jugantor
আগৈলঝাড়ায় পূজাকে সামনে রেখে মাদকের রমরমা ব্যবসা

  আগৈলঝাড়া প্রতিনিধি  

২০ অক্টোবর ২০১৫, ০০:০০:০০  | 

বরিশালের আগৈলঝাড়ায় হাতের নাগালেই পাওয়া যায় ইয়াবাসহ বিভিন্ন মাদক দ্রব্য। পূজা উপলক্ষে ইতিমধ্যেই বিভিন্ন স্থানে মাদকের রমরমা ব্যবসা শুরু হয়েছে। এমন তথ্যই পাওয়া গেছে মাদক বিক্রেতা ও সেবনকারীদের কাছ থেকে। পুলিশ প্রশাসন মাদক বিক্রেতাদের তালিকা তৈরি করে অভিযান পরিচালনা করছেন। গ্রেফতার বা অভিযানের পরেও মাদক ব্যবসায়ী ও সেবনকারীদের এতটুকু রুখতে পারেনি পুলিশ। উপজেলার বিভিন্ন স্থানে দীর্ঘদিন ধরে ফেনসিডিল, ইয়াবা, গাঁজা, ভাং, ড্যান্ডিসহ বিভিন্ন মাদক সহজলভ্য হওয়ায় যুবসমাজ মাদকাসক্ত হয়ে পড়ছে। অনেক আগেই এলাকায় ইয়াবার বিস্তৃতি লাভ করেছে। উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে মাদক ব্যবসায়ীদের পুলিশ গ্রেফতার করলেও কয়েক দিন পরেই আদালত থেকে জামিনে এসে ব্যবসা চালিয়ে আসছে। একটি বিশ্বস্ত সূত্র জানিয়েছে, আগৈলঝাড়ায় ইয়াবা, গাঁজা, ফেনসিডিলের পাশাপাশি বর্তমানে ড্যান্ডি নামে নেশা জাতীয় দ্রব্য সহজলভ্য হিসেবে পাওয়া যাচ্ছে। সব সরকারের সময় রাজনৈতিক দলের ছত্রছায়ায় থেকে কিছু সরকার দলীয় প্রভাবশালীদের মদদে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে মাদক বিক্রির সিন্ডিকেট গড়ে ওঠে। এসব স্থানে উঠতি কিছু রাজনৈতিক পাতি নেতা অবাধে মাদক বিক্রি ও সেবন করায় প্রশাসনের সদিচ্ছা থাকলেও ব্যবসা বন্ধসহ হরহামেশাই তাদের গ্রেফতার করতে পারছে না বলে প্রশাসনের একটি দ্বায়িত্বশীল সূত্র থেকে জানা গেছে। টেকেরহাটে পুলিশ চেকপোস্ট বসার কারণে মাদক পাচারকারীরা আগৈলঝাড়ার আশপাশে কোনো পুলিশি চেকপোস্ট না থাকায় নিরাপদ ট্রানজিট হিসেবে এ রুটটি ব্যবহার করছে। যশোর-গোপালগঞ্জ থেকে মাদকের চালান পয়সারহাট-আগৈলঝাড়া হয়ে মোটরসাইকেলে করে বরিশাল সদরসহ দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন জেলায় পাচার করা হচ্ছে। মাঝে মাঝে পুলিশ চেকপোস্ট বসালে ও মাদক ব্যবসায়ীরা রুট পরিবর্তন করে ত্রিমুখী ও আমবৌলা খেয়া ঘাট দিয়ে মাদক দ্রব্য পারাপার করছে। ব্যাবসায়ীরা রামশীল থেকে রাজিহার হয়ে চাঁদশী হয়ে গৌরনদী ও রাজিহার খেকে ঘোষেরহাট রুট ব্যবহার করছে। ঘোষেরহাট ঠাকুর বাড়ি একটি বড় মাদকের অন্যতম একটি বিক্রয় কেন্দ্র গড়ে উঠেছে। ওই এলাকার বিক্রেতারা বাশাইল ওয়াপদা এলাকায় ভ্রাম্যমাণ মাদক বিক্রির স্পট গড়ে তুলেছে। এ ব্যাপারে থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মনিরুল ইসলাম সাংবাদিকদের জানান, পূজা উপলক্ষে পয়সারহাটসহ বিভিন্ন স্থানে পুলিশের টহল জোরদার করা হয়েছে। মাদকের ব্যাপারে আমরা কঠোর ব্যবস্থা নিচ্ছি।



