¦
হত্যাকারী ও হুকুমদাতাদের বিচারের নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর

ঢাকা, ২২ ফেব্রুয়ারি: | প্রকাশ : ২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৫

পেট্রল বোমা হামলা চালিয়ে মানুষ হত্যাকারীদের পক্ষে কেউ থাকে না। তাই গ্রেনেড হামলা করে বড় বড় নাশকতার পরিকল্পনা করা হচ্ছে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। রোববার আইন, বিচার ও সংসদ বিষয়ক মন্ত্রণালয় পরিদর্শনে এসে সংশ্লিষ্ট মন্ত্রী ও ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে মত বিনিময়ে তিনি একথা জানান। পাশাপাশি মানুষ হত্যাকারী এবং তাদের হুকুমদাতাদের দ্রুত দৃষ্টান্তমূলক বিচারের আওতায় আনার নির্দেশ দিয়েছেন প্রধানমন্ত্রী।
এ সময় আইনমন্ত্রী আনিসুল হক ও মন্ত্রণালয়ের সচিবসহ সংশ্লিষ্ট উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।
রাজনৈতিক আন্দোলনের নামে সাধারণ মানুষকে হত্যা করার কালচার বাংলাদেশে কখনো ছিলো না উল্লেখ করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এটা বিএনপি-জামায়াত এরা নিয়ে এসেছে। ইদানিং আবার শুনলাম জামায়াতের কোন এক নেতা বলেছে যে পেট্রোল বোমা মেরে হবে না, গ্রেনেড মারতে হবে। ইন্টেলিজেন্সকে এগুলো খুঁজে বের করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে বলেও জানান তিনি।
দেড় মাসের বেশি সময় ধরে বিএনপি-জামায়াত জোটের হরতাল-অবরোধে নাশকতার চিত্র তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, এ অবস্থা থেকে দেশের মানুষকে ‘উদ্ধার করতেই হবে’। তিনি বলেন, যারা এখন হাতে নাতে ধরা পড়েছে এদের বিচারটা দ্রুত করে ফেলতে হবে। এদের হুকুমদাতা অর্থের জোগানদার, বোমাগুলি তৈরি ও সরবরাহকারীকে বিচারের আওতায় আনতে হবে।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, এরইমধ্যে আইন শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী, সংশ্লিষ্ট সকলে, আমাদের গোয়েন্দা সংস্থা তারা খুঁজে খুঁজে বের করছে, ধরছে। ধরার ফলে নাশকতার হাত থেকে বাংলাদেশ বাঁচতে পারছে। কোন অপরাধী যাতে আইনের ফাঁক ফোকর দিয়ে বেরিয়ে যেতে না পারে সে বিষয়ে সবাইকে সজাগ থাকার নির্দেশ দেন তিনি।
সরকারের সফলতা ও দেশের উন্নয়ন অগ্রগতির কথা তুলে ধরে প্রধানমন্ত্রী বলেন, আর্ন্তজাতিক ভাবে বাংলাদেশ যেখানে একটা সম্মান জনক অবস্থায় ছিলো। বাংলাদেশ যেখানে একটা উন্নয়নের রোল মডেল, বাংলাদেশকে তারা অনুসরণ করতে চাচ্ছে। এ অবস্থায় গত ৬ জানুয়ারি থেকে পেট্রল বোমা মেরে মানুষ হত্যার মাধ্যমে বিশ্ব দরবারে বাংলাদেশকে হেয় করার চেষ্টা শুরু করেছে। এতে তারা অর্জন কি করেছেন জানি না।

সর্বশেষ খবর পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close