¦
সম্প্রীতির প্রত্যয়ে বর্ষবরণ

যুগান্তর ডেস্ক | প্রকাশ : ১৬ এপ্রিল ২০১৫

সামাজিক সম্প্রীতির প্রত্যয়ে সারা দেশে মঙ্গলবার উদযাপিত হয়েছে বাংলা ১৪২২ বর্ষবরণ উৎসব। দিবসটি উপলক্ষে পান্তা-ইলিশ খাওয়ার পাশাপাশি প্রশাসন ও বিভিন্ন সংগঠনের উদ্যোগে মঙ্গল শোভাযাত্রা, আলোচনা সভা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান, বিভিন্ন প্রতিযোগিতা ও বৈশাখী মেলা অনুষ্ঠিত হয়। যুগান্তর ব্যুরো ও প্রতিনিধিরা জানান-
খুলনা ব্যুরো : দক্ষিণ-পশ্চিমাঞ্চলের সবচেয়ে বড় বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা ও বৈশাখী মেলা উৎসবমুখর পরিবেশে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ে উদযাপিত হয়। এ উপলক্ষে বিশ্ববিদ্যালয় ক্যাম্পাসে দু’দিনব্যাপী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। বিশ্ববিদ্যালয় মাঠে বৈশাখী মেলা অনুষ্ঠিত হয়। এবার খুলনায় ব্যতিক্রমী বর্ষবরণ উৎসব আয়োজন করে কোয়ান্টাম ফাউন্ডেশন। সংগঠনটির উদ্যোগে সকাল ৭টায় শহীদ হাদিস পার্কের পুকুর পাড়ে আলোচনা, মেডিটেশন ও সাংস্কৃতিক উৎসবের আয়োজন করা হয়। পহেলা বৈশাখ সকালে খুলনা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. মোহাম্মদ ফায়েক উজ্জামান ক্যাম্পাসে প্রধান অতিথি হিসেবে বেলুন ও পায়রা উড়িয়ে বৈশাখী মেলার উদ্বোধন করেন। পরে নগরীর শিববাড়ী মোড় থেকে ময়লাপোতা মোড় হয়ে রয়্যাল চত্বর পর্যন্ত বাংলা নববর্ষের বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের হয়। এছাড়া জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে সকাল ৭টায় শিববাড়ী মোড় থেকে অফিসার্স ক্লাব পর্যন্ত মঙ্গল শোভাযাত্রা, সাড়ে সাতটায় জেলা প্রশাসক বাংলোর বকুলতলায় পান্তা উৎসব ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান এবং জাতিসংঘ শিশুপার্কে ৩ দিনব্যাপী বৈশাখী মেলা, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান হয়। খুলনা জেলা পরিষদের উদ্যোগে সকাল সাড়ে ৮টায় পান্তা ইলিশ ও সকাল ৯টায় সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান পরিষদের সম্মেলন কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়। খুলনা সাংবাদিক ইউনিয়নের উদ্যোগে প্রেস ক্লাবে সকাল ৯টায় আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়।
ময়মনসিংহ ব্যুরো : বর্ষবরণ উদযাপন পর্ষদের উদ্যোগে মঙ্গলবার সকালে শহরের স্টেশন রোড ট্রাফিক মোড় থেকে অনুষ্ঠিত শোভাযাত্রার উদ্বোধন করেন ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান। এ সময় জেলা প্রশাসক মুস্তাকীম বিল্লাহ ফারুকী, বর্ষবরণ উদযাপন পর্ষদের আহ্বায়ক অধ্যাপক আমীর আহম্মেদ চৌধুরী রতন, পৌর মেয়র ইকরামুল হক টিটু, জেলা আওয়ামী লীগ নেতা মজিবুর রহমান খান মিল্কি, অ্যাডভোকেট মোয়াজ্জেম হোসেন বাবুল, জাসদ নেতা সাদিক হোসেন, সাংবাদিক জিয়াউদ্দিন আহমেদ, জেলা নাগরিক আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক ইঞ্জিনিয়ার নুরুল আমিন কালাম, অ্যাডভোকেট নজরুল ইসলাম চুন্নু, অ্যাডভোকেট আবদুল মোত্তালেব লাল প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন। এর আগে সকালে ময়মনসিংহ প্রেস ক্লাব আয়োজিত হাঁটা প্রতিযোগিতা, আলোচনা অনুষ্ঠান ও পুরস্কার বিতরণীতে ধর্মমন্ত্রী অধ্যক্ষ মতিউর রহমান অংশ নেন। নর্ববর্ষ উপলক্ষে ময়মনসিংহ ক্লাব, ময়মনসিংহ পৌরসভাসহ বিভিন্ন সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠন দিনব্যাপী অনুষ্ঠানমালার আয়োজন করে।
