টি ও ঝড় বয়ে যায়।
মহেশপুর (ঝিনাইদহ) : বুধবার দিবাগত রাতে ও বৃহস্পতিবার ভোরে মহেশপুরে ব্যাপক ঝড় ও শিলাবৃষ্টিতে উঠতি ফসলের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে, লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে বসতবাড়ী, দিশেহারা হয়ে পড়েছে সাধারণ মানুষ।
আলমডাঙ্গা : বুধবার আলমডাঙ্গাসহ পার্শ্ববর্তী এলাকায় দীর্ঘ সময় ধরে মুষল ধারে বৃষ্টিসহ কিছু স্থানে শিলা বৃষ্টি হয়েছে। এতে আমের মুকুলসহ বিভিন্ন ধরনের ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। বৃষ্টিতে মাটির ঘরের দেওয়াল ধসে পাঁচ কমলাপুর বিশ্বাসপাড়ার হাজেরা খাতুন গুরুতর আহত হয়েছেন।
জীবননগর (চুয়াডাঙ্গা) : উপজেলার অধিকাংশ গ্রাম বুধবার রাতে শিলাবৃষ্টির আঘাতে লণ্ডভণ্ড হয়ে গেছে। ঘণ্টাব্যাপী এ শিলাবৃষ্টিতে উঠতি ভুট্টা, তামাক, কলাক্ষেত, পানবরজ, মসুরি, গম, শাকসবজি ক্ষেত ও আমের মুকুলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে এবং গম ও ধান শিলাবৃষ্টির কারণে মাটির সঙ্গে নুইয়ে পড়েছে। এছাড়া বড় বড় আকৃতির শিলাবৃষ্টির আঘাতে উপজেলার শতাধিক বাড়ি ঘরের টিনের চাল চালুনির মতো ছিদ্র হয়ে গেছে।
সাঁথিয়া (পাবনা) : বৃহস্পতিবার দুপুরে শিলা বৃষ্টিতে সাঁথিয়া পৌরসভা, নন্দনপু, ধোপাদহ, ভুলবাড়িয়া, ধুলাউড়ি ইউনিয়নের রোপণকৃত গম, পিঁয়াজ, রসুন, মরিচ সবজি ফসলের ক্ষতি হয়েছে।
কালাই (জয়পুরহাট) : কালাইয়ে প্রচণ্ড শিলা বৃষ্টিপাতে আলু, সরিষা, বোরো ধানের বীজ তলাসহ বিভিন্ন শাকসব্জি ক্ষেতের ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি হয়েছে। বুধবার দিবাগত রাতে প্রায় ২ ঘণ্টা ধরে এ শিলা বৃষ্টিপাতের কারণে এসব ফসলের ক্ষেত ডুবে যাওয়াই সব চেয়ে বিপাকে পড়েছে প্রান্তিক ও দরিদ্র বর্গাচাষীরা। শুধু আলু আর ধান ক্ষেতই নয় শিলা বৃষ্টিতে ঝরে গেছে আমের মুকুল ও ক্ষেতের সরিষাও।
বেনাপোল : শার্শা উপজেলার ডিহি ইউনিয়নসহ ২১টি গ্রামে শিলাবৃষ্টি ও ঝড়ে হরিত ফসল, বোরো ধান, ঘরবাড়ি , ফলজ ও বনজ বৃক্ষের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। বুধবার রাতে এক ঘণ্টার শিলাবৃষ্টি ও ঝড়ের তাণ্ডবে সব কিছু লণ্ডভণ্ড করে দেয়। এ এলাকার শিলাবৃষ্টিতে ধান, গম, মসুর, আম ক্ষতি হয়েছে।
পুঠিয়া : বৃহস্পতিবার সকালে শিলা-বৃষ্টিতে আগাম চৈত্রালী ফসল মসুর, গম, রসুনসহ বিভিন্ন ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। তবে খরার প্রভাব আসার পূর্বে বৃষ্টিপাত হওয়ায় আমসহ বিভিন্ন ফসলের জন্য উপকার হয়েছে।
গাইবান্ধা : গাইবান্ধার বিভিন্ন এলাকায় শিলা বৃষ্টিতে কাঁচা ঘরবাড়ি ও ফসলের ক্ষতি হয়েছে। বিশেষ করে গোবিন্দগঞ্জ উপজেলার সাপমারা, কাটাবাড়ী, কামদিয়া, শাখাহার, রাজাহার ও গুমানীগঞ্জ ইউনিয়নে গাছপালা, সবজি ক্ষেত এবং বিভিন্ন ফলের বাগানের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে।
মানিকগঞ্জ : মানিকগঞ্জ সদর উপজেলার আটিগ্রাম ইউনিয়নের মাধবপুর গ্রামে বজ পাতে মারা গেছেন এক নির্মাণ শ্রমিক। নিহত শ্রমিক ওই গ্রামের নুরুল ইসলামের ছেলে। এদিকে দৌলতপুর উপজেলার চকমিরপুর, চরকাটারী, বাচামারা, বাঘুটিয়া, কলিয়া, খলসী, জিয়নপুর, ধামশ্বর এই ৮টি ইউনিয়নে বৃহস্পতিবার দুপুরে ব্যাপক শিলা বৃষ্টি হয়েছে। এতে মৌসুমের সরিষা, গম, আলু, পিঁয়াজ, মরিচ, ভুট্টাসহ আবাদী রবি শস্যের ব্যাপক ক্ষতি সাধিত হয়। দৌলতপুর পূর্ব পাড়া গ্রামের কৃষক মো. সামেজ উদ্দিন জানান, তার তিন বিঘা গম খেতে ব্যাপক শিলা পড়ে খেতের অর্ধেক গমের বাইল নষ্ট হয়ে গেছে।
অভয়নগর : অভয়নগরে বজ পাতে মমতাজ বেগম (৪০) নামের এক গৃহবধূ নিহত হয়েছেন এবং গুরুতর
আহত হয়েছেন তার স্বামী ইউপি সদস্য মকর আলী (৪৫)। বৃহস্পতিবার ভোরে উপজেলার গাজীপুর গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।
বাংলার মুখ পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close