¦
কুমিল্লায় পুলিশের মাসোহারা সাত কোটি টাকা

তাবারক উল্লাহ কায়েস ও মোহাম্মদ ময়নাল হোসেন, কুমিল্লা ব্যুরো | প্রকাশ : ০৯ মে ২০১৫

কুমিল্লার ১৬ উপজেলার বিভিন্ন এলাকায় ৩ হাজার ৩৮৩টি সড়ক ও আঞ্চলিক মহাসড়কের ১৭ হাজার ৮৩৬.৫৫ কিমি. রাস্তায় অবৈধভাবে প্রায় ২০ হাজার নম্বর বিহীন সিএনজি, অটোরিকশা চলাচল করছে চালকদের প্রতি মাসে পুলিশকে ৭ কোটি টাকা মাসোয়ারা দিয়ে এসব সড়কে চলাচল করতে হচ্ছে। প্রতিটি সিএনজি, অটোরিকশা চালক ৩ থেকে সাড়ে ৩ হাজার টাকা পুলিশকে মাসোয়ারা দিতে হচ্ছে। এতে সহায়তা করছে বিভিন্ন দলে রাজনৈতিক পরিচয়ধারী কতিপয় শ্রমিক নেতাকর্মী। এতে সরকার জেলার বিভিন্ন সড়কে চলাচলকারী অবৈধ ২০ হাজার নম্বরবিহীন সিএনজি, অটোরিকশা থকে বিপুল পরিমাণ রাজস্ব আয় থেকে বঞ্চিত হচ্ছে। যার ফলে জেলার বিভিন্ন অঞ্চলের সিএনজি, অটোরিকশা চালকদের যাত্রীদের জিম্মি করে বেপরোয়াভাবে প্রতিটি রুটে যাত্রীদের কাছ থেকে দ্বিগুণ ভাড়া আদায় করতে দেখা যাচ্ছে। এতে জেলার সাড়ে ৫৬ লাখ মানুষ সিএনজি চালিত অটোরিকশা চালকদের কাছে জিম্মি হয়ে পড়েছেন।
জেলার ১৬ উপজেলার মধ্যে কুমিল্লা আদর্শ সদর, কুমিল্লা সদর দক্ষিণ, চৌদ্দগ্রাম, লাকসাম, বরুড়া, নাংগলকোট, মনোহরগঞ্জ, চান্দিনা, তিতাস, দাউদকান্দি, হোমনা, মেঘনা, মুরাদনগর, ব্রাহ্মণপাড়া, দেবিদ্বার ও বুড়িচং। এই উপজেলার বিভিন্ন সড়ক ও আঞ্চলিক মহাসড়ক সিএনজি, অটোরিকশা ভাড়া আদায়ে কোনো নিয়মনীতি নেই। সরেজমিন ও স্থানীয় সরকার প্রকৌশল অধিদফতরের তথ্যমতে জেলায় মোট রাস্তার সংখ্যা ৩ হাজার ৩৮৩টি, আর মোট রাস্তার দৈর্ঘ্য ৯ হাজার ১০১ কিমি., কাঁচা রাস্তার মোট দৈর্ঘ্য ৬ হাজার ১১৬ কিমি., পাকা রাস্তার দৈর্ঘ্য ২০ হাজার ২৩.৮ কিমি., কিমি., আধা পাকা রাস্তার দৈর্ঘ্য ৪৫২.৩১ কিমি., কাঁচা রাস্তার দৈর্ঘ্য ১৪৩.৪৪ কিমি.। কুমিল্লার ১৬ উপজেলার ৩০৮৭.৩৩ বর্গকিলোমিটার আয়তনের এ জেলায় আন্তর্জাতিক সীমান্তের দৈর্ঘ্য ১০৬ কিলোমিটার। আর ১৮৫টি ইউনিয়নের ৩ হাজার ৬৮৭টি গ্রামের মোট জনসংখ্যা ৫৬ লাখ ২ হাজার ৬২৫ জন।
কুমিল্লা বিআরটিএ’র তথ্যানুসারের উপজেলার ছোট-বড় বিভিন্ন সড়ক ও আঞ্চলিক মহাসড়কে অবৈধ প্রায় ২০ হাজার সিএনজি, অটোরিকশার প্রতিটি বিপরীতে ৩ হাজার থেকে সাড়ে ৩ হাজার টাকা পুলিশকে মাসোয়ারা দিয়ে চলাচল করতে দেখা যাচ্ছে। অনুসন্ধানে দেখা যায়, ১৬ উপজেলার বিভিন্ন সড়ক ও আঞ্চলিক মহাসড়ক সিএনজি, অটোরিকশা চালকরা পুলিশকে প্রতি মাসে ৭ কোটি টাকা উৎকোচ ও মাসোয়ারা দিয়ে চলাচল করতে হচ্ছে। এতে সহায়তা করছে রাজনৈতিক পরিচয়ধারী বিভিন্ন দলের কতিপয় শ্রমিক নেতাকর্মী। এ প্রসঙ্গে কুমিল্লা বিআরটিএ সহকারী পরিচালক (এডি) একেএম মিজানুর রশীদ যুগান্তরকে জানান, লাইসেন্সবিহীন চালকদের অনেকেই লাইসেন্সের জন্য আবেদন করেনি কিন্তু সিএনজি অটোরিকশা লাইসেন্সের জন্য অনেক আবেদন জমা রয়েছে।
কুমিল্লা বিআরটিএ কর্তৃপক্ষ’র দাবি কোন প্রকার প্রশাসনিক অনুমোদন ছাড়াই, পুলিশসহ বিভিন্ন সেক্টরে প্রতিটি’র বিপরীতে ২৫০০ টাকা থেকে ৩ হাজার টাকা মাসোহারা প্রদান করে চলছে, এসব অনুমোদনহীন সিএনজি অটোরিকশা। যাত্রী হয়রানির প্রসঙ্গে তিনি বলেন, এ বিষয়ে চালকদের বিরুদ্ধে কঠোর প্রশাসনিক ব্যবস্থা নেয়া হবে। এ প্রসঙ্গে কুমিল্লা জেলা প্রশাসক হাসানুজ্জামান কল্লোল যুগান্তরকে জানান, শিগগিই ভ্রাম্যমাণ আদালত মাধ্যমে লাইসেন্স বিহীন অবৈধ এসব সিএনজি অটোরিকশার চালকদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে। এছাড়া তিনি জানান, উচ্চ হারে ভাড়া আদায় ও যাত্রী হয়রানি রোধেও প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে।
 

বাংলার মুখ পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close