বগুড়া ব্যুরো : বগুড়ায় নতুন বছরকে বরণ করতে সরকারি ও বেসরকারিভাবে নানা কর্মসূচি পালিত করা হয়েছে। জেলা প্রশাসন, যুগান্তর স্বজন সমাবেশ, বগুড়া থিয়েটার, বগুড়া আর্ট কলেজ, সরকারি আযিযুল হক কলেজ, লাইট হাউস, দিন বদলের মঞ্চসহ বিভিন্ন সংগঠন পৃথক পৃথক কর্মসূচি পালন করেছে। যুগান্তর স্বজন সমাবেশ শহরের জলেশ্বরীতলায় অনন্যা লেডিস টেইলার্সে পান্তা উৎসবের আয়োজন করে। পৌর পার্কের ওস্তাদ আলাউদ্দিন মুক্তমঞ্চে বগুড়া থিয়েটারের উদ্যোগে ৫ দিনব্যাপী ৩৪তম বৈশাখী মেলা উদ্বোধন হয়েছে। বিশিষ্ট সঙ্গীতশিল্পী শওকত হায়াত খান এর উদ্বোধন করেন। এটিএন বাংলা ও এটিএন নিউজের চেয়ারম্যান ড. মাহফুজুর রহমানকে নাগরিক সংবর্ধনা দেয়া হয়। প্রধান অতিথি ছিলেন, সংসদ সদস্য আবদুল মান্নান। পরে শহরে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের করা হয়।
রাবি : ভোরের আলো ফুটতে না ফুটতেই রাজশাহী বিশ্ববিদ্যালয়েও ঢল নামে আবাল-বৃদ্ধ-বণিতার। জাতি, ধর্ম, বর্ণ নির্বিশেষে সবাই মেতে ওঠে একই আহ্বানে। বেলা বাড়তেই লোকে-লোকারণ্য হয়ে পড়ে ক্যাম্পাস। বিশেষ করে চারুকলা বিভাগের চত্বর, পুরাতন ফোকলোর চত্বর, টুকিটাকি চত্বর, শহীদুল্লাহ কলাভবন চত্বর, শহীদ মিনার, সাবাস বাংলাদেশের মাঠে তিল ধারণের ঠাঁই ছিল না। ক্যাম্পাসে ঘুরে দেখা যায়, ঘুরতে আসা নানা বয়সের মানুষের পরনে আল্পনা আঁকা বৈশাখী শাড়ি, রং-বেরঙের পাঞ্জাবি-ফতুয়া। মাথায় জাতীয় পতাকা। মুখে আল্পনা। হৃদয়ে প্রাণের স্পন্দন। সব হিংসা-বিদ্বেষ আর ভেদাভেদ ভুলে সবার চোখমুখ পুলকিত। এ যেন নব উদ্যমে পথ চলার দৃঢ় প্রত্যয়। সকাল সাড়ে ৯টার দিকে বিশাল মঙ্গল শোভাযাত্রা বের করা হয় বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা বিভাগের উদ্যোগে। এ শোভাযাত্রা উদ্বোধন করেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিসি প্রফেসর ড. মুহম্মদ মিজানউদ্দিন। এ সময় উপস্থিত ছিলেন, প্রো-ভিসি প্রফেসর চৌধুরী সারওয়ার জাহান, বিভাগীয় সভাপতি অধ্যাপক আবদুল মতিন তালুকদার প্রমুখ। দেশের রাজনৈতিক অস্থিরতা এবং অশান্তির ঢামাঢোল ভুলে জাতীয় ঐক্যের প্রতীক হয়ে মঙ্গল শোভাযাত্রায় এবার ছিল জাতীয় পাখি দোয়েল। এছাড়া ছিল বাঘ, হাতি, ঘোড়া, পেঁচাসহ বিভিন্ন ধরনের মুখোশ এবং বেশ কয়েকটি বৃহদাকার পাখা।
বর্ষবরণে শোভাযাত্রা বের করে রাবির কেন্দ্রীয় সাংস্কৃতিক জোট। জোটের উদ্যোগে বৈশাখের আগের দিন বিশ্ববিদ্যালয়ের ফোকলোর চত্বরে আয়োজন করা হয় যাত্রা পালার। এছাড়া নববর্ষকে স্বাগত জানাতে শোভাযাত্রা বের করে বিশ্ববিদ্যালয়ের স্বেচ্ছাসেবী সংগঠন রাবি ক্যারিয়ার ক্লাব, রোটার‌্যাক্ট ক্লাব, বিএফডিএফ, রক্তদাতা সংগঠন স্বজন, বাঁধন, রাবি সাংবাদিক সমিতি, রিপোর্টার্স ইউনিটি, প্রেস ক্লাবসহ বিভিন্ন সংগঠন শোভাযাত্রাসহ বিভিন্ন অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। এবারের উৎসব শেষ হল। কিন্তু বছর ঘুরে আবারও আমাদের মাঝে আসবে নতুন একটা বছর। নতুন উৎসব। তারই অপেক্ষায় আবারও সুখ-দুঃখের মাঝে প্রহর গুণতে গুণতে এগিয়ে যাওয়া। কবির ভাষায়, ‘নববর্ষের এই মনিহার ছন্দহারে/তোমায় দিলাম তোমায় দিলাম/ ময়ূরকণ্ঠী চিরচেনা অচিন পাখি/সুনীল আকাশ মাঠ পেরিয়ে/ ভালোবাসার ঠোঁটে করে/ আসবে ফিরে বারে বারে/ মিষ্টি গলায় শিউলি ভোরে’।
রাজশাহী ব্যুরো : ভোরে সূর্যোদয়ের পর এসো হে বৈশাখ, এসো এসো... গানের মধ্যে দিয়ে মহানগরীর পদ্মা পাড়ের ফুদকিপাড়ার উন্মুক্ত মঞ্চে শুরু হয় বাংলা বর্ষবরণের বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠান। সেখানে আয়োজন করা হয় পান্তা-ইলিশ উৎসবের। দিনব্যাপী অন্যান্য অনুষ্ঠানের মধ্যে ছিল সঙ্গীত পরিবেশন, নৃত্য, আবৃত্তি, চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা, গ্রামীণ খেলা, গম্ভীরা ইত্যাদি। অপরদিকে সকাল সাড়ে ৭টায় মহানগরীর আলুপট্টি বঙ্গবন্ধু চত্বর থেকে সম্মিলিত সাংস্কৃতিক জোটসহ বিভিন্ন সামাজিক ও পেশাজীবী সংগঠনের উদ্যোগে বর্ণাঢ্য মঙ্গল শোভাযাত্রা বের করা হয়। এছাড়া জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে এর পরপরই একটি পৃথক শোভাযাত্রা বের করা হয়। শোভাযাত্রাটি রাজশাহী শিশু একাডেমিতে গিয়ে শেষ হয়। এতে নেতৃত্ব দেন রাজশাহী সদর আসনের সংসদ সদস্য ফজলে হোসেন বাদশা। পরে সেখানে উন্মুক্ত মঞ্চে শুরু হয় দিনব্যাপী সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। বসেছে বৈশাখী মেলা।