সাবমিট

আগৈলঝাড়ায় পূজাকে সামনে রেখে মাদকের রমরমা ব্যবসা

 আগৈলঝাড়া প্রতিনিধি 
২০ অক্টোবর ২০১৫, ১২:০০ এএম  | 
বরিশালের আগৈলঝাড়ায় হাতের নাগালেই পাওয়া যায় ইয়াবাসহ বিভিন্ন মাদক দ্রব্য। পূজা উপলক্ষে ইতিমধ্যেই বিভিন্ন স্থানে মাদকের রমরমা ব্যবসা শুরু হয়েছে। এমন তথ্যই পাওয়া গেছে মাদক বিক্রেতা ও সেবনকারীদের কাছ থেকে। পুলিশ প্রশাসন মাদক বিক্রেতাদের তালিকা তৈরি করে অভিযান পরিচালনা করছেন। গ্রেফতার বা অভিযানের পরেও মাদক ব্যবসায়ী ও সেবনকারীদের এতটুকু রুখতে পারেনি পুলিশ। উপজেলার বিভিন্ন স্থানে দীর্ঘদিন ধরে ফেনসিডিল, ইয়াবা, গাঁজা, ভাং, ড্যান্ডিসহ বিভিন্ন মাদক সহজলভ্য হওয়ায় যুবসমাজ মাদকাসক্ত হয়ে পড়ছে। অনেক আগেই এলাকায় ইয়াবার বিস্তৃতি লাভ করেছে। উপজেলার বিভিন্ন স্থান থেকে মাদক ব্যবসায়ীদের পুলিশ গ্রেফতার করলেও কয়েক দিন পরেই আদালত থেকে জামিনে এসে ব্যবসা চালিয়ে আসছে। একটি বিশ্বস্ত সূত্র জানিয়েছে, আগৈলঝাড়ায় ইয়াবা, গাঁজা, ফেনসিডিলের পাশাপাশি বর্তমানে ড্যান্ডি নামে নেশা জাতীয় দ্রব্য সহজলভ্য হিসেবে পাওয়া যাচ্ছে। সব সরকারের সময় রাজনৈতিক দলের ছত্রছায়ায় থেকে কিছু সরকার দলীয় প্রভাবশালীদের মদদে উপজেলার বিভিন্ন স্থানে মাদক বিক্রির সিন্ডিকেট গড়ে ওঠে। এসব স্থানে উঠতি কিছু রাজনৈতিক পাতি নেতা অবাধে মাদক বিক্রি ও সেবন করায় প্রশাসনের সদিচ্ছা থাকলেও ব্যবসা বন্ধসহ হরহামেশাই তাদের গ্রেফতার করতে পারছে না বলে প্রশাসনের একটি দ্বায়িত্বশীল সূত্র থেকে জানা গেছে। টেকেরহাটে পুলিশ চেকপোস্ট বসার কারণে মাদক পাচারকারীরা আগৈলঝাড়ার আশপাশে কোনো পুলিশি চেকপোস্ট না থাকায় নিরাপদ ট্রানজিট হিসেবে এ রুটটি ব্যবহার করছে। যশোর-গোপালগঞ্জ থেকে মাদকের চালান পয়সারহাট-আগৈলঝাড়া হয়ে মোটরসাইকেলে করে বরিশাল সদরসহ দক্ষিণাঞ্চলের বিভিন্ন জেলায় পাচার করা হচ্ছে। মাঝে মাঝে পুলিশ চেকপোস্ট বসালে ও মাদক ব্যবসায়ীরা রুট পরিবর্তন করে ত্রিমুখী ও আমবৌলা খেয়া ঘাট দিয়ে মাদক দ্রব্য পারাপার করছে। ব্যাবসায়ীরা রামশীল থেকে রাজিহার হয়ে চাঁদশী হয়ে গৌরনদী ও রাজিহার খেকে ঘোষেরহাট রুট ব্যবহার করছে। ঘোষেরহাট ঠাকুর বাড়ি একটি বড় মাদকের অন্যতম একটি বিক্রয় কেন্দ্র গড়ে উঠেছে। ওই এলাকার বিক্রেতারা বাশাইল ওয়াপদা এলাকায় ভ্রাম্যমাণ মাদক বিক্রির স্পট গড়ে তুলেছে। এ ব্যাপারে থানা ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মো. মনিরুল ইসলাম সাংবাদিকদের জানান, পূজা উপলক্ষে পয়সারহাটসহ বিভিন্ন স্থানে পুলিশের টহল জোরদার করা হয়েছে। মাদকের ব্যাপারে আমরা কঠোর ব্যবস্থা নিচ্ছি।



 
শনি
রোব
সোম
মঙ্গল
বুধ
বৃহ
শুক্র