¦
ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় নেতাকে পেটালেন কর্মীরা

ঢাকা, ১০ ফেব্রুয়ারি: | প্রকাশ : ১০ ফেব্রুয়ারি ২০১৫

বাংলাদেশ ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় এক নেতাকে বেধড়ক মারধর করেছে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের সূর্যসেন হলের ছাত্রলীগের কর্মীরা। এছাড়া আরেক কেন্দ্রীয় নেতাকে হেনস্তা করেছে শামসুন নাহার হল ছাত্রলীগের নেত্রীরা। মঙ্গলবার দুপুরে রাজধানীর শাহবাগে এ ঘটনা ঘটে।
শামসুন নাহার হল ছাত্রলীগের সভাপতি নিশীতা ইকবাল নদীর বিরুদ্ধে ইয়াবা ব্যবসায় ও আরেক নেত্রীকে মারধরের ঘটনায় বিভিন্ন পত্রিকায় প্রতিবেদন প্রকাশের জের ধরে এ মারধরের ঘটনা ঘটে বলে জানা গেছে।
মারধরের শিকার ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় সদস্য মাহবুব খানকে ঢাকা মেডিকেলে চিকিৎসা দেয়া হয়েছে। বর্তমানে তিনি ঢাবির মেডিকেল সেন্টারে চিকিৎসাধীন রয়েছে। এ ঘটনায় সারাদিন ঢাবি ক্যাম্পাসে উত্তেজনা বিরাজ করে। রাতে বিভিন্ন হলের নেতাকর্মীরা রড, দেশীয় অস্ত্র নিয়ে শো ডাউন করে।
ছাত্রলীগ সূত্রে জানা যায়, দুপুর দেড়টার দিকে শামসুন নাহার হল ছাত্রলীগের সভাপতি নিশীতা ইকবাল নদীর নেতৃত্বে ওই হলের কর্মীরা কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক শামসুল কবির রাহাতকে হেনস্তা করে। এর পরপর কেন্দ্রীয় কমিটির সদস্য ও রাহাতের অনুসারী মাহবুব খানকে মারধর করেছে সূর্যসেন হল শাখা ছাত্রলীগের সভাপতি মোবারক হোসেনের অনুসারীরা। নদী ও মোবারক উভয়ে ছাত্রলীগ সাধারণ সম্পাদক সিদ্দিকী নাজমুল আলমের অনুসারী।
গত ২৮ জানুয়ারি নিশীতা ইকবাল নদীর বিরুদ্ধে ইয়াবা ব্যবসায় জড়িত থাকার বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় উপাচার্য ও প্রক্টর বরাবর অভিযোগ করেন নদীর অনুসারী ছাত্রলীগ কর্মী ও চারুকলা ছাপচিত্র বিভাগের ছাত্রী ইসরাত জাহান সোনালী। যার খবর এর পরদিন বিভিন্ন গণমাধ্যমে প্রকাশিত হয় এবং ঘটনা তদন্তে কমিটি গঠন করেছে বিশ্ববিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ।
ছাত্রলীগ সভাপতি বদিউজ্জামান সোহাগ বলেন, মারামারির ঘটনা তিনি শুনেছেন। এ ঘটনা তদন্তের পর যারা দোষী সাব্যস্ত হবে তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

সর্বশেষ খবর পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close