যশোর ব্যুরো : সকালে কালেক্টরেট চত্বর থেকে জেলা প্রশাসক ড. হুমায়ুন কবিরের নেতৃত্বে সামাজিক সাংস্কৃতিক রাজনৈতিক সংগঠনের বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ অংশগ্রহণ করেন। শোভাযাত্রাটি শহরের গুরুত্বপূর্ণ সড়ক প্রদক্ষিণ করে। দিনব্যাপী বর্ণাঢ্য অনুষ্ঠানামালায় নববর্ষ উদযাপন করেছে সুরবিতান, সুরধুনী, বিবর্তন, চাঁদেরহাট, পুনশ্চ, শেকড়, উদীচী, তির্যক, ইন্সটিটিউট নাট্যকলা, মাইকেল সংগীত একাডেমি, নন্দন, কিংশুক, স্পন্দনসহ অর্ধশত সাংস্কৃতিক সংগঠন। এছাড়াও যশোর বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে বর্ণাঢ্য আয়োজনে বাংলা নববর্ষ উদযাপিত হয়েছে। ভিসি প্রফেসর ড. আবদুস সাত্তারের নেতৃত্বে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা অনুষ্ঠিত হয়। একই সঙ্গে পান্তা ইলিশ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। মঙ্গলবার সকালে যশোর পৌর উদ্যানে উদীচীর বর্ষবরণ উৎসবে যশোরবাসীকে শুভেচ্ছা জানান, একুশের পদকপ্রাপ্ত স্বাধীন বাংলা বেতার কেন্দ্রের সংগঠক কামাল লোহানী, সংসদ সদস্য স্বপন ভট্টাচার্য ও মনিরুল ইসলাম, যশোরের জেলা প্রশাসক ডক্টর হুমায়ুন কবীর, পুলিশ সুপার আনিসুর রহমান, রাজনীতিক কাজী আবদুস শহীদ লাল, ডা. কাজী রবিউল হক, ভারতের পশ্চিমবঙ্গের ভাষা-সংস্কৃতি স্বাধিকার আন্দোলনের সাধারণ সম্পাদক রতন বসু মজুমদার, উদীচী সভাপতি ডিএম শাহিদুজ্জামান, সাধারণ সম্পাদক সাজ্জাদুর রহমান খান বিপ্লব প্রমুখ। এ মঞ্চে উদীচীর নববর্ষ পদক প্রদান করা হয় নারী নেত্রী হাবিবা শেফাকে। বিকালে যশোর পৌর উদ্যানে নববর্ষ বরণ উৎসবের আয়োজন করে শেকড়। সন্ধ্যা অবধি এ অনুষ্ঠানে ঢল নামে হাজার হাজার মানুষের।
মাদারীপুর : স্বাধীনতা অঙ্গন থেকে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে মঙ্গল শোভাযাত্রা বের হয়।
পরে আলোচনা সভায় সভাপতি করেন জেলা প্রশাসক জিএসএম জাফরউল্লাহ। বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার খোন্দকার ফরিদুল ইসলাম, পৌর মেয়র খালিদ হোসেন ইয়া, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক কাজল কৃষ্ণ দে, সাবেক ভাইস চেয়ারম্যান হোময়রা লতিফ পান্না। এরপর জেলা প্রশাসকের বাস ভবনে পান্তা-ইলিশ খাওয়ার মহোৎসব চলে। অপর দিকে নববর্ষ উপলক্ষে উৎসবমুখর পরিবেশে মাদারীপুরের শিবচরে গ্রাম বাংলার ঐতিহ্যবাহী কুস্তি ও ঘুড়ি উড়ানো প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত হয়েছে।
গাইবান্ধা : সকালে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে স্থানীয় স্বাধীনতা প্রাঙ্গণ থেকে একটি বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের হয়ে শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। পরে স্বাধীনতা প্রাঙ্গণে তিন দিনব্যাপী বৈশাখী মেলার উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মো. এহছানে এলাহী। জাতীয় কবিতা পরিষদের উদ্যোগে স্থানীয় শহীদ মিনারে আলোচনা, কবিতা পাঠ ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। পৌর মেয়র মো. শামছুল আলমের উদ্বোধন করেন। অধ্যাপক ইবনে সিরাজের সভাপতিত্বে আলোচনায় অংশ নেন পৌর প্যানেল মেয়র মোস্তাক আহমেদ রনজু, পৌর কাউন্সিলর নাজমা শওকত, ডা. একরাম হোসেন, সিরাজুল ইসলাম বাবু, জিএসএম আলমগীর, সরোজ দেব, সাখোয়াত হোসেন বিপ্লব, দেবাশীষ দাশ দেবু প্রমুখ।
