¦

এইমাত্র পাওয়া

  • বঙ্গবন্ধু সেতুর পশ্চিম পার্শ্বে কোনাবাড়ি এলাকায় বাসে পেট্রোল বোমা হামলা: ৬ যাত্রী দগ্ধ ২ জনের অবস্থা আশংকাজনক
বেঁচে থাকার স্বপ্ন পুড়িয়ে দেয়া হচ্ছে: প্রধানমন্ত্রী

ঢাকা, ১৯ ফেব্রুয়ারি: | প্রকাশ : ১৯ ফেব্রুয়ারি ২০১৫

সমাজের বিভিন্ন ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ অবদানের স্বীকৃতিস্বরূপ একুশে পদক পেলেন দেশের ১৫ জন বিশিষ্ট নাগরিক। বৃহস্পতিবার রাজধানীর ওসমানী স্মৃতি মিলনায়তনে এক অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা তাদের হাতে পদক তুলে দেন।
অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী বলেন, মানুষ এখন সুন্দরভাবে বেঁচে থাকার স্বপ্ন দেখছে। কিন্তু তাদের সেই স্বপ্নকে আগুনে পুড়িয়ে দেয়া হচ্ছে। এটা কোন ধরনের রাজনীতি? তিনি বলেন, শিক্ষা ছাড়া কোনো জাতি এগিয়ে যেতে পারে না। আমাদের স্বপ্ন ক্ষুধা ও দারিদ্রমুক্ত বাংলাদেশ গড়া। কিন্তু কোমলমতি শিক্ষার্থীরা আজ স্কুলে যেতে পারছে না।
ভাষার মাসে একুশের চেতনার কথা স্মরণ করিয়ে দিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, বারবার আঘাত এসেছে, তারপরেও বাঙালি জাতি কখনো পরাভব মানেনি। বাঙালি এগিয়ে যাচ্ছে, এগিয়ে যাবে। বিএনপি-জামায়াত জোটের আন্দোলনের যৌক্তিকতা নিয়ে প্রশ্ন তুলে তিনি বলেন, বাংলাদেশ উন্নয়নের পথে এগিয়ে যাচ্ছে; ঠিক সেই সময় এই আঘাত বাঙালি জাতির ওপর কেন? যদি রাষ্ট্র পরিচালনায় কোনো ব্যর্থতা থাকত আমাদের, হয়তো সেটা অজুহাত হতে পারত।
হরতাল-অবরোধ দিয়ে শিক্ষার্থীদের ক্লাস-পরীক্ষায় অংশ নিতে বাধা দেয়ার কঠোর সমালোচনা করে শেখ হাসিনা বলেন, ১ জানুয়ারি আমরা ৪ কোটি ৪৪ লাখ ২৩ হাজার ছাত্রছাত্রীর হাতে বই তুলে দিয়েছি। কিন্তু ৬ জানুয়ারি থেকে অবরোধ-হরতাল চলছে। আমাদের ছেলে-মেয়েরা স্কুলে যেতে পারছে না। এসব শিক্ষার্থীদের অপরাধ কী তা জানতে চান প্রধানমন্ত্রী।
এসময় দেশের অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধি, বৈদেশিক মুদ্রার রিজার্ভ বৃদ্ধি, স্বাস্থ্য, বিদ্যুৎ, শিক্ষা, অবকাঠামো, তথ্য-প্রযুক্তিসহ বিভিন্ন খাতে গত ছয় বছরে উন্নয়নের চিত্র তুলে ধরেন শেখ হাসিনা।
অনুষ্ঠানে বিভিন্ন অবদানের মধ্যে ভাষা আন্দোলনে একটি, মুক্তিযুদ্ধে একটি, ভাষা ও সাহিত্যে দুটি, শিল্পকলায় তিনটি, শিক্ষায় দুটি, গবেষণায় একটি, সাংবাদিকতায় একটি, গণমাধ্যমে একটি ও সমাজসেবায় তিনটি পদক দেয়া হয়। প্রধানমন্ত্রী একুশে পদক পাওয়া ব্যক্তি ও তাদের প্রতিনিধিদের প্রত্যেককে সোনার পদক, এক লাখ টাকার চেক ও সন্মাননা প্রদান করেন।
পদকপ্রাপ্তরা হলেন : ভাষা আন্দোলনের জন্য পিয়ারু সরদার (মরণোত্তর), মুক্তিযুদ্ধে অধ্যাপক মো. মজিবর রহমান দেবদাস, ভাষা ও সাহিত্য অধ্যাপক দ্বিজেন শর্মা ও মুহম্মদ নূরুল হুদা, শিল্পকলায় আব্দুর রহমান বয়াতি (মরণোত্তর), এস এ আবুল হায়াত ও এ টি এম শামসুজ্জামান, শিক্ষায় অধ্যাপক ডা. এম এ মান্নান ও সনৎ কুমার সাহা, গবেষণায় আবুল কালাম মোহাম্মদ যাকারিয়া, সাংবাদিকতায় কামাল লোহানী, গণমাধ্যমে ফরিদুর রেজা সাগর, সমাজসেবায় ঝর্না ধারা চৌধুরী, সত্যপ্রিয় মহাথের ও অধ্যাপক ডা. অরূপরতন চৌধুরী।

সর্বশেষ খবর পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close