¦
উলফা নেতা রঞ্জন ও প্রদীপের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড

কিশোরগঞ্জ, ৮ এপ্রিল: | প্রকাশ : ০৮ এপ্রিল ২০১৫

আসামের বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন উলফার রঞ্জন চৌধুরী ওরফে মেজর রঞ্জন ও তার সহযোগী প্রদীপ মারাককে যাবজ্জীবন কারদণ্ড দিয়েছেন আদালত।
বুধবার কিশোরগঞ্জের জেলা ও দায়রা জজ মাহবুবুল ইসলাম অস্ত্র ও সন্ত্রাসবিরোধী আইনে তাদের যাবজ্জীবন কারাদণ্ড দেন।
রঞ্জন চৌধুরীকে অস্ত্র ও সন্ত্রাস দমন আইনের দুই মামলায় আর প্রদীপ মারাকের শুধু সন্ত্রাস দমন আইনের মামলায় সাজা হয়েছে।
আসামের বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন উলফার নেতা পরেশ বড়ুয়ার সহযোগী হলেন রঞ্জন চৌধুরী। তিনি শেরপুর জেলার গজনী ঝিনাইগাতীর মনিন্দ্র হাগিদের মেয়ে রাবিত্র ভ্রমকে বিয়ে করে গোপনে বাংলাদেশে অবস্থান করছিলেন। আর শেরপুরের ঝিনাইগাতী থানার বাকাকুড়া গ্রামের প্রদীপ মারাক তার সহযোগী হিসেবে কাজ করতেন।
২০১০ সালের ১৭ জুলাই ভোরে কিশোরগঞ্জ জেলার ভৈরব উপজেলার লক্ষ্মীপুর গ্রামে আবেদীন হাসপাতালের সামনে ঢাকা-সিলেট মহাসড়কের পাশ থেকে তাদের আটক করে র‌্যাব-৯ এর একটি দল। এসময় তাদের কাছ থেকে ২টি পিস্তল, ৪ রাউন্ড গুলি, হাতবোমা তৈরির উপকরণসহ ৪টি বোমা ও অন্যান্য সরঞ্জামাদি উদ্ধার করা হয়।
এ ঘটনায় র‌্যাব-৯ ভৈরব ক্যাম্পের উপ-সহকারী পরিচালক (ডিএডি) মো. করিমুল্লাহ বাদী হয়ে ভৈরব থানায় অস্ত্র, বিস্ফোরক, অবৈধ অনুপ্রবেশ ও সন্ত্রাস দমন আইনে পৃথক ৪টি মামলা দায়ের করেন। ভৈরব থানায় র‌্যাব-৯ ভৈরব ক্যাম্পের ডিএডি করিমুল্লাহর দায়ের করা মামলায় (মামলা নং- ১০ তারিখ ১৭/৭/২০১০) উলফা নেতা রঞ্জন চৌধুরী ও প্রদীপ মারাককে আসামি করা হয় এবং চার্জশিটে বাদীসহ ১৭ জনকে সাক্ষী করা হয়।
 

সর্বশেষ খবর পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close