কুড়িগ্রাম : প্রশাসন ও বিছিন্ন সংগঠনের অনুষ্ঠানে অতিথি ছিলেন, সাবেক সংসদ সদস্য জাফর আলী, জেলা প্রশাসক এবিএম আজাদ, পুলিশ সুপার তবারক উল্লাহ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) ইমতিয়াজ হোসেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) এসএম আবু হোরায়রা, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট আক্তার হোসেন আজাদ, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান পনির আহমেদ, সদর নির্বাহী কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম, পিপি আব্রাহাম লিংকন, অধ্যক্ষ রাশেদুজ্জামান বাবু প্রমুখ।
জয়পুরহাট : মঙ্গলবার জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে জয়পুরহাট শহীদ ডা. আবুল কাশেম ময়দান থেকে বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রা বের হয়ে শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে জেলা কালেক্টরেট চত্বরে গিয়ে শেষ হয়। পরে সেখানে শিশুদের চিত্রাংকন প্রতিযোগিতা, আলোচনা সভা, মনোজ্ঞ সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও পান্তা ইলিশের আয়োজন করা হয়।
শেরপুর : পৌর পার্কে স্থাপিত মঞ্চে শিল্পকলা একাডেমি ও জাতীয় রবীন্দ্র সংগীত সম্মিলন পরিষদসহ বিভিন্ন সংস্থার শিল্পীদের সংগীত ও মনোমুগ্ধকর নৃত্যের মধ্য দিয়ে দিবসের সূচনা ঘটে। সেখানে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ জাকির হোসেন, পুলিশ সুপার মো. মেহেদুল করিম, মুক্তিযোদ্ধা, সাংবাদিক, শিক্ষকসহ সমাজের বিভিন্ন শ্রেণী পেশার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।
ফেনী : জেলা প্রশাসকের উদ্যোগে শহরে আনন্দ র‌্যালি ও ফেনী পিটিআই স্কুল মাঠে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন সেতু মন্ত্রী ওবায়দুল কাদের। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক হুমায়ুন কবির খোন্দকার। এছাড়াও ফেনী সদর উপজেলার লেমুয়া শেখ রাসেল স্মৃতি সংসদের উদ্যোগে সপ্তাহব্যাপী বৈশাখী মেলার আয়োজন করা হয়।
নওগাঁ : নওগাঁ সদর আসনের সংসদ সদস্য আবদুল মালেক ও জেলা প্রশাসক মো. এনামুল হকের নেতৃত্বে শোভাযাত্রাটি শহরের বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে। র‌্যালিতে পুলিশ সুপার কাইয়ুমুজ্জামান খান, স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক নজরুল ইসলাম, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মেহেদি উল শহিদ, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) জাহাঙ্গীর আলম, অধ্যাপক (অব.) কবি আতাউল হক সিদ্দিকী, জেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা আমিনুল ইসলাম।
নাটোর : সংসদ সদস্য মো. শফিকুল ইসলাম শিমুলের নেতৃত্বে একটি শোভাযাত্রা শহরের প্রধান প্রধান সড়ক ঘুরে রাণী ভবানী রাজবাড়ী চত্বরের বৈশাখী মঞ্চে গিয়ে শেষ হয়। পরে সেখানে আলোচনা সভায় জেলা প্রশাসক মো. মশিউর রহমানের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন, পুলিশ সুপার বাসুদেব বণিক। এছাড়াও রাজশাহী বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের (আরএসটিইউ) ভিসি প্রফেসর ড. মো. শাহ্জাহানের নেতৃত্ব সকালে ক্যাম্পাস চত্বর থেকে একটি র‌্যালি বের হয়। পরে আলোচনা সভায় রেজিস্ট্রার ড. মো. সোলায়মানের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন প্রফেসর ড. মো. সাইফুদ্দিন চৌধুরী, রুয়েটের প্রভাষক মামুনুর রশিদ ও মির্জা আবু মো. হাসিবুল ইসলাম ফারুক।
দিনাজপুর : মঙ্গলবার জেলা প্রশাসন ও শিশু একাডেমি উদ্যোগে শিশুদের চিত্রাংকন, লোক সঙ্গীত, লোক নৃত্যসহ বিভিন্ন প্রতিযোগিতা এবং সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়।
অপরদিকে দিনাজপুর শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে বৈশাখী উৎসব কমিটির উদ্যোগে পক্ষকালব্যাপী বৈশাখী মেলার উদ্বোধন করেন সংসদ সদস্য হুইপ ইকবালুর রহিম।
