¦
আইন লঙ্ঘন করে নতুন ব্রান্ডের সিগারেট বাজারজাত করায় বিসিটিসির প্রতিবাদ

ঢাকা, ৩ এপ্রিল: | প্রকাশ : ০৩ এপ্রিল ২০১৫

ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ আইন লঙ্ঘন করে নতুন ব্রান্ডের সিগারেট বাজারজাত করার প্রতিবাদ জানিয়েছে বাংলাদেশ কমিউনিটি ফর টোব্যাকো কন্ট্রোল (বিসিটিসি)।
শুক্রবার জাতীয় প্রেসক্লাবের কনফারেন্স লাউঞ্জে আয়োজিত সংবাদ সম্মেলনে এ প্রতিবাদ জানানো হয়।
সংবাদ সম্মেলনে বলা হয়, এন্টি টোব্যাকো সংগঠনগুলোর কঠোর নজরদারি মধ্যেও ঢাকা টোব্যাকো ইন্ড্রাট্রিজ নামের একটি কোম্পানি ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা দিবসে উইনস্টন ব্রান্ডের একটি সিগারেট বাজারজাত শুরু করেছে। যা ‘ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ আইন-২০০৫ (যা ২০১৩ সালে সংশোধিত হয়েছে) এর সুষ্পষ্ট লঙ্ঘন।
লিখিত বক্তব্যে বিসিটিসির সভাপতি তালুকদার হারুণ বলেন, সরকার ধূমপান-বিরোধী আইন প্রণয়ন করলেও সিগারেট কোম্পানিগুলো বার বার তা লঙ্ঘন করার ধৃষ্টতা দেখাচ্ছে। সম্প্রতি ঢাকা টোব্যাকো ইন্ড্রাট্রিজ (মাদার কোম্পানি আকিজ গ্রুপ) নামের একটি কোম্পানি জাপান টোব্যাকো ইন্টান্যাশনালের সাথে উইনস্টন ব্রান্ডের সিগারেট উৎপাদন ও বাজারজাত করতে একটি চুক্তি স্বাক্ষর করেছে। এ চুক্তির আলোকে ঢাকা টোব্যাকো ইন্ড্রাট্রিজ জাপানি ব্রান্ডের ওই সিগারেটটি এরই মধ্যে বাজারে ছাড়া হয়েছে। নতুন ব্রান্ডের সিগারেটটি বাজারজাত করার জন্য বেছে নেয়া হয়েছে আমাদের মহান স্বাধীনতা দিবস ২৬ মার্চকে। এদিন কোম্পানিটি ঢাকা, চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে স্বাধীনতা দিবসের অনুষ্ঠানে যোগ দেয়া তরুণদের মধ্যে বিনামূল্যে বিপুল সংখ্যক সিগারেট শলাকা বিতরণ করেছে। এমনকি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের ছাত্রদের মধেও ফ্রি সিগারেট দেয়ার মতো ন্যাক্কারজনক ঘটনা ঘটানো হয়েছে। মোহম্মদপুর টাউন হল বাজার, যমুনা ফিউচার এলাকা, উত্তরার রাজউক ভবনের আশপাশে, মগবাজার ওয়ারলেস গেট এলাকায় ব্যাপক হারে ফ্রি সিগারেট বিতরণ করা হয়েছে। পাশাপাশি কোম্পানিটির কর্মীরা নিয়মিতভাবে দোকানদার মধ্যে স্টিকার, লিফলেট, ড্যাংলারসহ অন্যান্য প্রমোশনাল সামগ্রী বিতরণ করছে। যা ধূমপান ও তামাকজাত দ্রব্য ব্যবহার নিয়ন্ত্রণ আইনের ধারা ৫-এর সুষ্পষ্ট লঙ্ঘন।
সংগঠনটির সাধারণ সম্পাদক হাসান শাফিঈ জানান, ঢাকা টোব্যাকোর নতুন ব্রান্ডটি বিশ্বের অন্যান্য দেশে প্রিমিয়াম (উন্নতমানের) সিগারেট হিসেবে প্রচলিত। কিন্তু বাংলাদেশে এটি নিম্নস্তরের সিগারেট হিসেবে চালানোর কৌশল নেয়া হয়েছে। এর মাধ্যমে কোম্পানিটি প্রতিবছর সরকারকে কয়েক শ’ কোটি টাকা ভ্যাট ফাঁকি দিতে সক্ষম হবে। ভ্যাট ফাঁকি দেয়ার অসাধু উদ্দেশ্য থেকেই ঢাকা টোব্যাকো ইন্ড্রাট্রিজ উন্নতমানের সিগারেটকে নি¤œমানের সিগারেট হিসেবে বাজারজাত করছে।
বিসিটিসি’র তরফে আশা করা হয়, এই সংবাদ সম্মেলনের পর পুলিশ প্রশাসন সিগারেট কোম্পানিগুলোর কৌশলী বিজ্ঞাপন প্রচারের বিরুদ্ধে কঠোর অবস্থান নেবে। একই সাথে ঢাকা টোব্যাকো ইন্ড্রাট্রিজসহ দেশের সব সিগারেট কোম্পানিগুলোর কৌশলী প্রচারণা বন্ধেও সরকার কঠোর ও কার্যকর পদক্ষেপ নেবে। আগামী ৭ দিনের মধ্যে সরকার ও জাতীয় তামাক নিয়ন্ত্রণ সেল ঢাকা টোব্যাকো ইন্ড্রাট্রিজের বিরুদ্ধে তদন্তসহ প্রয়োজনীয় আইনানুগ ব্যবস্থা না নিলে বিসিটিসি স্বাস্থ্য ও অর্থমন্ত্রীর বরাবরে স্মারকলিপি জমা দেবে। প্রয়োজনে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়কেও বিষয়টি অবহিত করা হবে।
সংবাদ সম্মেলনে অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন সংগঠনের সহ-সভাপতি কাদের গনী চৌধুরী, ডা. শামীম সিরাজী, সদস্য সচিব দীন ইসলাম, অ্যাডভোকেট অলিউর রহমান নয়ন প্রমুখ।
 

সর্বশেষ খবর পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close