¦
ভোলার 'নিষিদ্ধ' ইলিশ ঢাকায়

ভোলা প্রতিনিধি, ১৩ এপ্রিল | প্রকাশ : ১৩ এপ্রিল ২০১৫

ফাইল ছবি
বাংলা নববর্ষে পান্তা-ইলিশ, সর্ষে ইলিশ খাওয়ার রেওয়াজ। রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন স্থানে এ রেওয়াজের কারনেই ইলিশের ব্যাপক চাহিদা বেড়ে গেছে। এদিকে  ভোলাসহ উপকূলীয় ৬ জেলায় জাটকা ইলিশ সংরক্ষন ও নিরাপদ বিচরণের অভয়স্থল হিসেবে ৩২০ কিলোমিটার এলাকায় মাছ ধরার ওপর নিষেধাজ্ঞা আরোপ করে মৎস্য অধিদফতর। প্রশাসনের নিষেধাজ্ঞার কারণে নববর্ষে ইলিশ খাওয়ার আয়োজন বাদ দিয়েছেন স্থানীয়রা। প্রশাসনের কঠোর অবস্থানের কারণে ভোলার মাছ বাজারে ইলিশের দেখা পাওয়া যাচ্ছে না। কিন্তু ভোলায় নিষিদ্ধ এ ইলিশ উচ্চ দরে বিক্রি করতে ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন এলাকায় চালান পাঠাচ্ছেন ব্যবসায়ীরা ।
সোমবার সরজমিনে গিয়ে দেখা যায়, মেঘনা-তেঁতুলিয়ায় ধৃত ইলিশ উচ্চ দরে বিক্রির আশায় সোমবারও যাত্রীবাহী লঞ্চে করে বস্তায় বস্তায় ইলিশ ঢাকায় পাঠাচ্ছেন স্থানীয় মাছ ব্যবসায়ীরা।
 
এদিকে খোঁজ নিয়ে জানা যায়, গত ১০ দিন ঢাকা নেয়ার চেয়ে বেশি ইলিশ গেছে বরিশাল হয়ে ভারতের উদ্দেশে যশোর বেনাপোলে। এখন ওই এলাকায় পুলিশ , বর্ডারগার্ড ও কোস্টগার্ডের অভিযোন ও ঝক্কি ঝামালার কারনে রোববার থেকে ইলিশের চালান এককভাবে ঢাকায় নেয়ার হিড়িক পড়ে। লঞ্চ ও ট্রলার যোগে সদরঘাট, কাওরান বাজার, নিউমার্কেট, সোয়ারীঘাটসহ বিভিন্ন আড়তে যাচ্ছে এ মাছ। এমন কি চরফ্যাশণ-ঢাকা, হাতিয়া-মনপুরা-ঢাকা, দৌলথখান-ঢাকা, লালমোহন-ঢাকা, বোরহানউদ্দিন-ঢাকা রুটের যাত্রীবাহী লঞ্চেই বহন করা হচ্ছে ইলিশের চালান। পুলিশ ও কোস্টগার্ডকে ম্যানেজ করেই এ চালান নেয়া হচ্ছে বলে সংশ্লিষ্টদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে।
সর্বশেষ খবর পাতার আরো খবর
৭ দিনের প্রধান শিরোনাম

ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক : সাইফুল আলম, প্রকাশক : সালমা ইসলাম

প্রকাশক কর্তৃক ক-২৪৪ প্রগতি সরণি, কুড়িল (বিশ্বরোড), বারিধারা, ঢাকা-১২২৯ থেকে প্রকাশিত এবং যমুনা প্রিন্টিং এন্ড পাবলিশিং লিঃ থেকে মুদ্রিত।

পিএবিএক্স : ৮৪১৯২১১-৫, রিপোর্টিং : ৮৪১৯২২৮, বিজ্ঞাপন : ৮৪১৯২১৬, ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৭, সার্কুলেশন : ৮৪১৯২২৯। ফ্যাক্স : ৮৪১৯২১৮, ৮৪১৯২১৯, ৮৪১৯২২০

Developed by
close
close