বরিশাল ব্যুরো : পহেলা বৈশাখ সকালে নগরীর বিএম স্কুলের মাঠ থেকে মঙ্গল শোভাযাত্রা বের করে চারুকলা। এর আগে বিএম স্কুল মাঠে রাখী উৎসবের উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মো. শহীদুল আলম ও সাংস্কৃতিক ব্যক্তিত্ব মীর মুজতবা আলী। ঢাক উৎসবের উদ্বোধন করেন পুলিশ কমিশনার শৈবালকান্তি চৌধুরী। উদীচীর পরিবেশনায় প্রভাতী অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। নগরীর বিএম স্কুলে উদীচী আয়োজনে তিন দিনব্যাপী বৈশাখী মেলা, বক্ষব্যাধী হাসপাতালের মাঠে চাঁদের হাট’র উদ্যোগে তিন দিনব্যাপী বৈশাখী মেলা, সিটি কলেজ প্রাঙ্গণে দুই দিনব্যাপী লোকজ সংস্কৃতি উৎসব, শহীদ মিনার প্রাঙ্গণে শব্দাবলী’র উদ্যোগে দুই দিনব্যাপী বৈশাখী উৎসব, প্লানেট ওয়ার্ডে সঙ্গীতানুষ্ঠান ও শহিদ আবদুর রব সেরনিয়াত সেতুর ঢালে সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এছাড়া বরিশাল জেলা প্রশাসন সার্কিট হাউসে, বরিশাল প্রেস ক্লাব নিজস্ব ভবনে, বিশ্ব সাহিত্য কেন্দ্র ব্যাপটিস্ট মিশন বালিকা বিদ্যালয় প্রাঙ্গণেসহ বিভিন্ন সংগঠনের উদ্যোগে পান্তা ইলিশের আয়োজন করা হয়।
ফরিদপুর ব্যুরো : র‌্যালি শেষে অম্বিকা ময়দানে প্রধান অতিথি হিসেবে নববর্ষের উদ্বোধনের ঘোষণা দেন প্রবাসী কল্যাণ ও বৈদেশিক কর্মসংস্থান মন্ত্রী ইঞ্জিনিয়ার খন্দকার মোশাররফ হোসেন। এ সময় জেলা প্রশাসক সরদার সরাফত আলী, পুলিশ সুপার জামিল হাসানসহ প্রশাসনের কর্মকর্তারা, বিভিন্ন সামাজিক, রাজনৈতিক, মুক্তিযোদ্ধা, সাংস্কৃতিক সংগঠনসহ, স্কুল-কলেজের ছাত্রছাত্রীরা উপস্থিত ছিলেন।
এছাড়া সান রাইজ প্রি-ক্যাডেট স্কুল, মানব উন্নয়ন কিন্ডারগার্টেন, একুশে টেলিভিশন দর্শক ফোরাম, মাছরাঙ্গা সুপার শপ র‌্যালি ও চিত্রাংকন প্রতিযোগিতার আয়োজন করে।
দিনব্যাপী পান্তা-ইলিশ, গ্রামীণ খেলাধুলার প্রতিযোগিতা, বৈশাখী মেলা, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানের আয়োজন করে বিভিন্ন সংগঠন।
বাগেরহাট : সকালে বাগেরহাট স্টেডিয়ামে বর্ষবরণ কর্মসূচির উদ্বোধন করেন সংসদ সদস্য ডা. মোজাম্মেল হোসেন। বাগেরহাটের জেলা প্রশাসক মো. জাহাঙ্গীর আলমের সভাপতিত্বে বক্তব্য রাখেন সংসদ সদস্য মীর শওকাত আলী বাদশা, সংরক্ষিত আসনের মহিলা সংসদ সদস্য হেপী বড়াল, পুলিশ সুপার মো. নিজামুল হক মোল্লা, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক মো. শাহ আলম সরদার, আরিফ নাজমুল হাসান প্রমুখ। পরে বাগেরহাট স্টেডিয়াম থেকে বর্ণাঢ্য র‌্যালি শহরের প্রধান প্রধান সড়ক প্রদক্ষিণ শেষে স্বাধীনতা উদ্যানের দক্ষিণ পাশের মেলা চত্বরে গিয়ে শেষ হয়।
ধামরাই (ঢাকা) : ধামরাই পৌরশহরের লর্ড হার্ডিঞ্জ উচ্চবিদ্যালয়ের মাঠে বর্ষবরণ অনুষ্ঠানে দর্শক স্রোতাদের মাতালেন শিল্পীগোষ্ঠী দোয়েল, অনিবার্ণ ও গোকুল চারুকলার নবীন-প্রবীণ শিল্পীরা। আর রাতে নেচে গেয়ে দর্শকদের মন জয় করলেন জনপ্রিয় কণ্ঠশিল্পী আঁখি আলমগীর ও চ্যানেল আইয়ের শিল্পীরা। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন দিএকমি ল্যাবরেটরিজ লিমিটেডের নির্বাহী পরিচালক হাসিবুর রহমান কাশেম। প্রধান অতিথি ছিলেন সংসদ সদস্য মুক্তিযোদ্ধা এমএ মালেক। অনুষ্ঠানের উদ্বোধন করেন সাবেক সংসদ সদস্য ও ঢাকা জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মুক্তিযোদ্ধা বেনজীর আহমদ। বিশেষ অতিথি ছিলেন মুক্তিযোদ্ধা আহমদ আল জামান আমান, মোহাদ্দেশ হোসেন, মোল্লা গোলাম কবীর, এমআই চৌধুরী, জাকির হোসেন, এসএম রফিকুল ইসলাম, সাহেব আলী, হিমায়েত কবীর মতিন, আরিপুর ইসলাম আরিফ ও দেওয়ান মাইনুদ্দিন প্রমুখ।
গৌরনদী : উপজেলার বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠন নানান অনুষ্ঠানের আয়োজন করে। সর্বত্রই ছিল পান্তা ইলিশের আয়োজন। এছাড়া কবিতা পাঠ, আবৃত্তি ও গানে গানে বর্ষবরণ করেছেন গৌরনদী উপজেলার বিভিন্ন সংগঠন।
দাগনভূঞা : বর্ষবরণ উৎসবে প্রধান অতিথি ছিলেন দাগনভূঞা উপজেলা চেয়ারম্যান দিদারুল কবির রতন। নির্বাহী কর্মকর্তা ফরিদা খানমের সভাপতিত্বে ও বিবি তহুরার সঞ্চালনায় বিশেষ অতিথি ছিলেন উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান জয়নাল আবদীন মামুন, মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান সাহিদা আক্তার শেফালী। আরও উপস্থিত ছিলেন ডাক্তার এমএ করিম, দেওয়ান মো. জাহাঙ্গীর, মিজানুর রহমান, উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার শরিয়ত উল্যাহ বাঙালি প্রমুখ।
ঝালকাঠি : ভোরবেলায় শিশু পার্কের উন্মুক্ত মঞ্চে গানে গানে আর নাচের মাধ্যমে বরণ করা হয় পহেলা বৈশাখকে। পরে একই স্থান থেকে বের হয় মঙ্গল শোভাযাত্রা। জেলা প্রশাসক মো. শাখাওয়াত হোসেন এতে নেতৃত্ব দেন। প্রফেসর গুলনাহার বেগমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত আলোচনা সভায় প্রফেসর মো. লাল মিয়া, হেমায়েত উদ্দিন হিমু, কামরুন্নেসা আজাদ, ধীরেণ সরকার, সুজিত কান্তি বসু, শাকিল হাওলাদার প্রমুখ বক্তৃতা করেন।
লক্ষ্মীপুর : কালেক্টরেট ভবন প্রাঙ্গণে তিন দিনব্যাপী বৈশাখী মেলা ও সাংস্কৃতিক উৎসব শুরু হয়েছে। উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন, জেলা প্রশাসক একেএম টিপু সুলতান, পুলিশ সুপার শাহ মিজান শাফিউর রহমান, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মুহাম্মদ শাহাদাৎ হোসাইন, জেলা সিভিল সার্জন ডা, মো. গোলাম ফারুক ভূঁইয়া, অতিরিক্ত পুলিশ সুপর মো. মারুফ হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগ সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট নুর উদ্দিন চৌধুরী নয়ন, সহকারী পুলিশ সুপার (সার্কেল) মো. নাসিম মিয়া, সহকারী পুলিশ সুপার (সদর) জুনায়েত কাউছার, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান একেএম সালাহউদ্দিন টিপু ও জেলা তথ্য অফিসার আবদুল্লাহ আল মামুন প্রমুখ।
পিরোজপুর : মঙ্গল শোভাযাত্রায় নেতৃত্ব দেন সংসদ সদস্য একেএমএ আউয়াল ও জেলা প্রশাসক একেএম শামিমুল হক ছিদ্দিকী। পরে সভায় বক্তব্য রাখেন সংসদ সদস্য একেএমএ আউয়াল, জেলা প্রশাসক একেএম শামিমুল হক ছিদ্দিকী, পুলিশ সুপার শাহ আবিদ হোসেন, অধ্যাপিকা লায়লা ইরাদ ও জিয়াউল আহসান গাজী প্রমুখ।
চুয়াডাঙ্গা : মঙ্গলবার সকালে জেলা প্রশাসনের নেতৃত্বে দৃষ্টিনন্দন শোভাযাত্রা বের করা হয়। পরে জেলা প্রশাসকের বাসভবনে ও পুলিশ লাইনে পান্তা ইলিশের আয়োজন করা হয়। এতে জেলা প্রশাসক দেলোয়ার হোসাইন ও পুলিশ সুপার রশীদুল হাসান মেহমানদের আপ্যায়ন করেন। বিকালে জেলা শহরের টাউন ফুটবল মাঠে সপ্তাহব্যাপী চুয়াডাঙ্গা পৌরসভা কর্তৃক আয়োজিত বৈশাখী মেলার উদ্বোধন করেন পৌর মেয়র রিয়াজুল ইসলাম জোয়ার্দ্দার টোটন।
নেত্রকোনা : জেলা শহরের মোক্তারপাড়া মুক্তমঞ্চ থেকে সম্মিলিত শোভাযাত্রার নেতৃত্ব দেন জেলা প্রশাসক ড. তরুণ কান্তি শিকদার ও পুলিশ সুপার মো. জাকির হোসেন খান। এছাড়াও জেলা শহরের সাতপাই সরকারি কলেজ মাঠ, দত্ত উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গণ, মধুমাছি কচিকাচার মেলা চত্বর, চন্দ্রনাথ উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে বৈশাখী মেলা অনুষ্ঠিত হয়।
গোপালগঞ্জ : বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিদ্যালয় ক্যাম্পাসে ভিসি ড. খোন্দকার নাসির উদ্দিনের নেতৃত্বে বের করা হয় মঙ্গল শোভাযাত্রা। অনুষ্ঠিত হয় গ্রামীণ খেলা, গ্রামীণ মেলা, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান ও ঘুড়ি উৎসব। বিকালে শিশু একাডেমি প্রাঙ্গণের উদ্যোগে আয়োজিত সাংস্কৃতিক প্রতিযোগিতায় বিজয়ীদের মধ্যে পুরস্কার বিতরণ ও সন্ধ্যায় শেখ রাসেল শিশু পার্কে তিন দিনব্যাপী বৈশাখী মেলার উদ্বোধন করা হয়। উদ্বোধন করেন জেলা প্রশাসক মো. খলিলুর রহমান।
পাবনা : সকালে স্কয়ার গ্রুপের পরিচালক অঞ্জন চৌধুরী পিন্টুর নেতৃত্বে শহরে স্কয়ারের একটি শোভাযাত্রা শহর প্রদক্ষিণ করে। এরপর ইউনিভার্সাল গ্রুপের ব্যবস্থাপনা পরিচালক কবি সোহানী হোসেনের নেতৃত্বে ইউনিভার্সালের উদ্যোগে শহরে পৃথক শোভাযাত্রা সবার দৃষ্টি কাড়ে। সরকারি এডওয়ার্ড কলেজ মাঠে স্কয়ার ফুড অ্যান্ড বেভারেজের উদ্যোগে আয়োজন করা হয় রুচি বৈশাখী কনসার্ট। এতে ব্যান্ডদল ওয়ারফেইজ এবং মাকসুদ ও নোলক বাবু, সজল, সিঁথি সাহা এবং ম্যাজিক বাউলিয়ানা ২০১৪-এর বিজয়ী অদিতি সরকার সঙ্গীত পরিবেশন করে। এছাড়া পাবনা প্রেস ক্লাব, গণশিল্পী সংস্থা, শহীদ সাধন কলেজসহ বিভিন্ন সংগঠন প্রাতঃরাশ এবং পান্তার ইলিশের আয়োজন করে। পাবনা টাউন হলের মুক্তমঞ্চে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে আয়োজন করা হয় বৈশাখী আলোচনা সভা।
সিরাজগঞ্জ : মঙ্গলবার সকাল থেকেই বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে শহরে বর্ণাঢ্য র‌্যালি বের করা হয়। এ ছাড়াও বিভিন্ন সংগঠনের পক্ষ থেকে পান্তা ইলিশের আয়োজন করা হয়।
এদিকে বেলকুচি উপজেলা সদরে বিভিন্ন প্রতিষ্ঠানের উদ্যোগে পৃথক পৃথকভাবে নববর্ষ পালিত হয়েছে। সাবেক মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী ও জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আবদুল লতিফ বিশ্বাস বেলকুচি মহিলা ডিগ্রি কলেজের র‌্যালি উদ্বোধন করেন। এ সময় উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি একেএম ইউসুফ জী খান, সাধারণ সম্পাদক ফজলুল হক সরকার, উপজেলা চেয়ারম্যান মোহাম্মদ আলী প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।
জামালপুর :মঙ্গল শোভাযাত্রা শেষে শহরের বৈশাখী মেলার মাঠে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে মুক্তমঞ্চে বিভিন্ন সাংস্কৃতিক সংগঠন সঙ্গীত পরিবেশন করে। এ সময় উপস্থিত ছিলেন বস্ত্র ও পাট প্রতিমন্ত্রী মির্জা আজম এমপি, সাবেক ভূমিমন্ত্রী রেজাউল করিম হীরা এমপি, জেলা প্রশাসক মো. শাহাবুদ্দিন খান, অধ্যক্ষ মুজাহিদ বিল্লাহ ফারুকী, জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি অ্যাডভোকেট বাকী বিল্লাহ, সম্পাদক ফারুক আহম্মেদ চৌধুরী প্রমুখ।
চাঁপাইনবাবগঞ্জ : সংসদ সদস্য আবদুল ওদুদ, জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ জাহাঙ্গীর কবীর, পুলিশ সুপার বশির আহম্মদ ও জেলা পরিষদ প্রশাসক মইনুদ্দীন মণ্ডলের নেতৃত্বে চাঁপাইনবাবগঞ্জের ঐতিহ্য আম, পালকি ও ঢেঁকি নিয়ে বের করা হয় নববর্ষের মঙ্গল শোভাযাত্রা। সকাল ৮টায় হরিমোহন সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় প্রাঙ্গণে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে শুরু হয়েছে তিন দিনব্যাপী বৈশাখী মেলা, আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান। এছাড়াও নববর্ষ উপলক্ষ্যে জেলা প্রশাসনের আয়োজনে স্থানীয় গ্রিনভিউ স্কুল প্রাঙ্গণে বসে পান্তা-ইলিশ খাওয়া ও বৈশাখী গানের আসর।
বরগুনা : জেলা প্রশাসনের ব্যবস্থাপনায় শিমুলতলায় শুরু হয়েছে তিন দিনব্যাপী বৈশাখী মেলা। মেলায় প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক মীর জহুরুল ইসলাম আরও বক্তব্য রাখন পুলিশ সুপার সাইফুল ইসলাম, জেলা পরিষদ প্রশাসক মো. জাহাঙ্গীর কবীর, পৌর মেয়র মো. শাহাদাত হোসেন, উপজেলা চেয়ারম্যান আব্বাস হোসেন মন্টু মোল্লা, অ্যাডভোকেট মো. শাহজাহান মিয়া, মোতালেব মৃধা প্রমুখ। সভাপতিত্ব করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) সওগাতুল আলম।
গাজীপুর : সকালে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে একটি মঙ্গল শোভাযাত্রা বের করা হয়। জেলা প্রশাসক মো. নূরুল ইসলামের নেতৃত্বে শোভাযাত্রায় স্থানীয় সরকার বিভাগের উপ-পরিচালক আবদুল্লাহ সাজ্জাদ, অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মোহাম্মদ হোসেন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) মো. মহসীন, অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) এসএম মোস্তফা কামাল, গাজীপুর প্রেস ক্লাবের সভাপতি খায়রুল ইসলাম ও সাধারণ সম্পাদক আমিনুল ইসলাম প্রমুখ অংশ নেন।
ব্রাহ্মণবাড়িয়া : শিল্পকলা একাডেমি মিলনায়তনে কর্মসূচির উদ্বোধন করেন সাবেক পৌর চেয়ারম্যান মুক্তিযোদ্ধা আল মামুন সরকার। উৎসব উদযাপন কমিটির আহ্বায়ক এটিএম ফয়েজুল কবীরের সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব তন্ময় চক্রবর্তীর উপস্থাপনায় প্রধান অতিথি ছিলেন জেলা প্রশাসক ড. মুহাম্মদ মোশাররফ হোসেন। বক্তব্য রাখেন পুলিশ সুপার মনিরুজ্জামান পিপিএম, কর্মকর্তা খন্দকার নিপুন হোসাইন, জহিরুল ইসলাম ভূঞা, সম্পাদক বাছির দুলাল, নন্দিতা গুহ, রোকেয়া দস্তগীর, স্বপন কুমার দেবনাথ প্রমুখ।
চট্টগ্রাম ব্যুরো : মঙ্গলবার সকাল থেকে নগরীর ডিসি হিল, সিআরবি শিরীষতলা, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব, অভয়মিত্রঘাট, চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়সহ বিভিন্ন স্থানে বৈশাখ উদযাপনের উচ্ছ্বাসে মেতে ওঠে চট্টগ্রামবাসী। ভোর ৬টায় ওস্তাদ আজিজুল ইসলামের কোমল আশাবরী ও বৈরবী সুরে বংশীবাদনের মধ্য দিয়ে শুরু হয় বর্ষ বরণের অনুষ্ঠানমালা। ফলক উন্মোচন করে মঞ্চে এসে শিরীষতলার আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন ঘোষণা করেন ফজলে করিম চৌধুরী। অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করেন দৈনিক আজাদীর সম্পাদক এমএ মালেক। প্রথমাবরের মতো এ অনুষ্ঠানে সহযোগিতা করছে বাংলাদেশ রেলওয়ে। সকালে চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাব চত্বরে বেলুন উড়িয়ে বৈশাখী উৎসবের উদ্বোধন করেন দেশবরেণ্য চলচ্চিত্র অভিনেতা ও নিরাপদ সড়ক চাই আন্দোলনের প্রধান ইলিয়াছ কাঞ্চন। প্রেস ক্লাব সভাপতি কলিম সরওয়ারের সভাপতিত্বে সভায় চট্টগ্রাম সিটি কর্পোরেশনের সাবেক মেয়র এবিএম মহিউদ্দিন চৌধুরী, নগর বিএনপি সভাপতি আমীর খসরু মাহমুদ চৌধুরী, সাংবাদিক আবেদ খান, চট্টগ্রাম প্রেস ক্লাবের সাবেক সভাপতি আবু সুফিয়ান, চট্টগ্রাম সাংবাদিক ইউনিয়নের সভাপতি এজাজ ইউসুফী নববর্ষের শুভেচ্ছা জানান। বক্তব্য রাখেন প্রেস ক্লাবের সাধারণ সম্পাদক মহসিন চৌধুরী, সহ-সভাপতি সালাহ উদ্দিন মো. রেজা ও সাংস্কৃতিক সম্পাদক শহীদুল্লাহ শাহরিয়ার। তারুণ্যের বৈশাখ উদযাপন পরিষদের উদ্যোগে কর্ণফুলীর তীরে ব্যতিক্রমধর্মী বিভিন্ন আয়োজনের মধ্য দিয়ে বৈশাখের প্রথম দিনটি বরণ করে নেয় চট্টগ্রামবাসী। বৈশাখ উদযাপনের রীতিকে বদলে দিয়ে পুরো বাঙালিয়ানা ঢঙে বর্ষবরণের এ অনুষ্ঠানে ছিল উপচেপড়া ভিড়। বাঙালির চিরায়ত উৎসব পহেলা বৈশাখকে স্বাগত জানাতে প্রতিবারের মতো মঙ্গল শোভাযাত্রা বের করে চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ের চারুকলা ইন্সটিটিউট। সকালে চারুকলার ভেতর থেকে নানা বাদ্যযন্ত্রের তালে তালে বেরিয়ে আসে শোভাযাত্রা। গান, চিৎকার আর হর্ষধ্বনিতে এগিয়ে চলে শোভাযাত্রা। বিশাল ও বর্ণাঢ্য শোভাযাত্রাটি নগরীর বিভিন্ন সড়ক প্রদক্ষিণ করে আবার চারুকলায় এসে শেষ হয়।
পটুয়াখালী : সার্কিট হাউসের সম্মুখ থেকে একটি বর্ষবরণ র‌্যালি বের হয়। র‌্যালিতে উপস্থিত ছিলেন, কেন্দ্রীয় আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক অ্যাডভোকেট আফজাল হোসেন, জেলা প্রশাসক অমিতাভ সরকার, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক খান মোশারফ হোসেন, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান তারিকুজ্জামান মনি প্রমুখ।
 

বাংলার মুখ পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close